CC News

বদরগঞ্জে ৬ যুবকের সর্বস্ব লুট

 
 

Badarganj photo sবদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: বাংলাহিলী স্থলবন্দর বেড়ানোর লোভ দেখিয়ে রংপুরের বদরগঞ্জের ৬ যুবকের মটর-সাইকেলসহ অর্ধলক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এক প্রতারক। ওই প্রতারকের নাম মমিনুল ইসলাম(৩৬)। সে দিনাজপুর সদর উপজেলার গহনগাছী গ্রামের আব্দুর গনির ছেলে বলে জানা গেছে। মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি প্রকল্পের আনসার বাহিনীতে কাজ করেন মমিনুল ইসলাম। গত সোমবার রাত সাড়ে ১০টায় দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলায় ওই প্রতারণার ঘটনাটি ঘটে। পরে ওই প্রতারককে আটক করে থানা পুলিশে দেওয়া হয়।
ভুক্তভোগি সুত্রে জানা গেছে, পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি প্রকল্পের আনসার বাহিনীতে চাকুরী সুত্রে মমিনুলের সঙ্গে পরিচয় হয় আকতারুজ্জামান, ময়হিনুল ইসলাম, ইউনুস আলী, আশরাফুল ইসলাম ও শাহিন আলমের। তাদের বাড়ি বদরগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের ওসমানপুর ও কালীগঞ্জ গ্রামে। ঘটনার দিন গত সোমবার দুপুরে প্রতারক মমিনুল কৌশলে ওই ৫ যুবককে তার মামার বাড়ি বাংলাহিলীতে বেড়ানোর কথা বলে সেখানে নিয়ে যান। সেখানে ওই যুবকদের নিয়ে মমিনুল বাংলাহিলী বাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরাফেরা করে ওইদিন বিকেল ৫টায় শহরের তিতুমীর সিনেমা হলের সামনে এক হোটেলে খাওয়া-দাওয়া শেষে তাদেরকে নিয়ে খোসগল্প করে সময় ক্ষেপন করছিল। পূর্ব হতে প্রতারক মমিনুলের ঠিক করা ৬/৭জন সন্ত্রাসী ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে হোটেলে ঢুকে ওই যুবকদের ব্যবহৃত মটরসাইকেলের কাগজ-পত্র দেখতে চান। এসময় তারা মটরসইকেলের কাগজ-পত্র দেখাতে না পারলে, প্রতারকরা ডিবি পুলিশের অফিসে যাওয়ার কথা বলে তাদেরকে শহরের একটি পরিত্যাক্ত ঘরে নিয়ে যায়।
এসময় প্রতারক মমিনুল ও তাঁর মামা লোকমান হোসেনের যোগসাজসে সন্ত্রাসীরা ওই যুবকদের নিকট থেকে ২২হাজার টাকাসহ ৫টি মোবাইল ফোন হাতিয়ে নেয়। এতেও তারা ক্ষান্ত হয়নি,পরে ওই প্রতারকেরা জায়গা বদল করে শহর থেকে দুই কিলো মিটার দুরে এক ইটভাটায় ওই যুবকদের নিয়ে গিয়ে তাদের হাত,পা ও মুখ বেধে মারপিটসহ আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে সন্ত্রাসীরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তাদের আত্বীয় স্বজনের কাছ থেকে ওইদিন রাতে বিকাশের মাধ্যমে আরো ২৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে ওই যুবকদের ছেড়ে দেন। পরদিন ভুক্তভোগী যুবকরা প্রতারক মমিনুল ইসলামকে তাঁর কর্মস্থল থেকে আটক করে বদরগঞ্জে নিয়ে আসেন। এ খবর পেয়ে ওইদিন সন্ধ্যায় খনির কর্মকর্তারা টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে ফেরত নিয়ে যান। মমিনুল হক বলেন, মামা লোকমান হোসেনের ফাঁদে পড়ে আমি এ কাজ করেছি। এটা আমার ভুল হয়েছে।
পার্বতীপুর মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পের ডিজিএম (প্রশাসন) মনোয়ার হোসেন শাহ্ বলেন, অভিযুক্ত মমিনুলের প্রতারনা করার বিষয়টি সত্য প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email