CC News

চন্দন কাঠের চুল্লীতে বিলীন হয়ে গেলো সুচিত্রা

 
 

Sucitra Senআর্ন্তজাতিক ডেস্ক: অনন্তলোকে চলে গেলেন বাংলা চলচ্চিত্র প্রবাদপ্রতীম অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন। শুক্রবার দুপুর ১টা ৫১ মিনিটে কলকাতার কেওড়াতলা মহা শ্মশানের চিত্তরঞ্জন দাস উদ্যানে চন্দন কাঠের চুল্লীতে বিলীন হয়ে গেলো বাংলা চলচ্চিত্রের সর্বকালের সেরা নায়িকার নশ্বর দেহ। পঞ্চভূতে বিলীন হলেন মহানায়িকা। দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটে মহানায়িকার মুখাগ্নি করেন মেয়ে মুনমুন সেন। এর আগে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান “গান স্যালুট” প্রদান করা হয়। এরপর বাজানো হয় মহানায়িকার প্রিয় গান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, অভিনেতা দেব সহ হাজির ছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের শিল্পী ও কলাকুশলীরা। পরিবারের পক্ষে শ্মশানে উপস্থিত ছিলেন সুচিত্রা সেনের মেয়ে মুনমুন সেন, নাতনি রিয়া এবং রাইমা সেন।

ভারতের স্থানীয় সময়  দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে এ মহানায়িকাকে চুল্লীতে স্থাপন করা হয়। হিন্দু ধর্মের প্রথানুযায়ী দুপুর ১টা ৪৬ মিনিটে মুখাগ্নি করেন মুনমুন সেন। এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন মুনমুন সেন। কালো কাঁচে মোড়া শববাহী শকটের ভেতর কফিনে রাখা হয়েছিল মহানায়িকার মরদেহ। শ্মশানের পথে রওনা দেওয়ার আগে খুব কম সময়ই বাড়িতে রাখা হয় মহানায়িকার শবদেহ।

অগণিত ভক্ত, অনুরাগী ওই যাত্রা পথের ধারে ভিড় করলেও তাকে দেখতে পাননি কেউ। গোটা শ্মশান চত্বর ছিল পুলিশের নিরাপত্তায়। সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদেরও নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

তবে শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন অসংখ্য মানুষ।  শ্মশানেও হাজির ছিলেন আবাল বৃদ্ধ বনিতা। দূর থেকেই তারা শেষ শ্রদ্ধা জানান। কলকাতার রবীন্দ্র সদনে দুপুর ২টা থেকে সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা জানাবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সেখানে রাখা থাকবে মহানায়িকার ছবি।

Print Friendly, PDF & Email