CC News

রৌমারী হাসপাতালে মেধাবী মোছলেমা

 
 

Kurigram
আব্দুল্লাহ খান ফয়েজী, (রৌমারী) কুড়িগ্রাম: অমানবিক নির্যাতনে গোটা শরীরে পঁচন ধরেছে ১০ বছরের শিশু মোছলেমার। সে বর্তমানে রৌমারী হাসপাতালের ২ নম্বর বেডে শুয়ে যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে। চিকিৎসকরা বলছেন, মোছলেমার শরীরে যে রোগ দেখা দিয়েছে তা অত্যন্ত ভয়ানক। দীর্ঘদিন ধরে তার উপর নির্যাতন চালানো হয়েছে। শরীরে কোনো  ক্ষতচিহ্ন দেখা না গেলেও দীর্ঘদিনের শারিরিক নির্যাতনে  তার অবস্থা সংকটাপন্ন।
মোছলেমা সাংবাদিকদের নিকট অভিযোগ করেছে, প্রায় প্রতিদিনই নির্যাতন করতো তাকে। মুখে গামছা দিয়ে পেটানো হতো। হাত-পা বেধে কখনও বা বুকের উপর বসে মাথায় পেটানো হতো। শরীরের গভীর ক্ষত না করে চাকুর মাথা দিয়ে খোঁচানো হতো। দিনের পর দিন সামান্য ভাত লবণ দিয়ে খেতে দেয়া হতো। হাত মুখ বেঁধে খাটের নিচে ফেলে রাখা হতো। সব মিলে নির্যাতনের ধরণ ছিল অন্যরকম।
জানা গেছে, রৌমারী উপজেলার দিগলাপাড়া গ্রামের পঙ্গু খলিলুর রহমানের ১০ বছরের মেয়ে এই মোছলেমা খাতুন। খলিলের ৩ মেয়ে ১ ছেলের মধ্যে মোছলেমা দ্বিতীয়। ক্লাস টু’তে মোছলেমার রোল ছিল এক। মেধাবী মোছলেমার লেখাপড়ার খরচ ও খেতে দিতে পারতো না গরীব পিতা। তাই একই গ্রামের ফজলুল মাস্টারের মেয়ে নাহিদা বেগম স্বামীর কর্মস্থল নোয়াখালী জেলার রামগঞ্জে নিয়ে যায় মোছলেমাকে। শর্ত ছিল নাহিদার ছেলেমেয়েকে স্কুলে নিয়ে যাবে এবং সেও লেখাপড়া করবে। নাহিদার স্বামী গাইবান্দার পলাশবাড়ী উপজেলার মোতলেবুর রহমান, রামগঞ্জ যুবউন্নয়ন অফিসে চাকুরী করেন।
মোছলেমার মা রমেছা বেগম অভিযোগ করে বলেন, একবছর আগে একই গ্রামের ফজলুল হক মাস্টারের মেয়ে নাহিদা বেগম আমারে কইলো মেয়াকে তো খাইতে দিতে পারো না, লেখাপড়া করাইতে পারো না। আমি মেয়াটারে নিয়ে যাই, ও আমার বাসায় থাকবো, আমার বাচ্চাদের স্কুলে নিয়ে যাবে নিজেও স্কুলে পড়বে, লেখাড়াও করবো আর ভালো খাইতেও পারবো। মেয়ের ভবিষ্যতের চিন্তা কইরা নাহিদার সাথে মোছলেমারে পাঠাইছিলাম। ফজলুল মাস্টার তার মেয়াবাড়িতে যাইবো শুইনা আমার মেয়াটারে নিয়া আইতে কইলাম। সোমবার মেয়া আমার বাড়িতে আইলে দেহি একি অবস্থা আমার মেয়ার? পরে হাসপাতালে নিয়া আইসি। একই অভিযোগ করেন পিতা খলিলুর রহমান। তিনি সরকারের কাছে মেয়ে নির্যাতনের বিচার দাবি করেন।
এ ব্যাপারে রৌমারী থানার ওসি (তদন্ত) আকতারুজ্জামান জানান, খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলাম। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মামলা হলে আসামী গ্রেফতার করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email