CC News

৭ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে, হচ্ছে না কুড়িগ্রাম-৪

 
 

Election Picডেস্ক রিপোর্ট: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্থগিত ৭ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে সাত আসনে ৩৯০টি কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে পুনভোট গ্রহণ শুরু হয়। তবে কুড়িগ্রাম-৪ আসনের দুই কেন্দ্রে আদালতের নির্দেশের কারণে ভোট হচ্ছে না। বিকেল ৪টা পর্যন্ত এ সব কেন্দ্রে ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে ভোটগ্রহণ চলবে।

৫ জানুয়ারি বিএনপিসহ ১৮ দলের ভোট প্রতিহতের ঘোষণার মধ্যে হামলা ও নাশকতায় এ সব জেলার ৩৯২ কেন্দ্রে ভোট স্থগিত করে ইসি। সহিংসতা, ব্যালট বাক্স ছিনতাই ও ভোটকেন্দ্রে অগ্নিসংযোগের কারণে দিনাজপুর-৪, কুড়িগ্রাম-৪, বগুড়া-৭, গাইবান্ধা ১, ৩, ৪, যশোর-৫ ও লক্ষ্মীপুর-১ আসনের ৯৫৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৯২ কেন্দ্রে ভোট স্থগিত করা হয়।

পুনঃভোটের তথ্য : দিনাজপুর-৪ আসনের ১২০টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত হয় ৫৭টি। স্থগিত কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৩৪ হাজার ৯১৯। বাকি কেন্দ্রগুলোয় আওয়ামী লীগের আবুল হাসান মাহমুদ আলী ৬৮ হাজার ৮৮টি, ওয়ার্কার্স পার্টির এনামুল হক সরকার ১ হাজার ৩৮০ ভোট পান।

গাইবান্ধার তিন আসনে পুনঃভোট চলছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের মনজুরুল ইসলাম লিটন ইতোমধ্যে ৬৮ হাজার ৯৯৩ ভোট ও জাতীয় পার্টির আব্দুল কাদের খান ৮ হাজার ৩৮৬ ভোট নিয়ে লড়বেন গাইবান্ধা-১ আসনে। এখানকার ১০৯টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত ৫৪ কেন্দ্রে ভোট রয়েছে ১ লাখ ৫৮ হাজার ২০৯টি।

গাইবান্ধা-৩ আসনে আওয়ামী লীগের ইউনুস আলী সরকার ৭০ হাজার ৬৬৪ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম খাদেমুল খুদি ১২ হাজার ৭৮১ ভোট পেয়েছেন ৫০টি কেন্দ্রে। স্থগিত ৮০টি কেন্দ্রে ভোট রয়েছে ২ লাখ ২৬ হাজার ৬২৭টি।

গাইবান্ধা-৪ আসনের ১৩০টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত রয়েছে ৭২টি। এতে ভোট রয়েছে ২ লাখ ৭৭টি। এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ৫৯ হাজার ৮৬২ ও আওয়ামী লীগের মনোয়ার হোসেন চৌধুরী ১৮ হাজার ৮০৬ ভোট নিয়ে লড়ছেন। জাতীয় পার্টির মুহম্মদ আলতাফ আলী ৭ হাজার ৪৩ ভোট ও জেপির এটিএম আমিনুল ইসলাম ৩ হাজার ১৭৫ ভোট নিয়ে লড়ছেন বগুড়া-৭ আসনে। এ আসনের ১৬১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৬টি কেন্দ্রে পুনভোট হচ্ছে। এতে ১ লাখ ১৫ হাজার ৮৬৫ ভোট রয়েছে।

যশোর-৫ আসনের ১২২টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬০টি কেন্দ্রে পুনঃভোট চলছে। এরমধ্যে ১ লাখ ৩৯ হাজার ২৯৬ ভোট রয়েছে। আওয়ামী লীগের খান টিপু সুলতান ৩০ হাজার ৫৩১ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী স্বপন ভট্টচার্য ১৮ হাজার ৩৩১ ভোট পেয়েছেন ইতোমধ্যে। তরিকত ফেডারেশনের এম এ আউয়াল নৌকা প্রতীক নিয়ে
লক্ষ্মীপুর-১ আসনে লড়ছেন। এ আসনের ৮১টি আসনের মধ্যে পুনভোটের ২১টি কেন্দ্রে ৫০ হাজার ২৭৯ ভোট রয়েছে।

আদালতের স্থগিতাদেশ

কুড়িগ্রাম-৪ আসনের ২টি কেন্দ্রের বৃহস্পতিবার ভোট স্থগিতাদেশ বিষয়ে আদালতের নির্দেশনা ইসিতে এসেছে। এক্ষেত্রে বৃহস্পতিবার ওই দুই কেন্দ্রে ভোট হচ্ছে না বলে ইসি কর্মকর্তারা জানান। আওয়ামী লীগ প্রার্থী এ আসনের আরো কিছু কেন্দ্রে পুনঃভোট চায়। পরবর্তী নির্দেশনা পেলে ওই কেন্দ্রে ভোট হবে বলে জানান ইসি কর্মকর্তারা। কুড়িগ্রাম-৪ আসনের ১০৬ কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত ২ কেন্দ্রে ভোট রয়েছে ৭ হাজার ২৫৭টি। জেপির রুহুল আমিন ৩০ হাজার ৫৪৪ ভোট ও আওয়ামী লীগের জাকির হোসেন ২৩ হাজার ৯৪৬ ভোট পান। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি মধ্যে ৬ হাজার ৫৯৮ ভোটের পার্থক্য ঘোচাতে ভোট হচ্ছে ২ কেন্দ্রে।

উপজেলায় সেনা টহল: টি সংসদীয় আসনের ৩৯২টি ভোটকেন্দ্রে পুনভোট অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সেনাবাহিনী স্ট্রাইকিং ফোর্স নিয়োজিত রয়েছে। সশস্ত্র বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত স্ট্রাইকিং ফোর্স ১০টি ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করছে। প্রতি পাঁচটি ভোটকেন্দ্রের জন্য একটি র‌্যাবের টিম ও প্রতিটি ১০টি ভোটকেন্দ্রের জন্য একটি বিজিবি টিম দায়িত্ব পালন করছে। সেনাবাহিনী নির্বাচনি এলাকার উপজেলাসমূহে অবস্থান করছে ও জেলা সদরে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ স্থাপন করে রিটার্নিং অফিসারের সঙ্গে সমন্বয় করে দায়িত্ব পালন করছে।

এক ভোটকেন্দ্রে ২০ অস্ত্রধারী পুলিশ : নির্বাচনে ২০ জন অস্ত্রধারী পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া লাঠিহাতে ১০ জন আনসারও ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করছেন।

নির্বাহী হাকিম নিয়োগ : পুনভোটগ্রহণের জন্য ৩০ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া ৮টি নির্বাচনি এলাকায় ৭ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। পুলিশ, এপিবিএন, ব্যাটালিয়ন, আনসার, র‌্যাব ও বিজিবির সমন্বয়ে মোবাইল টিম ও স্ট্রাইকিং ফোর্স গঠন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email