CC News

Home »

পহেলা বৈশাখ

 

মানব সভ্যতার কূলে কূলে বিকশিত বিভিন্ন জাতি তার ঐতিহ্য ও ধর্মীয় কূশলতায় কিছু আনন্দকে নিজের করে নেয়। এভাবেই ঘটে বিভিন্ন সংস্কৃতির বিকাশ।প্রত্যেক জাতি ও সভ্যতা এর মাধ্যমে খুঁজে পায় স্বকীয় অনুভূতি ও আলাদা পরিচয়।বাংলাদেশের এমনি একটি উত্সব-পহেলা বৈশাখ।যা ধর্ম,সমাজ,বয়স ও বৃত্তির সীমা পেরিয়ে সর্বত্র একাকার।এরই স্বপ্রণোদিত ও সার্থক উচ্চারণ—’স্বাগত বাংলা নববর্ষ’। বাংলা নববর্ষ পালনের সঙ্গে ইরান ও আরবের বিভিন্ন দেশের নববর্ষ উদযাপনব—’নওরোজ’ অনুষ্ঠানের যোগসূত্র লক্ষণীয়। অন্যদিকে বর্ষ পরিক্রমা প্রসঙ্গে আল-কুরআনে বলা হয়েছে—তিনি সূর্য্যকে প্রচণ্ড দীপ্তি দিয়ে, চাঁদ বানিয়ে দিলেন স্নিগ্ধতা ভরে, বছর গণনা ও হিসাবের তরে” (কাব্যানুবাদ, ইউনুস-০৫)। আবার পবিত্র কুরআনেই বার মাসে এক বছর এবং মহান আল্লাহর অনুপম সৃষ্টি কৌশল প্রসঙ্গে আছে—”নভোমন্ডল-ভূমন্ডল সৃষ্টির সূচনা লগ্ন থেকেই আল্লাহ্ বারটি মাস নির্ধারণ করেছেন….”। (তওবা:৩৬) এ আয়াত নাজিলের পটভূমি থেকে জানা যায়— জানাদা ইব্নু আউফ নামক জনৈক আরবীয় এক সেনানায়ক প্রকৃতির স্বাভাবিক রীতিতে বিঘ্ন ঘটিয়ে প্রত্যেক বছরের শুরুতে ঘোষণা করে দিতেন-‘এ বছর ১৩ মাসে ঐ বছর ১৪ মাসে অথবা ১১ মাসে ইত্যাদি’।এর উদ্দেশ্য ছিল যুদ্ধ বিরতি পালনের প্রথা সিদ্ধ ও আল-কুরআন বিঘোষিত ‘সম্মানিত মাস চারটি’কে এড়িয়ে যাওয়া।যা সূরা তওবার ৩৬ নম্বর আয়াতের মাধ্যমে প্রত্যাখ্যান করা হয়। তবুও আমাদের দেশে কথার কথা হিসেবে ‘আঠার মাসে’ বছর বলা হয়। অন্যদিকে কথিত আছে -‘শের-ই-মৈশুর’ খ্যাত টিপু সুলতান অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় ৩৫ দিনে মাস হিসেব করে সৈনিকদের বেতন দিতেন।যা পরবর্তীতে তাঁর বিরুদ্ধে রাজকর্মচারী ও সৈন্যদের বিদ্রোহের কারণ হলে বৃটিশরা এতে ইন্ধন যোগায় এবং টিপু সুলতান শহীদ হন।অথচ আল্লাহর নির্ধারিত মাস বারটি এবং চান্দ্র মাস ঊনত্রিশ-ত্রিশ দিনে আবর্তীত হয়। ইতিহাসের ক্রমধারায় বিশ্বের নানান বিচিত্র রীতিতে আমাদের দেশ পেয়েছে সম্মৃদ্ধি ও নিজস্ব অস্তিত্ব।এক্ষেত্রে বাংলা নববর্ষেরও রয়েছে সোনালী অতীত।মোগল সম্রাট আকবরের শাসনামলে ‘ওশর’ ও ‘খারাজ’ তথা মুসলমানদের ফসলী কর ও অমুসলিমদের ভূমি কর আদায়ের ক্ষেত্রে চান্দ্রবর্ষ ও সৌরবর্ষের গণনারীতির ব্যবধানে তৈরী হয় জটিলতা।