CC News

জাতীয় পার্টিতে শুদ্ধি অভিযান

 
 

jatio partiসিসি ডেস্ক: জাতীয় পার্টিতে শুরু হয়েছে শুদ্ধি অভিযান। দলের দপ্তর সম্পাদক, ঢাকা মহানগরীর দক্ষিণ ও উত্তরসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে শিগগিরই রদবদল আসতে পারে। রওশনপন্থি নেতারা এরশাদকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করায় পার্টি চেয়ারম্যান এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জাপার একাধিক প্রেসিডিয়াম সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। সরকারের সঙ্গে আঁতাত করায় কাজী ফিরোজ রশিদকে মুখপাত্রের পদ থেকে ইতিমধ্যে সরিয়ে দিয়েছেন এরশাদ। পাশাপাশি দলীয় মুখপাত্র হিসেবে প্রেসিডিয়াম সদস্য জিএম কাদের এবং মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদারকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। কিছু নেতার প্রতি অবিশ্বাস আর আস্থাহীনতায় ভুগছেন জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে চলা এসব নেতার প্রতি ক্ষোভ আর অভিমান থেকে পার্টিতে এ শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে বলে জাতীয় পার্টির নেতারা জানান। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গতকাল হঠাৎ কাউকে না জানিয়েই এরশাদ দলের কাকরাইল ও বনানী কার্যালয় পরিদর্শনে যান।
সকালে জাপার মন্ত্রী-এমপিদের স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করার কথা ছিল। দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এশাদকে না জানিয়ে দলের সংসদীয় বোর্ড এ সিদ্ধান্ত নেয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জিএম কাদের ও রুহুল আমীন হাওলাদার এরশাদকে জানিয়ে দেন, এ অবস্থা চলতে থাকলে দল টিকবে না। খবর পেয়ে এরশাদ মঙ্গলবার রাতেই রওশনের কাছে বিশেষ দূত পাঠিয়ে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের নির্দেশ দেন। একপর্যয়ে গতকালের নির্ধারিত কর্মসূচি বাতিল করেন রওশন ও তার নেতৃত্বে নির্বাচনে যাওয়া মন্ত্রী-এমপিরা। জাপার এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, ‘স্যার (এরশাদ) অনেক সহ্য করেছেন। লজ্জা, অপমান আর অভিমানে তিনি চুপ। এ জন্য দায়ী কারা? আমরা। আমাদের বেঈমানির কারণে জাতীয় পার্টিতে কারও নিয়ন্ত্রণ নেই। একেকজন একেক কথা বলছেন। তবে এ অবস্থা থাকবে না। পক্ষকালের মধ্যেই সব ঠিক হয়ে যাবে। বেঈমানির খেসারত ওরা পাবেই।
সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জাতীয় পার্টির সভাপতি পদ থেকে কাজী ফিরোজ রশিদকে অপসারণ করা হতে পারে সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে ঢাকা-৬ আসন গিফট নেয়ায়। তার অপসারণের বিষয়টি অনেকটা নিশ্চিত। মন্ত্রিত্ব না পাওয়ায় কাজী ফিরোজ রশিদ আবার এরশাদের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। তবে তাকে আর পাত্তা দিচ্ছেন না সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ। একই সঙ্গে উত্তর সভাপতি পদ থেকে এস এম ফয়সাল চিশতিও অপসারণ হতে পারেন তার কিছু বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে। তবে চিশতি এরশাদের আবার কাছে ভেড়ার চেষ্টায় অনেকটা সফল হয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত এমপি লিয়াকত হোসেন খোকাকেও স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতির পদ থেকে অপসারণ করতে পারেন এরশাদ। আরও অপসারণ হতে পারেন দলের দপ্তর সম্পাদক ও প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট তাজুল ইসলাম চৌধুরী। এ তালিকায় আরও আছেন প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা। তারা নির্বাচনে অংশ নিয়ে সরকারের সঙ্গে গোপন আঁতাত করেন। নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকা রেখে যুগ্ম মহাসচিব রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া গতকাল এরশাদের গাড়িতে ওঠায় ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। এদিকে এরশাদ বেশ কয়েকজনকে নিয়োগ দেবেন প্রেসিডিয়ামে। এবার কমিটিতে এরশাদের অনুগতদের প্রাধান্য দেয়া হবে বলে সূত্র জানায়। এ ছাড়া মহাসচিব পদেও রদবদল আসতে পারে বলে দলীয় সূত্র জানায়। এ পদটি এ বি এম রুহুল আমীন হাওলাদার এক যুগের বেশি সময় ধরে আঁকড়ে ধরে আছেন। তার ভূমিকা নিয়েও নানা প্রশ্ন খোদ দলের মধ্যে। এরশাদের অনুপস্থিতিতে দুই কূল রক্ষার চেষ্টা করেন হাওলাদার। আর এ কারণেই তালিকায় তার নাম দিলেও মন্ত্রিত্ব দেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
