CC News

যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে ঈদে মিলাদুন্নবী

 
 

Eidসিসি নিউজ : বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী। বিশ্বের মহামানব, নবী কুলের শিরোমনি, ইসলাম ধর্মের প্রবক্তা ও সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) জন্মদিন। একই সঙ্গে তাঁর মৃত্যুদিনও আজ। দিনটি মুসলিম উম্মাহর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন। দিনটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের মসজিদ, মাদ্রাসাগুলোতে মিলাদ মাহফিল, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির আজকর করছে ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা। বিভিন্নস্থানে আনন্দ মিছিল করেছে বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীরা। এ সময় তাঁর হযরত মুহাম্মদকে (সাঃ) শুভেচ্ছা ও স্বাগতম জানানোর পাশাপাশি তাঁর শান্তির বাণীর স্লোগান দিয়েছে।

জন্মের পূর্বে তাঁর পিতা আব্দুল্লাহ ইন্তেকাল করেন আর জন্মের মাত্র ৬ বছর পরে ইন্তেকাল করেন মা আমিনা। এরপর এতিম শিশু হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) চরম কষ্ট-ক্লেশ সহ্য করে দাদা আব্দুল মুত্তালিবের গৃহে লালিত-পালিত হন। তবে তাঁর এ আশ্রয়ও দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। দাদা আব্দুল মুত্তালিবের মৃত্যুর পর হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর চাচা আবু তালিবের তত্ত্বাবধানে বেড়ে ওঠেন।

এ সময় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) পারিশ্রমিকের বিনিময়ে অন্যের বকরি-ভেড়া চড়াতেন। কখনও মিথ্যা বলতেন না। এ অবস্থায় মক্কাবাসী তাঁর চারিত্রিক দৃঢ়তা ও বিভিন্ন গুণাবলির সমাবেশ দেখতে পান।

ততকালীন সময়ে মক্কা নগরী জাহিলিয়্যাতের অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল। এমন কোন জঘন্য অপরাধ ছিল না যা মক্কাবাসীরা করত না। মাটির মুর্তি তৈরি করে তাকে স্রষ্টা বলতো ও বিভিন্ন মানব সৃষ্ট দেবদেবীর পুজা করত।

এমনি এক প্রতিকূল পরিবেশে আল্লাহ তাআলা হযরত মুহাম্মদকে (সাঃ) পৃথিবীতে প্রেরণ করলেন। এ সময় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর উন্নত চরিত্র ও সদা সত্য কথার দ্বারা তিনি আল-আমিন তথা বিশ্বাসী উপাধিতে ভূষিত হন। কেউ তাঁর কাছে কোনো আমানত রাখলে তিনি কখনও তাঁর খিয়ানত করতেন না।

কাজেই হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর শৈশবকাল, বাল্যকাল এবং তারুণ্যে অনেকগুলি অলৌকিক ঘটনা মানুষের কাছে পরিলক্ষিত হয়। যুবক বয়সে তিনি আরবের শীর্ষ ব্যবসায়ী হযরত খাদিজা (রাঃ)-এর ব্যবসা-বানিজ্য দেখাশুনা করেন। এ সময় তাঁর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যে এবং ব্যবসায়িক কৃতকর্মে খুশি হয়ে হযরত খাদিজা (রাঃ) তাঁর প্রতি আকৃষ্ট হন এবং বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হন। এ সময় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর বয়স ছিল ২৫ বছর আর হযরত খাদিজা (রাঃ)-এর বয়স ছিল ৪০ বছর।

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর বয়স যখন ৪০ বছরের কাছাকাছি তখন নবুওয়াত প্রাপ্তি হন। এ সময় বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডের অধিবাসীদের কর্মকাণ্ড দেখে তিনি বিচলিত হয়ে পড়েন। তাদের মুক্তির পথ খুঁজতে থাকেন। প্রায়ই তিনি হেরা পর্বতের গুহায় ধ্যান করতে আরম্ভ করেন।

অবশেষে আসে সেই কাঙ্খিত দিন, যেদিন আল্লাহ তা’আলা বিশ্ববাসীর নাজাতের ওসীলা হিসেবে অবতীর্ণ করতে শুরু করেন মহাগ্রন্থ আল-কুরআন। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর বয়স যখন ঠিক চল্লিশ বছর তখন আল্লাহর পক্ষ থেকে তিনি রেসালাতের দায়িত্ব অর্জন করেন। ঐশী বাহক হযরত জিব্রাঈল (আঃ)-এর মাধ্যমে আল্লাহর পক্ষ থেকে আসে প্রথম ঐশ্বরিক বাণী-“ পড় তোমার প্রভূর নামে, যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন”(সূরা আলাক্বঃ ০১)।

রেসালাত ও নবুওয়াতের দায়িত্ব পাওয়ার পর হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) মানুষকে ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় নেওয়র জন্য আহ্বান করতে শুরু করেন। প্রথমদিকে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর দাওয়াতে তার একান্ত কিছু আত্মীয় এবং অনুরক্তরা সাড়া দিলেও অনেকেই আবার বিগড়ে যান। পৌত্তলিক আচার-আচরণ ছেড়ে তারা কোনো অবস্থাতেই ইসলামে প্রবেশ করবে না বলে শপথ নেন। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)এর দাওয়াতে সাড়া না দিয়ে উল্টা তাঁর পথ থেকে সরে আসার প্রস্তাব দেয়।

হযরত মুহাম্মদ (সঃ) তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করার পর তাঁর উপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। এমনকি তাঁকে হত্যা করারও পরিকল্পনা করা হয়। কিন্তু মহান রাব্বুল আলামিন কাফেরদের ষড়যন্ত্রের কথা তাঁর রাসূলকে (সাঃ) অবহিত করেন। তাঁকে মক্কা ছেড়ে মদিনায় হিজরত করার আদেশ দেন।

