CC News

দশম জাতীয় সংসদের কাছে যা কাম্য

 
 
Patok dilrubaসিসি ডেস্কঃ বহু বাধা- বিপত্তি, আলোচনা-সমালোচনা, মুরুব্বি রাষ্ট্রের আদেশ নির্দেশ উপেক্ষা করে অবশেষে শেখ হাসিনার অধীনেই হয়ে গেল দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। যথারীতি সংবিধান অনুযায়ী যা যা হবার তাই-ই হয়েছে।

নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের যাত্রা শুভ হোক এই কামনা করি। সৌভাগ্যমান মন্ত্রীদের শুভ  কর্মের সফলতা কামনা করছি।
নির্বাচন কমিশন কে, সাধুবাদ জানাতেই হয় – নির্বাচনটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য। বাংলাদেশের যে সকল বাহিনী কমিশনকে সহযোগিতা করেছে তারাও সাধুবাদ পেতে হকদার। আর জীবনকে বাজী রেখে যে সব সরকারী কর্মকর্তা, কর্মচারী পোলিং এজেন্ট ও প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেছেন, তাঁরা ? তাঁরা নমস্য বটেই। সাংবাদিকেরা যথেষ্ট সাহসিকতার সাথে এবং নির্ভিকভাবে সংবাদ সংগ্রহ ও পরিবেশন করেছেন। আর নির্বাচন কমিশন বা  সরকার যে গণ মাধ্যম এর কন্ঠনালি চেপে ধরেন নি সেটা প্রতিটি টেলিভিশন চ্যানেল ও পত্র পত্রিকা পড়েই বোঝা গিয়েছে। সুতরাং এই নির্বাচন নিয়ে যে কোন বিতর্কই অনাকাঙ্খিত।
আফসোস কেবল একটিই – জামাতের পাল্লায় পড়ে  বি এন পি নির্বাচনে এলো না। তবে আমি বিশ্বাস করি,  বি এন পি নির্বাচনে এলে ভালো করতো। জিতলেও ভালো করতো। হারলেও ভালো করতো। এখানে একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দল হিসাবে প্রজ্ঞার সাথে বি এন পি’র একগুয়েমি ত্যাগ করাই শ্রেয় ছিল। সংখ্যা গরিষ্টতা পেলে সরকার গঠন করতো বি এন পি আর হেরে গেলেও অন্তত বলতে পারতো , ”নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু হয় নি। ” এখন তো আর কিছুই বলার মুখ খাকলো না। সারাজীবন ভি ভি আই পি ট্রিটমেন্ট পাওয়া ম্যাডাম এখন আনসার বাহিনীর  দ্বারা নিরাপত্তা চান ! হায়রে নিয়তি !
যাই হোক, শেষ অব্দি সরকার গঠন হচ্ছে ( সেটা যত দিন/ মাস / বছরের জন্যই হোক না কেন ) এটাই বাস্তব সত্য। তারচেয়েও বড় সত্য হলো, মানুষ জামাতকে অতি ঘৃনাভরে বর্জন করেছে। তাই বি এন পি’র ডাকা হরতাল, অবরোধ ধীরে ধীরে পান্ডুর- ধূসর হয়েছে। এই হাতিয়ার এখন আর তেমন কার্যকরী ফল বহন করে আনছে না।
আসলে সাধারন মানুষ শান্তি চায়। নিষ্ঠুরতা- বর্বরতা- পৈশাচিকতা- অমানবিকতা জামাতের কাম্য হতে পারে মানুষ এর নয়।  তাই কে কতো ভোট পেয়ে এলো বা কে নির্বাচন ছাড়াই বিজয়ী হয়ে এলো এটা মানুষের মাথাব্যাথা নয়। মানুষ দেশের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য একটি গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা চায়। মানুষ একটু ডাল ভাত খেয়ে বেঁচে থাকেতে চায়।
সুতরাং আগামী সরকারের কাছে একটি বড় মাপের চ্যালেঞ্জ হলো, দেশের মানুষের এই কামনা – বাসনা পূর্ণ করা।
