CC News

জলঢাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হত্যার চেষ্টা

 
 

nil-1
জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পথ গতি রোধ করে মটর সাইকেল, মোবাইল ও নগদ অর্থসহ সর্বত্রই কেড়ে নিয়ে বেধড়ক মারপিট করে মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে মোখলেছার রহমান নামের এক গৃহকর্তাকে। এ অবস্থায় স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ এলাকার লোকজন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা অব্যাহত থাকলেও তারা কুলে উঠতে পারেনি। পরে থানাপুলিশের সহায়তায় তালাবদ্ধ ঘর থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ এবং তাৎক্ষণিক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি উপজেলার কিসামত বটতলী তমিজ মাস্টারের মাজারের পাশে। এ ঘটনায় আহত মোখলেছার রহমানের স্ত্রী রহিমা বেগম বাদী হয়ে গত ১৩ জানুয়ারী ১০ জনকে আসামী করে জলঢাকা থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং ১৬। থানা ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বামনা-বামনী এলাকার মৃত আফছার আলীর পুত্র মোখলেছার রহমান ও একই এলাকার মৃত ওছমান গণির পুত্র সৈয়দ আলীর পরিবারের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত ঝগড়া ঝাটি ও মামলা হয়ে আসছে। এরই সুত্র ধরে গত ১১ জানুয়ারী বিকাল ৫.৩০টায় এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন জলঢাকা থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুল করিম। সূত্র জানায়, ঘটনার দিন মোখলেছার রহমান মটরসাইকেল যোগে জলঢাকা শহর হইতে বাড়ী যাওয়ার উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে মাজার সংলগ্ন এলাকায় পৌছলে সৈয়দ আলী গং ১০/১২ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল নিয়ে মোখলেছার রহমানের গাড়ী থেকে তাকে নামিয়ে সর্বত্র কেড়ে নিয়ে এলোপাথারী মার ডাং করতে থাকে। একপর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারালে দুস্কৃতিকারীরা তাকে ঘরে তালাবদ্ধ করে রেখে পাশের একটি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। তাৎক্ষণিক তাদের কৃতকার্য দেখে কেউ সামনে এগুতে পারেনি। এ অবস্থায় আহত মোখলেছার রহমানের স্ত্রী রহিমা বেগম বলেন, স্বামী আহত হয়ে হাসপাতালে। আমি এক বাড়ীতে থাকি। সার্বক্ষণ ভয়ভীতি নিয়ে থাকতে হয়। আমাদের আইনের আশ্রয় ছাড়া আর কোন করার নেই। আসামীরা দুস্কৃতিকারী হওয়ায় বাইরে বের হতেও পারছি না। এ বিষয়ে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জলঢাকা থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান মনির বলেন, মামলা হয়েছে। আসামীরা বাইরে থাকলেও যথাসময়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email