নবুওয়াত প্রাপ্তির মাত্র ১২ বছর পর ৬২২ খ্রিষ্টাব্দের ২রা জুলাই হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর অনুচরবৃন্দসহ মক্কা ছেড়ে মদিনা অভিমূখে যাত্রা করেন। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর জন্ম ভূমি মক্কার লোকেরা তাঁকে সঠিকভাবে মূল্যায়ণ করতে না পারলেও মদিনাবাসী রত্নের মূল্য বুঝতে বোকামী করেননি। তাঁরা হযরত মুহাম্মদকে (সাঃ) আশ্রয় দেয় এবং হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান দেয়।

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) মদিনার বিধর্মীদের সাথে লিখিত ৪৭টি সনদ সম্বলিত একটি চুক্তিপত্র করেন। ইসলামের ইতিহাসে এটা মদিনা সনদ নামে পরিচিত। বিশ্বের বুকে এই মদিনা সনদই সর্বপ্রথম লিখিত সংবিধান। ইসলামী আইন-কানুন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মদিনা সনদের আলোকে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) পবিত্র মদিনা শরীফকে একটি কল্যান রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন এবং তিনি এ রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর থেকে ধীরে ধীরে ইসলাম ধর্মের বিস্তৃতি বাড়তে থাকে। দলে দলে মানুষেরা শান্তির স্পর্শ পেতে ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে প্রবেশ করে।

এদিকে, ধীরে ধীরে মুসলমানদের শক্তি বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। মুসলামনদের শক্তিতে আল্লাহর রহমত যোগ হয়ে মুসলামরা পৃথিবীর বুকে ঈমানী শক্তির খনি হিসেবে পরিচিতি পায়। কিন্তু তখনও ইসলাম বিদ্বেষী শক্তিরাও চুপ করে বসে থাকে না। তারা ইসলামের তথা মুসলমানদের ক্ষতির জন্য উঠে পড়ে লাগে। আর তখনই সত্য এবং মিথ্যার মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। একপক্ষে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কিংবা হযরত আবু বকর (রাঃ) অথবা ইসলামের পক্ষ থেকে অন্য কেউ নেতৃত্ব দিচ্ছেন অপর পক্ষে ইসলামের চির-দুশমন আবু জেহেল, আব্দুল্লাহ বিন উবাই, আবু লাহাব , ওৎবা কিংবা শায়েবা বাতিল প্রতিষ্ঠার নেতৃত্ব দিচ্ছে। অনেক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পরে ইসলামের বিজয় নিশ্চিত হয়।

ইসলামের প্রাথমিক যুগ কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এবং তাঁর অনুচরদের একান্ত প্রচেষ্টায় ইসলাম ক্ষুদ্র থেকে প্রসারতম হতে থাকে। অবশেষে আসে সেই শুভ দিন। ৬৩০ খ্রিষ্টাব্দ মোতাবেক ৮ হিজরীতে আল্লাহ তা’আলার নির্দেশে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর দশ সহস্রাধিক সৈন্য নিয়ে মক্কা বিজয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হন এবং মক্কা বিজয় করেন। নবুওয়্যাত প্রাপ্তির পর যে সকল মানুষ হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)এর উপর অকথ্য নির্যাতন চালিয়েছিল তাঁদেরকেও তিনি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন।

আবারও মানুষদেরকে ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহন করার আহ্বান জানান। মক্কা বিজয়ের পরে হযরত মুহাম্মদ (সঃ) আবারও মদিনায় ফিরে যান। ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে হজ্জ পালনের উদ্দেশ্যে পুনরায় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) মদিনায় গমন করেন। মদিনায় হজ্জ কালীন সফরের মধ্যেই আল্লাহ তা’আলা তাঁর প্রতি নাযিল করেন- ‘‘আজ আমি তোমাদের দ্বীনকে তোমাদের জন্য পরিপূর্ণ করে দিলাম এবং আমার নেয়ামতকে তোমাদের উপর পরিপূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্য ধর্ম হিসেবে মনোনীত করে দিলাম”। এ আয়াত অবতীর্ন হওয়ার পর সাহাবীরা অঝোর ধারায় কাঁদতে শুরু করলেন। তখন রাসূল (সাঃ) তাঁদেরকে জিজ্ঞাসা করলেন, তোমরা কাঁদ কেন? সাহাবীরা বললেন আমরা বুঝতে পারছি, অচিরেই আল্লাহ আপনাকে তাঁর মেহমান করে নিবেন।

কেননা কোন জিনিস পূর্ণতা পাওয়ার পর সেটা কমতে শুরু করে। যেহেতু ইসলাম পূর্ণতা পেয়েছে তাই আপনাকে আর আমাদের মধ্যে রাখা হবে না। হজ্জ্ পালন শেষে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর সঙ্গী সাথীদের নিয়ে মদিনায় চলে আসেন।

অবশেষে আসে দুঃখের দিন, শোকের দিন। শিরঃ পীড়ায় আক্রান্ত হয়ে ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দ তথা ১০ই হিজরী সনের ১২ই রবিউল আউয়াল মাসের সোমবার পৃথিবীর মানুষকে দুঃখের সায়রে ভাসিয়ে ইহলোক ত্যাগ করেন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ এই মহা মানব। তাঁর প্রস্থানে পাগল প্রায় হয়ে যান তাঁর অনুসারীরা। শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর ইন্তেকালের সাথে সাথে নবুওয়াতের দরজা চিরকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। আজ এ বিশেষ দিনে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে প্রার্থনা জানাই, যাতে কিয়ামতের ভয়াবহ পরিস্থিতিতে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর সুপারিশ আমাদের নসীব হয়।

Print Friendly, PDF & Email