কিন্তু কিভাবে ? সেই ”উপায় টি” এই সরকারকেই খুঁেজ বের করতে হবে। কারন দেশের মানুষ তাঁদেরকেই ”বাংলাদেশের হাল” তুলে দিয়েছে। নির্বাচনী ইশতেহারে যেই রাজনৈতিক দলই যেই সকল ওয়াদা দেশ ও জাতির কাছে তুলে ধরুক না কেন আমি মনে করি এই সরকারের জন্য বর্তমানে এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো , ”সন্ত্রাস দমন।” যে কোন উপয়েই হোক না কেন , ”মানবাধিকার রক্ষার ধোয়া”  তুলে যে যাই বলুক না কেন, দীর্ঘদিন যাবৎ বাংলাদেশে প্রকাশ্যে ও অপ্রকাশ্যে যে বা যারা সন্ত্রাস, তান্ডব ও হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে তাদেরকে খুঁেজ বের করে দ্রুত বিচার এর ব্যবস্থা করা এই সরকারের প্রথম ও প্রধান কাজ। প্রয়োজন হলে ”বিশেষ ট্রাইব্যুনাল” গঠন করে এই সব চেনা – অনেচা- খন্ডকালীন বা স্থায়ী সন্ত্রাসী সে/ তারা যেই দলেরই হোক না তাদেরকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা এবং তাদের ন্যায্য প্রাপ্য সাজা দেয়া এখন সরকারের দায়িত্ব।
এখানে ”মানবাধিকার রক্ষার” কোন বিষয় নাই বা সেই হিসাবের কোনই সুযোগ নাই। কারন যারা সাধারন নিরীহ মানুষদেরকে নির্বিচারে পুড়িয়ে মেরেছে, যারা নির্বিচারে গাছ কেটেছে, যারা অবোধ পশুকেও পুুড়িয়ে মারতে দ্বিধা করে নি তারা আর যাই হোক মানুষ নয়। স্বাধীনতার ৪২ বছর পরও যখন হিন্দু সম্প্রদায় বাংলাদেশে নিশ্চিন্তে বাস করতে পারছে না- তাদেরকে ভিটে ছাড়া করছে কেবল ভোট দেবার অপরাধে – তাদের উপর পাশবিক আচরন করছে তারা মুসলিম নয় বলে -সেই ক্ষেত্রে সরকারতো বটেই বাংলাদেশের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়েছে এই সব সন্ত্রাসীদের  কাছে।
সুতরাং নূতন সরকারের মন্ত্রীরা শপথ নিবেন এই বলে যে,  সর্বাগ্রে এই সব নরপশুদের বিচারের ব্যবস্থা তারা করবেন।  তারপর অন্য বিষয়। যতদিন এই নরাধমগুলি বাংলাদেশে ঘাপটি মেরে বসে,  থেকে থেকে গ্রামকে গ্রাম জ্বালাবে , মানুষ হত্যা করবে, অবোধ পশুকে পুড়িয়ে মারবে, নিরীহ সাধারন মানুষের শরীর ঝলসে দিবে পেট্রোল বোমা দিয়ে,  গাছ কেটে অগ্নি সংযোগ করে সাধারন মানুষ এর জীবন বিপন্ন করে তুলবে সেই ক্ষেত্রে কোন উন্নয়নই সম্ভব হবে না। কারন সবার উপরে জীবন – তা সে গাছেরই হোক বা প্রাণীরই হোক আর মানুষের তো বটেই ।
আশাকরি এই সব বিষয়ে টেলিভিশনের পর্দায় যে যত বড় বড় বুলি আওড়াক দশম জাতীয় সংসদের মাননীয় সদস্যরা এবং তাঁদের মন্ত্রী পরিষদ হরতাল- অবরোধের নামে ”প্রলয় তান্ডবকারীদেরকে” চিহ্নিত করে সর্বাগ্রে বিচার এর ব্যবস্থা করবেন। আর এই বিষয়ে সবচেয়ে জরুরী ”জাতীয়  ঐকমত্য”। প্রয়োজনে প্রাক্তন বিরোধী দলীয় নেত্রী  ও বি এন পি’র চেয়ারপার্সন কে আবারো আহবান জানাবেন বর্তমান সংসদ। আর আশাকরি ভবিষ্যতে যদি তিনি নিজের দলকে বাঁচিয়ে রাখতে চান তাহলে জামাতের মতো নিষিদ্ধ সংগঠনকে ত্যাগ করে জনতার কাতারে অকুতোভয়ে দাঁড়াবেন।
একই ভাবে নূতন সংসদ কেবল নিজের দিকে না তাকিয়ে দেশ ও জনগনের দিকে তাকাবে, এই প্রত্যাশা ”আম -জনতার” । তারজন্যে কেবল প্রতিহিংসা পরায়নতা নয় ন্যায়পরায়নতা জরুরী। প্রয়োজন কঠোর হস্তে প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করা।
নূতন মন্ত্রী সভার যাত্রা শুভ হোক। কর্ম সফল হোক। বাঙ্গালীর মন প্রান এক হোক। বাংলাদেশকে রক্ষায় সবাই একযোগে কাজ করুক দেশ ও জনগনের জান মালের নিরাপত্তার স্বার্থে। সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ সমূলে উৎপাটিত হোক। বাংলাদেশ এগিয়ে যাক এই শুভ কামনা জনগণের।

লেখক: দিলরুবা সরমিন,আইনজীবী ও মানবাধিকারকর্মী
Print Friendly, PDF & Email