নির্বাচনে অংশ নেয়া না নেয়াকে কেন্দ্র করে জাতীয় পার্টিতে বিভক্তি দেখা দিলে কাজী জাফর আহমেদের নেতৃত্বে দলটির একটি অংশ ‘জাতীয় পার্টি’ নামে নতুন কমিটির ঘোষণা দেয় কাউন্সিলের মাধ্যমে। তারা এরশাদকে দল থেকে বহিষ্কারের ঘোষণা দেন। এরশাদের সঙ্গে থাকা নেতাদের মধ্যেও পরে নির্বাচন নিয়ে দ্বৈত অবস্থান দেখা যায়। এরশাদ নির্বাচন বর্জনে অনড় থাকলেও রওশন এরশাদের নেতৃত্বে দলটিকে নির্বাচনে রাখতে কিছু নেতা তৎপর হয়ে ওঠেন। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে নির্বাচনকালীন সরকারে অংশ নেয় জাতীয় পার্টি। এর পরও আরেক দফা নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন এরশাদ। জাপাকে নির্বাচনে রাখতে সরকারের কৌশল হিসেবে তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে রাখা হয় এক মাস। এদিকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তার দলীয় মুখপাত্র হিসেবে প্রেসিডিয়াম সদস্য জিএম কাদের এবং মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদারকে দায়িত্ব দিচ্ছেন। এখন থেকে পার্টির চেয়ারম্যানের সব নির্দেশনা এবং দলীয় সিদ্ধান্তের কথা তার পক্ষে উল্লিখিত দুই নেতার মাধ্যমে প্রচার বা প্রকাশিত হবে। অন্য কেউ পার্টির চেয়ারম্যান বা দলীয় মুখপাত্র হিসেবে পরিচয় দিয়ে পার্টির পক্ষে নীতিনির্ধারণী বিবৃতি বা বক্তব্য দিতে পারবেন না বলে চেয়ারম্যান এরশাদ এক সাংগঠনিক নির্দেশে জানিয়ে দিয়েছেন। এটা জাতীয় পার্টি এবং পার্টির সংসদীয় দল- এই উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে বলে সোমবার জাপার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
হঠাৎ বনানী ও কাকরাইল অফিসে এরশাদ: গতকাল সকালে বারিধারার নিজ বাসভবন থেকে অনেকটা আকস্মিকভাবে বেরিয়ে আসেন এরশাদ। দলীয় সূত্র জানায়, কাউকে না জানিয়ে এরশাদ দলের কাকরাইল ও বনানী কার্যালয় পরিদর্শনে যান। দুপুরের পর আবার ফিরে যান প্রেসিডেন্ট পার্কে। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবীব লিংকন মানবজমিনকে বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে সায়েদাবাদের পীর সাঈদুর রহমান সায়েদাবাদীর সঙ্গে দেখা করেন। সেখান থেকে কাকরাইলে জাপা কার্যালয় ও সব শেষে দুপুর ১টায় বনানী কার্যালয়ে যান। সেখানে থাকা নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন এরশাদ। লিংকন জানান, জাপা নেতারা জানতেন না এরশাদের এ আকস্মিক পরিদর্শনের কথা। জানা গেছে, জাপার রওশনপন্থি নেতারা এরশাদকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করছেন বলে মনে করেন এরশাদ। নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে নানা নাটকীয়তা, সিএমএইচে আটক থাকা ও সবশেষ এমপিও ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হয়ে বাড়ি ফেরার ঘটনায় দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে এরশাদের দূরত্ব তৈরি হয়েছে। এরশাদ দূরত্ব ঘোচাতে চান, একই সঙ্গে নেতাকর্মীদের দেখাতে চান দল তার কর্তৃত্বাধীন। এ কারণে তিনি গতকাল হঠাৎ বাসা থেকে বেরিয়ে আসেন।
সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন নিয়ে এরশাদের ওপর ক্ষুব্ধ রওশন: সংরক্ষিত আসনে মহিলা সদস্যদের মনোনয়ন নিয়ে এরশাদের ওপর ভীষণ ক্ষুব্ধ বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তার সঙ্গে পরামর্শ না করে নির্বাচন কমিশনে পাঁচ জনের একটি তালিকা দিয়েছেন এরশাদ। এই তালিকায় জিএম কাদেরের স্ত্রী শেরিফা কাদের, জাতীয় মহিলা পার্টির নাজমা আক্তার, ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকার, এরশাদের পালিত কন্যা মৌসুমি আক্তার ও দলের যুগ্ম মহাসচিব রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার স্ত্রীর নাম দেয়া হয়েছে। নতুন তালিকা না দিলেও ওই তালিকা ঠেকানোর জন্য রওশন এরশাদ গতকাল একটি পাল্টা চিঠি দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনে। পাশাপাশি তার দুজন প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন নির্বাচন কমিশনে। তারা কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।
ওদিকে, তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিকালে এরশাদ একটি চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীকে। চিঠিতে এরশাদ নতুন সরকার গঠন করায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। পাশাপাশি তাকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত করায়ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

উৎসঃ   মানবজমিন
Print Friendly, PDF & Email