CC News

কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলের শিশুদের আর্তি- ‘মুই তো পইরবের চাং’

 
 

Ballo Biaশাহ্ আলম, কুড়িগ্রাম : পঞ্চম শ্রেনীর গন্ডিতেই সীমাবদ্ধ থাকছে চরাঞ্চলের শিশুদের শিক্ষাজীবন। সেটিও অনেক কষ্টে এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রে মানহীনভাবে। উচ্চ বিদ্যালয় না থাকায় এর বেশী এগুনো সম্ভব হয় না হাজার হাজার শিশুর। ফলে শিক্ষা বঞ্চিত থেকে অনাদরেই বেড়ে উঠছে মূল ভুখন্ডের বাইরে আগামী প্রজন্মের বিশাল একটি অংশ। এমনই চিত্র দেখা গেছে দেশের উত্তর জনপদের সীমান্তবর্তী অবহেলিত জেলা কুড়িগ্রামের বিভিন্ন চর ঘুরে। এ জেলার অভ্যান্তরে ৪ শতাধিক চরাঞ্চলের হাজারও শিক্ষার্থী উচ্চ বিদ্যালয়ের অভাবে পঞ্চম শ্রেনী পাশ করার পর ঝড়ে পড়ছে। মেয়েরা সংসারের কাজ করে। অল্প বয়সে বিয়ে দেয়া হয় আর ছেলেরা মাঠে গরু চড়ায়, খেতে বড়দের সঙ্গে কাজ করে। আবার  কেউ কাজ করতে জেলার বাইরেও চলে যায়। এ চিত্র কুড়িগ্রামের বেশিরভাগ চরেরই।
চরের বিষয়টি মূল ভুখন্ড থেকে পুরোপুরি আলাদা। এজন্য সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর ব্যাপক বিস্তার এবং বিশেষ প্রকল্প  নেয়া দরকার। বর্তমানে দারিদ্র ম্যাপিং এর কাজ চলছে। এর পরই চরের জন্য বিশেষ বরাদ্দেরও প্রস্তাব করা হবে। চরের শিশুদের শিক্ষা জীবন নিশ্চিত করতে বিশেষ প্রকল্প নেয়া প্রয়োজন।
সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর জেলা সদস্য ও কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এড. আহসান হাবীব নীলু’র মতে, দুভাগ্যজনকভাবে  নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলের মানুষ শুধু যে প্রকৃতির কাছেই অসহায় তা নয়, বরং তারা যে দেশ ও সমাজে বসবাস করে সেখানেও বিচ্ছিন্ন থেকে সীমাহীন বঞ্চনার শিকার হয়। বিশেষ করে দ্বীপচর গুলোতে সরকারের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তাসহ কোন সেবাই সত্যিকার অর্থে এদের দোরগোড়ায় খুব একটা পৌঁছে না।
প্রাথমিক শিক্ষায় প্রকৃত ভর্তির হার এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় লৈঙ্গিক সমতা আনয়ন বিষয়ক লক্ষ্য অর্জনে সচেষ্ট হয়েছে। কিন্তু চরাঞ্চলে চিত্র একেবারেই ভিন্ন।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা থেকে ১২ কিলোমিটার দুরে যাত্রাপুর বাজার। বাজার থেকে কিছুদুর গিয়ে নৌকা ঘাট ব্রক্ষপুত্র নদ পার হয়ে প্রায় ৭ থেকে ৮ কিলোমিটার দুরে অবস্থান চর রসুলপুরের। এ চরে চলাচলের জন্য নির্দিষ্ট কোন রাস্তা নেই। সম্প্রতি  জমির আল দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় চোখে পড়ল বেশ কয়েকটি শিশু বাড়ির উঠোনে বসে মোবাইল ফোনে ছবি দেখছে। কাছে যেতেই দৌড়ে বাড়ির ভিতরে পালিয়ে যায় দুটি শিশু। এদের মধ্যে একজন নুর আলম (১০) জানায়, সে তৃতীয় শ্রেনীতে পরে। বাড়ী থেকে ৪/৫ কিলোমিটার দুরে দুধকুমর নদী পার হয়ে যেতে হয় রসুলপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এজন্য নিয়মিত স্কুলে যায় না সে। তার সমবয়সী রাশেদও প্রায় একই কথা জানায়। হাফেজি মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রী জোসনা খাতুন জানায়, এই চর থেকে প্রায় দশ কিলোমিটার দুরে মধ্যকুমরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় আছে। নদী পার হয়ে যেতে হয়। জানিনা পঞ্চম শ্রেনী পাশ করার পর কি হবে।  