CC News

বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কীর্তিমান

 
 

Habiburসিসি ডেস্ক: চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি ও প্রথম তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি হাবিবুর রহমান। দেশবরেণ্য এই ক্ষণজন্মা ব্যক্তিত্বকে রাজধানীর বনানী বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সোমবার বাদ আছর দাফন করা হয়।

এর আগে গুলশানের আজাদ মসজিদে সাবেক এ বিচারপতির দ্বিতীয় ও শেষ জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সকাল থেকে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হয়। দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন পর্ব অব্যাহত থাকে। এসময় সাধারণ মানুষের ঢল নামে। সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গুলশানে হাবিবুর রহমানের নিজ বাসভবনে গিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

উল্লেখ্য, সাবেক প্রধান বিচারপতি হাবিবুর রহমান ৮৫ বছর বয়সে শনিবার রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। ফ্লাইট-বিলম্ব জনিত কারণে যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী মেয়ের আসতে দেরি হওয়ায় একদিন পর তার দাফনকাজ সম্পন্ন করতে দেরি হয়।

সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত:
মুহম্মদ হাবিবুর রহমান ১৯২৮ সালের ৩ ডিসেম্বর ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার জঙ্গীপুর মহকুমার দয়ারামপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা মৌলভী জহিরউদ্দিন বিশ্বাস ছিলেন আইনজীবী ও রাজনৈতিক কর্মী। তিনি প্রথমে আঞ্জুমান এবং পরে মুসলিম লীগ আন্দোলনের সাংগঠনিক পর্যায়ে জড়িত ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হাবিবুর রহমানের পিতা জাতীয় যুক্তফ্রন্টের বিভাগীয় নেতা ছিলেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকার ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বর মাসে তাঁকে গ্রেফতার করে বহরমপুর কারাগারে পাঠায়, অবশ্য কয়েকদিন পরই তিনি মুক্তি লাভ করেন। ভারত বিভাগের পর ১৯৪৮ সালে মুশির্দাবাদ ছেড়ে জহিরউদ্দিন বিশ্বাস রাজশাহীতে চলে আসেন এবং স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। হাবিবুর রহমানের মা গুল হাবিবা ছিলেন গৃহিণী।

মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস বিষয়ে ১৯৪৯ সালে বিএ সম্মান ও ১৯৫১ সালে এমএ পাশ করেন। পরবর্তীতে ১৯৫৮ সালে তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আধুনিক ইতিহাসে বিএ সম্মানসহ স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।

হাবিবুর রহমান তাঁর কর্মজীবন শুরু করেন ১৯৫২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে প্রভাষক হিসেবে। এরপর তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন। সেখানে তিনি ইতিহাসের রিডার (১৯৬২-৬৪) ও আইন বিভাগের ডিন (১৯৬১) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৪ সালে তিনি আইন ব্যবসাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন এবং ঢাকা হাইকোর্ট বারে যোগ দেন। পরে  তিনি সহকারী অ্যাডভোকেট জেনারেল (১৯৬৯), হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট (১৯৭২) প্রভৃতি দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ বার কাউন্সিলেরও (১৯৭২) সদস্য ছিলেন। ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত তিনি হাইকোর্টের বিচারপতি ছিলেন। ১৯৮৫ সালে তিনি সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে নিয়োগ লাভ করেন। তিনি ১৯৯৫ পর্যন্ত আপিল বিভাগের বিচারপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯০-৯১ মেয়াদে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করলে হাবিবুর রহমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৫ সালে প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। একই বছরে তিনি অবসরে যান।

সর্বশেষ অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি হিসেবে হাবিবুর রহমান ১৯৯৬ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব নেন। সে সময় সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা হলে তিনি তা অসামান্য দৃঢ়তার সঙ্গে রুখে দেন এবং বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্পন্ন করে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীর কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন।

লেখক, বিশ্লেষক, কবি হিসেবেও তিনি সুপরিচিত ছিলেন। রবীন্দ্র গবেষণায় তাঁর অবদান উল্লেখযোগ্য। এ বিষয়ে তাঁর খ্যতনামা গ্রন্থ ‘মাতৃভাষার স্বপক্ষে রবীন্দ্রনাথ’। এ ছাড়া তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হচ্ছে যথাশব্দ, বাংলাদেশের তারিখ, কোরআন সূত্র, বচন ও প্রবচন, বাংলাদেশ দীর্ঘজীবী হোক এবং কোরান শরীফ: সরল বঙ্গানুবাদ।

Print Friendly, PDF & Email