CC News

মন্ত্রী নূরের কাছে চাওয়া

 
 
Nur
ঢাকা: এ প্রথম দেশের সংস্কৃতি অঙ্গনের কেউ সংস্কৃতিমন্ত্রী হলেন। তাই সংস্কৃতি অঙ্গনের প্রত্যেকেই অত্যন্ত আনন্দিত। আসাদুজ্জামান নূরতো আর আমাদের দূরের কেউ নন। সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পেয়ে তার কাছে আমাদের যা চাওয়া তাই তিনি পূরণ করবেন। এমনটাই প্রত্যাশা করছেন সবাই। নূরের কাছের মানুষগুলোর প্রতিক্রিয়াও তেমনই। মন্ত্রী নূরের কাছে তাদের চাওয়া জানতে তাদের মুখোমুখি হয়েছিলো বাংলামেইল।

 জাতীয় সাংস্কৃতিক নীতিমালা তৈরী হোক: হাসান ইমাম
আমার নীতিগত কিছু বলার ব্যাপার আছে। আমার মনে হয় রাজনীতি যেটা বলতে পারেনা সেটা সংস্কৃতি পারে। সে জায়গা থেকে আমি বলবো সংস্কৃতির প্রচার এবং প্রসার চাই। যেটার ফলে মানুষে মানুষে উঁচু নিচু ভেদাভেদ, সামাজিক বৈষম্য, হিংসা, হানাহানি, কুসংস্কারগুলো দূর হয়ে যাবে। মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা যেটা করতে চেয়েছিলাম তারই অসমাপ্তকাজটুকু আমাদের করতে হবে সংস্কৃতির উপর জোর দিয়ে।।তাই নূরের কাছে আমি চাইবো সংস্কৃতির প্রচার এবং প্রসারে সর্বোচ্চ গুরুত্ব। এছাড়া, সংস্কৃতির যে মাধ্যমগুলো আছে, সগুলো বিভিন্নভাবে শিক্ষামন্ত্রনালয়, তথ্য মন্ত্রনালয়, সংস্কৃতিমন্ত্রনালয়ের অধীনে আছে। আমি চাইবো একটা সমন্বয় করে জাতীয় সাংস্কৃতিক নীতিমালা তৈরী হোক।

