CC News

৭৬২ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি বাংলালিংকের

 
 

bangla linkঢাকা : দীর্ঘদিন ধরে রাজস্ব ফাঁকির বিষয়ে বেসরকারি মোবাইল অপারেটর বাংলালিংকের সঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বিরোধ চলে আসছে। বিষয়টি গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত। আদালতের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেও সমাধানে পৌঁছতে পারেনি বাংলালিংক ও এনবিআর। এ বিষয়ে এনবিআর বিশেষ তদন্ত দল গঠন করে। তদন্ত দল বাংলালিংকের ৭৬২ কোটি ৩৪ লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকির বিষয়টি চূড়ান্ত করেছে। কমিটি ইতোমধ্যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন এনবিআরের কাছে দাখিল করেছে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, পাওনা পরিশোধ না করলে বাংলালিংকের ব্যাংক হিসাব জব্দসহ কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জানা গেছে, এর আগে বাংলালিংকের কাছে ৭৭৪ কোটি ৪ লাখ ৮৯ হাজার ১১৭ টাকার পাওনা দাবি করেছিল এনবিআর। কিন্তু পরবর্তী সময়ে বিশেষ তদন্ত কমিটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ৭৮৬২ কোটি ৩৪ লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকির তথ্য পেয়েছে।

বাংলালিংক ২০০৯ সালের জুন থেকে ২০১১-এর মার্চ পর্যন্ত যেখানে নতুন সিম বিক্রি করা হয়েছে, সেখানে ২৭ লাখ ৫৮ হাজার সিম রিপ্লেসমেন্ট দেখানো হয়েছে। এতে রাজস্ব ফাঁকির পরিমাণ ৭৬২ কোটি৩৪ লাখ টাকা।

তদন্ত কমিটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে, মূল দলিলাদি যাচাইয়ের মাধ্যমে সিম রিপ্লেসমেন্টের আগে-পরে মালিকানা নিশ্চিত করা হয়েছে বলে এ অর্থ পরিশোধযোগ্য। বিশেষ কমিটি বিটিআরসির কারিগরি সহায়তায় সিম রিপ্লেসমেন্ট তদন্তসংক্রান্ত প্রায় ৫ হাজার সিম নতুনভাবে যাচাই-বাছাই করেছে। এর মধ্যে প্রায় ৯৫ শতাংশ সিমের ক্ষেত্রে রাজস্ব ফাঁকির প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। মোবাইল অপারেটররা সিম বদলের আড়ালে নতুন কার্ড ইস্যুর বিপরীতে বিদ্যমান ট্যারিফ মূল্য অনুযায়ী সম্পূরক শুল্ক ও মূসক ফাঁকি দিয়েছে।

এরআগে সিমকার্ড রিপ্লেসমেন্টসহ অন্যান্য পাওনা কর বাবদ এনবিআর ও বাংলালিংকের মধ্যে আপত্তি দেখা দেয়। কোম্পানির দাবী, ২০০৫ সালের ১৩ জুন করা আইন অনুযায়ী সিম বদলের (রিপ্লেসমেন্ট) জন্য কোনও কর দিতে বাধ্য নয় তারা। কিন্তু কোম্পানির এ দাবিও মানতে নারাজ এনবিআর। এ নিয়ে বিরোধ চলে উভয় পক্ষের।

অপারেটরগুলো পুরনো সিমের বদলে গ্রাহকদের নতুন সিম দিলেও এসব সিমের কোনও কর দেয় না। বিষয়টি এনবিআরের নজরে এলে বাংলালিংকের কাছ থেকে সিম রিপ্লেসমেন্ট বাবদ পাওনা কর দাবি করে আসছে এনবিআর। কিন্তু এনবিআরের দাবি মানতে নারাজ বাংলালিংক। এনবিআরের দাবির বিরুদ্ধে গত বছর হাইকোর্টে মামলা করে। গত ৬ জুন এক রায়ে পাওনার বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য এনবিআরকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। রায় ঘোষণার ১২০ দিনের মধ্যে সমস্যা সমাধানে এনবিআরকে সময়ও বেঁধে দিয়েছেন আদালত। এরপর দফায় দফায় অপারেটদের সংগঠনের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করে এনবিআর। কিন্তু আলোচনা ফলপ্রসূ না হওয়ায় বিশেষ তদন্ত কমিটি গঠন করে এনবিআর। এনবিআরের বিশেষ তদন্ত কমিটি পরীক্ষা শেষে কর ফাঁকির বিষয়টি চূড়ান্ত করে।

সৌজন্যে: আমাদের সময়

Print Friendly, PDF & Email