CC News

উপজেলা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

 
 

BNP Flagসিসি ডেস্ক: গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন-পরবর্তী ‘হতাশা’ কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টাকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে বিএনপি। এর প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেবে দলটি। পাশাপাশি সরকারের সঙ্গে সংলাপের চেষ্টা অব্যাহত রেখে যত দ্রুত সম্ভব নির্বাচন আদায় করতেও সচেষ্ট থাকবে তারা।
দলের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো উপজেলা নির্বাচনে সরকারকে ওয়াকওভার দেবে না বিএনপি। এ নির্বাচনে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মনোবল ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি দলের সাংগঠনিক ভিত মজবুত করা হবে।
এ ছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতারা শিগগিরই ঢাকার বাইরের জেলাগুলো সফর করবেন। ‘হতাশ’ নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করাই হবে এ সফরের লক্ষ্য।
বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান অর্থনীতি প্রতিদিনকে বলেন, বিএনপি মানুষের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতেই নির্দলীয় সরকারের অধীন নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করেছে। দেশের ৯০ ভাগ মানুষ এ আন্দোলনে সমর্থনও    জানিয়েছে। কিন্তু সরকারের একুগুঁয়েমি ও যুদ্ধংদেহী অবস্থায় গণদাবি আদায় না হলেও সরকারের বৈধতা আজ প্রশ্নের সম্মুখীন। তবে দেশবাসীর প্রত্যাশা, সরকার অবিলম্বে একটি কার্যকর সংলাপের উদ্যোগ নেবে এবং নির্দলীয় সরকারের অধীন সব দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে।
তিনি বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা ‘হতাশ’ এটা ঠিক নয়। আপাতত ‘পরাজয়’ মনে হলেও গণদাবি নিয়ে মাঠে থাকা বিএনপি বিজয়ী হয়েছে।
উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের এই সদস্য বলেন, দলে এ বিষয়ে এখনো কোনো আলোচনা বা সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে বিএনপি একটি নির্বাচনমুখী দল। স্থানীয় সরকার নির্বাচন হিসেবে আগেরবার সরাসরি অংশ না নিলেও দলের অনেকেই প্রার্থী হয়েছেন এবং দুই-তৃতীয়াংশ উপজেলায় বিএনপির প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। কাজেই আসন্ন উপজেলা নির্বাচনেও বিএনপির অংশগ্রহণের সম্ভাবনা রয়েছে।
অবশ্য দলের বিভিন্ন পর্যায়ে কথা বলে জানা গেছে, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে টানা আন্দোলন করে এলেও ২৯ ডিসেম্বরের কর্মসূচি ছিল খুবই কার্যকর। কিন্তু শেষ সময়ের এ কর্মসূচিতে নীতিনির্ধারণী ফোরামের সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতারা কাক্সিক্ষত ভূমিকা না রাখায় কিছুটা ক্ষুব্ধ দলের হাইকমান্ড। তাই পুনরায় বড় ধরনের আন্দোলনে যেতে আরো বেশ কিছু দিন সময় নেবে বিএনপি। দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করছে, আন্দোলনের ফসল ঘরে তুলতে না পারায় সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মীর মনোবল অনেকটাই ভেঙে পড়েছে। তাদের মনোবল ও আস্থা ফিরিয়ে আনাই এখন প্রধান কাজ। এ লক্ষ্যে আন্দোলনের চেয়েও দলীয় রাজনীতি পুরোদমে সক্রিয় করে তোলা, দলের ঐক্য অটুট রাখা, কারাবন্দিদের মুক্ত করা এবং আত্মগোপনে থাকা নেতাকর্মীদের মুক্ত আলোয় ফিরিয়ে আনাকেই অধিকতর গুরুত্ব দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাইকমান্ড।
বিএনপি চেয়ারপাসনের গুলশান কার্যালয় সূত্র জানায়, ‘একদলীয়’ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিষয়ে দেশি-বিদেশি চাপে থাকা সরকারকে উপজেলা নির্বাচনে ওয়াকওভার দেবে না বিএনপি। সরকার এই নির্বাচনের মাধ্যমে নিজেদের বৈধ প্রমাণের চেষ্টা করবে জেনেও বিএনপি কৌশলগত কারণে এতে অংশ নেবে। কারণ, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ফলে তৃণমূলে দলের সাংগঠনিক ভিত্তি শক্তিশালী হবে।
সূত্র জানায়, রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান না করে সরকার উপজেলা নির্বাচন করার উদ্যোগ নিলে বিএনপি তাতে বাধা দেবে না। প্রতি উপজেলায় একক প্রার্থী দেওয়ার ব্যাপারে দলের হাইকমান্ড ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্টদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন।
বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতর থেকে জানা গেছে, কারাবন্দি নেতাদের মুক্তি এবং বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত আত্মগোপনকারী নেতাদের জামিনের ওপর অধিকতর গুরুত্ব দিচ্ছে তারা। সিনিয়র নেতাদের জামিন নিশ্চিত হলেই দেশের বিভিন্ন জেলা সফরের সময়সূচি চূড়ান্ত করা হবে। নেতাকর্মীদের চাঙ্গা এবং সাংগঠনিক ভিত মজবুত করতে ফেব্রুয়ারি মাসে সভা, সমাবেশ, গণসংযোগের উদ্দেশে কেন্দ্রীয় নেতারা বিভিন্ন জেলা সফর করবেন। নেতাদের এই সফরে উপজেলা নির্বাচনে প্রস্তুতির ইঙ্গিত থাকবে বলে জানা গেছে।  অর্থনীতি প্রতিদিন

Print Friendly, PDF & Email