রাউলিয়ার চরের কৃষক এনামুল হক জানান, দুই মেয়ে তৃতীয় শ্রেনীতে পরে। কিন্তু একটু আকাশ খারাপ হলেই বাচ্চাদের ভয়ে স্কুলে পাঠাই না। তাছাড়া বন্যার সময় দুটি নদী পার হয়ে স্কুলে যেতে হয়। ফলে পুরো সময়টাই পড়া লেখা বন্ধ থাকে। নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন আবুল হোসেন, তিনি জানান কাছাকাছি স্কুলের অভাবে মেয়ে দুটোকে পড়াতে পারিনি। ছোট বেলায়ই বিয়ে দিয়েছি। ছোট ছেলেটা দ্বিতীয় শ্রেনীতে পরে। জানিনা এর পর কি হবে। প্রায় একই কথা জানালেন কৃষক সেকেন্দার আলী। বড় মেয়ে ফরিদা পঞ্চম শ্রেনী পাশ করার পর বিয়ে দিয়েছে, বাকী দুই মেয়ে রওশনআরা ও রেশমারও একই অবস্থা। এছাড়া ঝুনকার চরের মেধাবী ছাত্রী  হাফিজা খাতুন জানায়, মুই তো পইরবের চাং। কিন্তুক চরত হাই স্কুল নাই (আমি পড়তে চাই কিন্তু চরে উচ্চ বিদ্যালয় নাই)। কেমন করি পড়িম। খেয়ার আলগার চর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেনী পাশ করা মেধাবী এ শির্ক্ষাথীর আর হাইকস্কুল পড়া হয়নি। তার দিন কাটে মায়ের সাথে সংসারের কাজ করে। দেবাড়ী খোলার চরের পঞ্চম শ্রেনী পাশ করা আরিফা খাতুনের পিতা আজিজুল হক পেশায় জেলে। আরিফার বাড়ীতে গিয়ে কথা বলতে চাইলে লজ্জায় মাথা নিচু করে। লেখাপড়া বন্ধ করলে কেন জানতে চাইলে বলে কোথায় পড়ব স্কুল নাই। বাড়ীতে মায়ের সাথে কাজ করি। প্রতিবেশী হালেমা বেগম দুঃখ করে বলেন, মেয়েটার মাথা খুব ভাল। ওয়ান থেকে ৫ শ্রেনী পর্যন্ত  ক্লাসে ফাষ্ট হয়েছে। গরীব মানুষ পড়াতে পারে না। কাছাকাছি কোন চরে স্কুল নাই। এখন বিয়ে দিবার জন্য ছেলে খোঁজা হচ্ছে। শুধু হাফিজাই নয় এরকম অবস্থা চরের অনেকেরই।
সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন সুত্র জানায়, কুড়িগ্রাম জেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে ১৬টি নদ-নদী। এগুলোর মধ্যে প্রধানত ব্রক্ষপুত্র, ধরলা, তিস্তা, দুধকুমার, সোনাভড়ি, হলহলিয়া, জিঞ্জিরাম ও ফুলকুমার অন্যতম। এসব চরের মধ্যবত্তি স্থানে রয়েছে ৪শ’০৫টি চর। জেলা প্রথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সুত্র জানায়, চরাঞ্চলে প্রথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ২ শ’ ৩৯ টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা পায় ২৯ হাজার। মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৬৬ হাজার।  কিন্তু উচ্চ বিদ্যালয় রয়েছে মাত্র ৪টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১ হাজার।
