CC News

বীরগঞ্জে ২জন ডাক্তার দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা

 
 

Birgonj Hospital
মীর কাসেম লালু, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর): বীরগঞ্জে ৫০ শয্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২ জন চিকিৎসক সেবা বঞ্চিত রোগিদের আর্তনাদ অজ্ঞাত কারনে নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছেন কতৃপক্ষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২২ অক্টোবর/১৩ইং বীরগঞ্জ ৩১ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীত  করেছেন। প্রয়োজনীয় অবকাঠামো তৈরী হয়েছে ২বছর আগে। লোকবল অভাবে আজও চালু করা হয়নি ৫০ শয্যার স্বাভাবিক কর্যক্রম।

জানা যায়, বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীর চাপ অত্যান্ত বেশী। এই হাসপাতালের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকায় বীরগঞ্জ ছাড়াও কাহারোল, ও খানসামা উপজেলার রোগিরা চিকিৎসা নিতে আসে। এজন্য বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যায় থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করার জন্য এলাকাবাসীর দাবি দীর্ঘ দিনের। জনগনের দাবির মুখে ৫০ শর্য্যার পদক্ষেপ নেওয়া হয় ২০০৬ সালে। সরকারী প্রায় ৬ কোটি ৫০ লাক্ষ টাকা ব্যায়ে নুতন ৩টি ভবনসহ অবকাঠামো নির্মান করা হয়। সেগুলো কর্তৃপক্ষের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয় ২০১২ সালের জুন মাসে। একই বছরের ডিসেম্বর মাসের ১ম সপ্তাহে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে প্রশাসনিক অনুমোদন পাওয়া যায়। প্রশাসনিক অনুমোদন পাওয়ার দুই বছর পেরিয়ে গেলেও কমপ্লেক্সটিতে জনবল বাড়েনি।
৩১ শয্যায় জন্য যে সংখ্যক জনবল প্রয়োজন তার চেয়েও কম জনবল রয়েছে, ফলে ৫০ শয্যায় কার্যক্রমতো দুরের কথা ৩১ শয্যায় কার্যক্রমই চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। স্বাস্থ্য কমপ্লে¬ক্স সুত্রে জানা যায়, ৩১ শয্যায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য আবাশিক চিকিৎসক, এনেসথেসিয়া, জুনিয়র কনসালটেন্ট, গাইনি, মেডিসিন ও সার্জারীসহ চিকিৎসকদের ৯টি পদ রয়েছে কিন্তু কর্মরত আছেন ২ জন। এদেরমধ্যে একজন ডা.মোঃ সোহরাব হোসেন, অপরজন ডা.মোঃ আসিফ আনোয়ার।
বর্তমানে ডা.মৌসুমী মার্জিয়ারা বেগম (মাতৃত্ব) ছুটিতে থাকার করনে দু’জন ডা. দিবা ও নৈশ্যকালিন ৩১ শয্যার রোগী, জরুরী বিভাগে ৩৫/৪০জন ও বহির বিভাগে প্রায় ২শত থেকে ২শত ৫০ জন রোগী’র চিকিৎসা করেন। ইউনিয়ন উপচিকিৎসা কেন্দ্র সমুহে ১২জন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার পদের মধ্যে ৮টি পদই শূন্য, নওপাড়া উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ২জন ও পাল্টার্পু উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ২জন দায়িত্ব পালন করছে। ৮টি ইউনিয়ন উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র  চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে।
নার্সিং সুপার ভাইজারসহ সিনিয়র ষ্টাফ নাসের্র ৩টি পদ, ৩য় শ্রেণী স্বাস্থ্য সহকারী ১৯টি পদ  ছাড়াও ওয়ার্ড বয়, প্যাথলজী, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীসহ ৩১ শর্য্যা হিসেবে প্রায় ৪০টি পদ ফাঁকা থাকার কারনে চিকিৎসা সেবা একেবারে ভেঙ্গে পড়েছে। উপজেলার ৩৩ টি কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহকারী ও এফডাবলুএ দ্বারা শুরু থেকে চিকিৎসা সেবা পরিচালনার পর সম্প্রতি একজন কর্মকর্তাকে সরকার নিয়োগ ও প্রশিক্ষন দিয়ে পাঠিয়েছে। এছাড়াও এ্যামবুলেন্সটি যখন তখন বিকল হয়ে পড়ে, যার কারনে মুমূর্ষ রেগী পরিবহন করা মারাত্বক সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে। এ্যাক্স-রে মেশিনটি হটাৎ হটাৎ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় রোগিদের সমস্যা বেড়ে যায়। এলাকাবাসী ১টি আধুনিক এক্স-রে মেশিন ও ১টি এ্যামবুলেন্স এর দাবি জানিয়ে আসলেও তা পুরন হয়নি।
অপর দিকে ৫০ শর্য্যা স্বাস্থ্য কমপ্লে¬ক্সে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকসহ ২৮ জন থাকার কথা। এ ছাড়াও নার্স, আয়া, পিয়নসহ অন্যান্য কর্মচারীদের পদও আনুপাতিক হারে বাড়ার কথা। সরে জমিনে গিয়ে দেখা যায়, নুতন ভবনে ১৯ শয্যার একটি ওয়ার্ড, অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের চেম্বার রয়েছে। কিন্তু লোকবল না থাকায় সেগুলোতে কার্যক্রম চলছেনা। ছোট-খাটো অস্ত্রপাচারের জন্য স্থানীয় ক্লিনিকে অথবা  দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ সহ অন্যান্য হাসপাতালে যেতে হচ্ছে।
গর্ভবতী স্ত্রীকে নিয়ে আসা কোমর পুরের যতিন রায় বলেন, জরুরি ভিত্তিতে স্ত্রীর সিজার করা দরকার, সুন্দর অপারেশন থিয়েটার থাকার পরও সিজারের ব্যাবস্থা নাই। বাধ্য হয়ে দিনাজপুর জেলা সদরে নিয়ে যেতে হচ্ছে। কলেজপাড়া গ্রামের বাসিন্দা পৌর কাউন্সিলর রহিমা বেগম ফুলেছা বলেন, ৫০ শয্যায় উন্নীত হলে ভাল চিকিৎসা হওয়ার কথা কিন্তু এ হাসপাতালে ভাল চিকিৎসা মিলছে না।  উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ আবু সাঈদ মোঃ রফিকুজ্জামান বলেন, আমি বীরগঞ্জে ১ম প্রশাসনিক দায়িত্ব পেয়ে ২৪ এপ্রিল/১২ইং যোগদানের পর হতে চিকিৎসক কর্মচারী অভাবে রাত-দিন কাজ করেও ভাল করতে পারিনি। কারন হিসেবে  তিনি জানান দরিদ্র মানুষের সংখ্যা খুবই বেশী, রোগীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে সরকার ৫০ শয্যার লোকবল প্রদান করলে উপজেলাবাসী উন্নত চিকিৎসা সেবা পাবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।

Print Friendly, PDF & Email