CC News

দুই কলেজছাত্রীর নগ্ন ছবি নিয়ে তোলপাড়, আটক-৩

 
 

Dorsonসিসি ডেস্ক: প্রেমের ফাঁদে ফেলে নগ্ন ছবি ধারণ করে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ‘কথিত’ প্রেমিক আবুল ফয়সাল(২৫)কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায়। এদিকে, সোমবার সকালে ফয়সালকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

দাউদকান্দি মডেল থানা পুলিশ ও ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, মোবাইল ফোনে টাকা ফ্লেক্সিলোড করতে এসে উপজেলার তুজারভাঙ্গা গ্রামের ফ্লেক্সিলোডের দোকানদার আবুল ফয়সালের সঙ্গে কলেজছাত্রীর পরিচয় হয়। কয়েকদিন আগে ফয়সাল তাঁর মায়ের অসুস্থার কথা বলে তাঁকে (কলেজছাত্রী) বাড়ি নিয়ে যায়। সে সময় বাড়িতে লুকিয়ে রাখা ক্যামেরায় তার নগ্ন ছবি ধারণ করা হয়। এরপর থেকে ফয়সাল তার সঙ্গে মেলামেশা না করতে পারলে ওই কলেজছাত্রীর নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবার হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে নগ্ন ছবি ফিরিয়ে দেওয়ার শর্ত দিয়ে তাকে মেলামেশার জন্য প্রথমে রাজি করে। কিন্তু তারপরও ছবিটি ফেরত না দেওয়ায় সে চলে আসে।  রোববার তাকে আবারও একই কৌশলে তার সঙ্গে মেলামেশার করার চেষ্টা করে ধর্ষক। এতে কলেজছাত্রীটি রাজি না হওয়ায় নগ্ন ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়। পরে কলেজছাত্রী তার মাকে বিষয়টি জানায়। বিষয়টি জানানোর পর তার বাবা ওইদিন রাতেই দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে।

দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি তদন্ত মো. নাছির উদ্দিন মৃধা বলেন, ছাত্রীর বাবার অভিযোগের প্রেক্ষিতে আবুল ফয়সালকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর কাছে থাকা মেয়েটির নগ্ন ছবি ধারণ করা ভিডিওটি উদ্ধার করা হয়েছে। ওসি আরও জানান, কলেজছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ করা হয়েছে। আবারও ছাত্রীটি রাজি না হওয়া তা ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার কথা আমাদের নিকট স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়েরের পর সোমবার ফয়সালকে কুমিল্লা জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অপরদিকে, বখাটেদের খপ্পরে পড়ে সামাজিক ও মানসিক নিপীড়নের শিকার হয়েছে সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার এক কলেজছাত্রী। তার নগ্ন ভিডিও ক্লিপ মোবাইলের মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সিলেটের শাহপরান থানায় এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী পাঁচ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৩-৪ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। পরে বুধবার সন্ধ্যায় কদমতলী পয়েন্ট থেকে কম্পিউটারসহ সুলতান নামের এক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া ওই রাতেই মামলার ১ নম্বর আসামি দক্ষিণ সুরমার পালপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার মেয়ে ঊর্মিকে গ্রেফতারকরা হয়েছে। পরদিন কুশিঘাট এলাকা থেকে মিজান আহমদ নামে অপর এক যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।
ঊর্মির দেয়া তথ্যমতে, পুলিশ দক্ষিণ সুরমা ও সিলেট নগরীর বিভিন্ন স্থানে অন্যান্য আসামিকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রেখেছে। আসামিরা হচ্ছে— দক্ষিণ সুরমা উপজেলার জৈনপুর গ্রামের শানুর মেম্বারের ছেলে লিমন, শিববাড়ী এলাকার কয়েছ, পালপুর কুশিঘাট গ্রামের রাব্বি, মাছিমপুরের মৃত চান মিয়ার ছেলে শাহীসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জন। বাদী কলেজছাত্রী তার লিখিত এজাহারে উল্লেখ করেছেন, আসামি ঊর্মির সঙ্গে তিনি চলতি বছর ইছরাব আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। বর্তমানে ছাত্রীটি নগরীর একটি কলেজে অধ্যয়নরত। ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকার সুবাদে গত ১১ সেপ্টেম্বর ঊর্মি একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে তাকে নিয়ে যায় শাহজালাল উপশহরের একটি বাসায়। সেখানে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কোনো আয়োজনই ছিল না। বাসায় ঢোকার পরপরই আসামিরা প্রাণে মারার ভয় দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে। ঊর্মির সহায়তায় আসামিরা ছাত্রীর নগ্ন ভিডিও চিত্র ধারণ করে মোবাইলের ক্যামেরায়। ২ নম্বর আসামি লিমন ছাত্রীর ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। পরে আসামিরা ছাত্রীকে ওই ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেয়। কাউকে ঘটনাটি বললে ভিডিও ক্লিপটি ইন্টারনেটে, ফেসবুকে ও মোবাইলে প্রকাশ করার হুমকি দেয়। পরে আসামিরা এসবের ভয় দেখিয়ে ছাত্রীর বাবার কাছে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। ঘটনা জানাজানি হলে ছাত্রীটির মানসম্মান ক্ষুণ্ন হওয়ার উপক্রম হয় এবং সে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। পরে নিরুপায় হয়ে ছাত্রীটি থানায় মামলা দায়ের করতে বাধ্য হয়।

এ ব্যাপারে শাহপরান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, আসামিদের গ্রেফতারের জন্য দক্ষিণ সুরমা, গোলাপগঞ্জসহ তিনটি উপজেলায় এ পর্যন্ত পুলিশ অভিযান চালিয়েছে। এছাড়া ভিডিও ক্লিপটি যেসব মোবাইলের দোকানে রয়েছে, সেসব ব্যবসায়ীকেও আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান তিনি। সূত্র: সরেজমিন

Print Friendly, PDF & Email