চর নিয়ে কাজ করা কুড়িগ্রামের স্থানীয় এনজিও জীবিকার পরিচালক মানিক চৌধুরী জানান, চরে অবকাঠামো স্থায়ী হয় না। একারনে স্কুলের জন্য সরকারীভাবে অস্থায়ী অবকাঠামোর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। তাছাড়া চরের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সিএলপি প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যাপক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। চরের অন্যতম সমস্যা জমির মালিকানা। আমরা বর্তমানে বিভিন্ন চরের ৭ হাজার পরিবারকে সহযোগিতা করেছি।
কুড়িগ্রাম সদরের যাত্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গফুর জানান, চরের মানুষ  নানা সমস্যায় জর্জরিত। ব্রক্ষপুত্রের ভাঙনে যাত্রাপুর ইউনিয়নের দুই তৃতীয়াংশ নদ গর্ভে বিলিনের শিকার হয়েছে।চরাঞ্চলের মানুষরা ব্যাংক ঋণও পায় না। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পুষ্টিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে চরের শিশুরা অনেক পিছিয়ে। চরাঞ্চলের জন্য বিশেষ  বরাদ্দ দরকার।
কুড়িগ্রামের জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামসুল আলম জানান, চিলমারী উপজেলার ব্রক্ষপুত্রের চরে নয়ারহাট ইউনিয়নে দক্ষিণ খাওরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, অষ্টমীর চর ইউনিয়নে নটারকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়, নাগেশ্বরী উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নে নরায়নপুর উচ্চ বিদ্যালয়, একই উপজেলার চৌদ্দ ঘুরি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়  ৪টি ছাড়া প্রায় ৪শ’ চরে কোন মাধ্যমিক বিদ্যালয় নেই। চরাঞ্চলে মাধ্যমিক বিদ্যালয় না থাকায় গরীব ও মেধাবীদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করার কোন সুযোগ নেই।
অন্যদিকে দীর্ঘবছর ধরে চরে কাজ করার অভিজ্ঞতা বর্ননা করেন এনজিও কর্মী মোফাচ্ছেল হক। রসুলপুর চরের মাঝে দাঁড়িয়ে তিনি জানান, ভগবতিপুরে কোন হাইস্কুল নেই। তবে একটি প্রাইমারী স্কুল থাকলেও শিক্ষকরা যান না। কন্ট্রাকে চলে এ স্কুলে শিশুদের লেখাপড়া। গোয়ালপুরি চর এত দুর্গম যে এখনো ১২ থেকে ১৫ কিলোমিটার নদী পারি দিয়ে শুধু হাটের দিন ছাড়া কেউ যাত্রাপুর বাজার আসে না। এছাড়া রলাকাটা, বড়ুয়া, মন্ডল পাড়া মুছল্লীর চরসহ আশপাশের চরেও প্রাইমারী শিক্ষার বেহাল দশা। হাইস্কুলতো চিন্তাই করা যায় না। প্রায় একই মন্তব্য করেন চরে সিএলপি কর্মসূচীতে কাজ করা এনজিও কর্মী আনোয়ার হোসেন এবং আশিষ কুমারও।
অন্যদিকে কনসার্ন বাংলাদেশের সহযোগীতায় চরের উপর বেসরকারী সংস্থা পরিচালিত এক গবেষনায় দেখা গেছে, দ্বীপচরবাসীদের শতকরা ৭৭ ভাগই হতদরিদ্র এবং প্রায় ৮৬ ভাগ দারিদ্র্য সীমার নীচে বসবাস করে যা মূল ভু-খন্ডের দারিদ্র হারের তুলনায় অনেক বেশী, প্রায় তিনগুন। খাদ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন দিক থেকে চরের মানুষ জেলা-উপজেল শহরের ভূ-খন্ডের মানুষের চেয়ে অনেক পিছিয়ে। চরে স্বাক্ষরতার হার (৭ বছরোর্ধ্ধ) মাত্র ২৫ শতাংশ, যেখানে জাতীয় পর্যায়ে এ হার ৪৫ শতাংশ। মেয়েদের স্বাক্ষরতার হার আরো কম, মাত্র ২০ শতাংশ।

Print Friendly, PDF & Email