 সংস্কৃতি খাতে বড় বরাদ্দ চাই: মামুনুর রশিদ
আসাদুজ্জামান নূর তো আমাদের সহকর্মী। সেই মহিলা সমিতি মঞ্চ কিংবা ব্রিটিশ কাউান্সিল থেকে আমরা কাজ শুরু করেছিলোম। এখনো আমাদের বন্ধুত্ব অটুট আছে। আমি অত্যন্ত আনন্দিত সে সংস্কৃতিমন্ত্রী হয়েছে তাই। একজন সংস্কৃতিমন্ত্রীর কি করা উচিত তার কাছে মানুষের কি দাবি তা সবটুকুই আসাদুজ্জামান নূর জানেন। স্পেসিফিক করে বলতে হলে আমি বলবো, আমি চাইবো সে শিল্পকলা একাডেমীর সমস্যাগুলো নিয়ে সে কাজ করুক। এছাড়া প্রতেক্যটি সরকার সংস্কৃতিখাতে এতো কম বাজেট বরাদ্দ দেয় যে তা দিয়ে সংস্কৃতিসেবা করা সম্ভব নয়। নূর যেন বাজেট টা বাড়ানোর জন্য আপ্রান চেষ্টা করে।
সবচেয়ে বড় চাওয়া হলো সাম্প্রদায়িকমুক্ত দেশ: আলি যাকের
আমি মনে করি আমাদের মুক্তিযুদ্ধটা আসলে ছিলো সংস্কৃতির যুদ্ধ। সংস্কৃতি হচ্ছে জাতির জীবন ধারণ প্রকৃয়া। আমরা যে একটি জাতি তা প্রমান হয়েছিলো এ যুদ্ধের মাধ্যমে জয় লাভের মাধ্যমে। এ যুদ্ধে আমাদের রাষ্ট্র ও সংস্কৃতির বিজয় অর্জিত হয়েছিলো। তাই আমাদের মাথায় রাখতে হবে আমাদের জীবনের প্রধান বিষয়টিই হলো সংস্কৃতি। সংস্কৃতির মধ্যমেই আসলে একটি জাতির আহার থেকে শুরু করে সামাজিক জীবনধারণের সকল কিছু নিয়ন্ত্রিত হয়। কিন্তু দু:খের বিষয় হচ্ছে সব সরকারই এ বিষয়ের উপর জোর কম দিয়েছে। এ প্রথমবারের মতো একজন সংস্কৃতিবান মানুষকে আমাদের সংস্কৃতিমন্ত্রী হিসেবে পেলাম। আমি মনে করি সে সম্পূর্ণ যোগ্য । তারকাছে সবচেয়ে বড় চাওয়া হলো সাম্প্রদায়িকতার হাত থেকে দেশকে বের করে আনা। মুক্ত চিন্তার মানুষকে সংগঠিত করে আমাদের সংস্কৃতির মূল বার্তাগুলো মানুষের কাছে পোঁছে দেয়া।আমাদের সবার উচিত তাকে সহযোগিতা করা। তাকে বলবো, তুমি দীর্ঘায়ু হও। কল্যানের পথে থাকো।
অপসংস্কৃতির হাত থেকে দেশ বাঁচুক: দিলারা জামান
ওতো আমার ছেলের মতো। আমি ওকে অনেক স্নেহ করি। সেও আমাকে অনেক শ্রদ্ধা করে। সে আমাদের সংস্কৃতি মন্ত্রী হয়েছে তাই আমি খুব খুশি হয়েছি। আমি তার কাছে চাইবো সে যেনো আমাদের দেশ থেকে অপসংস্কৃতিটা দূর করে। অপসংস্কৃতির হাত থেকে দেশ বাঁচুক এমন কামনাই করি।
স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারলেই হবে: তারিক আনাম খান
আসাদুজ্জামান নূর এমন একজন মানুষ যে. সংস্কৃতি অঙ্গনে কি কি সমস্যা ও সংকট তার সবই তিনি জানেন। তাই তাকে কিছুই বলতে হবে বলে আমার মনে হয়না। বিষয হচ্ছে যেরকম সরকারে উনি আছেন সেরকম সরকারে থেকে কতটুকু কাজ তিনি করতে পারবেন, কতদিন করতে পারবেন সেটাই হচ্ছে আমাদের ভাবনার বিষয়। যদি তিনি নিজের ইচ্ছেমতো কাজ করে যেতে পারেন তাহলেই আমার মনে হয় আমরা অনেক কিছু পাবো এটাই আশা করি।
একেবারে গ্রামপর্যায়ে আমাদের সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করা উচিত: জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়
অন্য কেউ হলে আমি হয়তো অনেক কিছু চাইতাম।কিন্তু আসাদুজ্জামান নূরের কাছে আমার কিছুই চাওয়ার নেই। কেননা মন্ত্রী হওয়ার আগের দিন পর‌্যন্ত আমার যে চাওয়া ছিলো তারও একই চাওয়া বলে আমি জানি। এখন শুধু দূর থেকে বসে সে কি করে কতদূর করতে পারে তাই দেখা। তবে, যদি বলতেই হয়ে তবে বলতে হবে, দেশে যে সাংস্কৃতিক আকাল চলছে নূর যেন তা দূর করার ব্যাপারে মনোযোগ দেয় সবার আগে। একেবারে গ্রামপর্যায়ে আমাদের সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করা উচিত। নূর তার সমস্ত শক্তিকে কাজে লাগিয়ে তাই করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। আমি অত্যন্ত খুশি যে সে মন্ত্রী হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যোগ্য লোকটাকেই বেছে নিয়েছেন।
সৌজন্যে: বাংলামেইল
Print Friendly, PDF & Email