কেননা,ঐ দুই বর্ষ পরিক্রমায় তৈরী হয় এগার দিন ব্যবধান এবং তেত্রিশ বছরে পার্থক্য হয় এক বছর ! বাস্তবে দেখা গেল হিজরি সালের হিসেবে যখন কর আদায়ের সময় তখন কৃষকের মাঠে ফসল থাকত না। অন্যদিকে দেশীয় গণনারীতিতে অগ্রহায়ণ ছিল বছরের প্রথম মাস।এমন সমস্যার সমাধানের জন্য আকবরের অন্যতম সভাসদ ফতেহ আলী খান সিরাজী একটি সমন্বিত গণনা পদ্ধতির পঞ্জিকা তৈরী করেন। অনেক পর্যালোচনার পর ১৫৮৪ খ্রি:এর ১০ মার্চ বঙ্গাব্দের শুভ সূচনায় ‘বাংলা নববর্ষ’ প্রথম পালিত হয়। যার উদ্দেশ্য ছিল’ওশর’ ‘খারাজ’ বা ফসলী কর পরিশোধের আনন্দে ‘রাজকীয় খাতা হাল নাগাদ’ করা।তাই বাংলা নববর্ষের আরেক অনুসঙ্গ—’হাল খাতা’।পরবর্তীতে অনেক সংস্কারের পর বাংলা বর্ষপুঞ্জির আধুনিক সংস্করণ তৈরী করেন ‘জ্ঞানতাপস-বহু ভাষাবিদ’ ডঃ মুহাম্মদ শহিদুল্লাহ্। যার বৈশাখ থেকে ভাদ্র একত্রিশ ও অন্য মাসগুলো ত্রিশ দিন এবং অধিবর্ষে ফাল্গুন মাস একত্রিশ দিনে গণনা করা হয়। এজন্যই দেখা যায় যখন হিজরি ১৪৩৪ তখন বাংলা ১৪১৯ এবং ১৪ এপ্রিল রবিবার ২০১৩ খ্রিঃ পয়লা বৈশাখ ১৪২০ সাল। এটা হয়েছে চান্দ্র ও সৌর বর্ষ পরিক্রমার ব্যবধানের কারণে।বলা বাহুল্য সনাতন ধর্মের দিন-ক্ষণ ‘শকাব্দ’ গণনা রীতিতে নির্ধারিত হয়।ফলে বাংলা একাডেমির বঙ্গাব্দ পঞ্জিকার তারিখের সঙ্গে কিছুটা পার্থক্য তৈরী হতে দেখা যায়।অন্যদিকে বাংলা নববর্ষের সঙ্গে মুসলিম ঐতিহ্য , মেঠোবাঙ্গালী ও মেহনতি মুসলিম কৃষিজীবী মানুষের সুনিবিড় সম্পর্ক রয়েছে।কৃষক-কৃষাণীর উত্পাদন সম্মৃদ্ধি ও ভাগ্যের চাকা বাংলা নববর্ষের সঙ্গে গভীরভাবে জড়িত।এরই প্রকাশ পয়লা বৈশাখ ‘বাংলা নববর্ষে’র উত্সব।কিন্তু বর্তমানে বাংলা নববর্ষ তার গর্বিত অতীত ভুলে পালিত হয় শহুরে ঘরানায়,এতে নেই কৃষক ও ফসলের মাঠের ‘সোনা ছোঁয়া মাটির’ সৌরভ।বরং ব্যান্ড ও নানান ব্রান্ডিং এর কল্যাণে বসছে বানিজ্যিক পশরা। তাই তো বর্তমানে— বোশেখ মানে—ছোট নদীর হাটু জল;জমবে মেলা বটতলা হাট খলা। উদাসী মন,পাগলা হাওয়া—তাঁতের শাড়ি-পাঞ্জাবী,পাশাপাশি বাদাম খাওয়া। বোশেখ মানে— আনমনে গান গাওয়া,’না বলা কথা’ বলে ফেলা। অন্যদিকে আমাদের লোকভাবনা সম্মৃদ্ধ ‘মৈমনসিংহ গীতিকা’য় বাংলা নববর্ষের আবাহন ধ্বনিত হয়েছে—”আইল নতুন বছর লইয়া নব সাজ, কুঞ্জে ডাকে কোকিল-কেকা বনে গন্ধরাজ”।উৎস: দৈনিক ইত্তেফাক

এসো হে বৈশাখ এসো এসো… গানটি শুনতে ক্লিক করুন: 

Print Friendly