CC News

জঙ্গিবাদ নির্মূলে মাঠে ১৭ প্রতিষ্ঠান

 
 

62680_1সিসি ডেস্ক: জঙ্গিবাদ নির্মূলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একযোগে মাঠে নেমেছে সরকারের ১৭ প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান আলাদাভাবে পৃথক মনিটরিং-এর দায়িত্ব পালন করছে। এরইমধ্যে জঙ্গি অর্থায়নের উত্স খুঁজতে শুরু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ইসলামী ও সমমনা ১২টি রাজনৈতিক দলের কার্যক্রমের ওপর নজরদারি করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। একই সঙ্গে প্রায় ৫ হাজার মসজিদ-মাদ্রাসার কাজের ওপর নজর রাখছে এই বাহিনীর সদস্যরা। এছাড়া জঙ্গিবাদের উত্থান হতে পারে এমন ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ১৪ জেলায় গোয়েন্দা তত্পরতা বাড়ানো হয়েছে। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে-পরে সংঘঠিত তাণ্ডবের সঙ্গে জড়িত ‘জঙ্গিবাদী’ সংগঠন জামায়াতের সদস্যদের অপতত্পরতা দমনের জন্যই সরকার আবারও নতুন করে এ পদক্ষেপ নিয়েছে। স্বরাষ্ট্র্র মন্ত্রণালয়, জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ও প্রতিকার বিষয়ক জাতীয় কমিটি এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার বর্তমানকে বলেন, ‘জঙ্গিবাদ নির্মূলে পুলিশি কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। জঙ্গিবাদের উত্থান হতে পারে— এমন এলাকা ও মসজিদ চিহ্নিত করে সেগুলোয় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।’
অন্যদিকে র্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান বর্তমানকে বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সংখ্যালঘুসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর চোরাগোপ্তা হামলার কারণে জঙ্গিদের কর্মকাণ্ড নজরদারির আওতায় আনা হচ্ছে। একই সঙ্গে সরকারের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে জঙ্গিবাদের উত্থান রোধ ও সমূলে উত্পাটনে জোরাল বেশকিছু পদক্ষেপের নির্দেশ মাঠ পর্যায়ে পৌঁছানো হয়েছে।’
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গঠিত ‘জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ও প্রতিকার’ বিষয়ক জাতীয় কমিটি সূত্র জানায়, নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী জঙ্গিবাদের উত্থান ও সমূলে উত্পাটনকে অন্যতম কাজ হিসেবে নিয়েছে সরকার। এজন্য সরকার গঠনের পর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সরকারি ১৭ প্রতিষ্ঠানকে এ সংক্রান্ত নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্দেশপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে— বাংলাদেশ ব্যাংক, স্থানীয় সরকার, পররাষ্ট্র, শিক্ষা, তথ্য, সমাজ কল্যাণ ও ধর্ম মন্ত্রণালয়, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, পুলিশ, র্যাব, বিজিবিসহ কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থা।
গোয়েন্দা সূত্রের দাবি— সরকারের নির্দেশের পরই জঙ্গিদের সহায়তায় পাঠানো অর্থের উত্স খুঁজতে শুরু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে কাজ করছে। এই নির্দেশ পাওয়ার পর তারা আরও বেশি তত্পর হয়েছে। এছাড়া পুলিশ, র্যাব, বিজিবিসহ কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থা জঙ্গিবাদ উত্থানের আশঙ্কা থাকা ১৪ জেলা, ১২ ইসলামী দল ও ৫ হাজার মসজিদ-মাদ্রাসার কার্যক্রম মনিটর করেছে। জামায়াত-শিবিরের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড, তালিকাভুক্ত কওমি মাদ্রাসা, বির্তকিত বেশ কয়েকটি উগ্র ইসলামী দল, ইসলামী দলের কয়েক শীর্ষ নেতা, নিষিদ্ধ জেএমবি, হুজি, হিযবুত তাহরীর, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমসহ এ ধরনের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমের ওপর তীক্ষ নজর রাখছে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো।
সূত্র জানায়, হরতাল-অবরোধের দীর্ঘ এ সময়ে একাধিক গোয়েন্দাসংস্থা ও স্থানীয় প্রশাসনের প্রতিবেদন অনুযায়ী জঙ্গিবাদের উত্থান হতে পারে— এমন ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ১৪ জেলা চিহ্নিত করে সেগুলোয় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে জামায়াত-শিবিরের চিহ্নিত নেতাকর্মীরা এসব জেলায় ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ও সংঘর্ষ ঘটায়। জেলাগুলো হলো— ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, যশোর, সাতক্ষীরা, গাজীপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, জয়পুরহাট, সিরাজগঞ্জ, ফরিদপুর ও পাবনা।
সার্বিক অনুসন্ধান ত্বরান্বিত করতে ‘জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ও প্রতিকার’ বিষয়ক জাতীয় কমিটির সুপারিশে বরাদ্দকৃত অর্থ দ্বিগুণ করা হচ্ছে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর করা হচ্ছে মনিটরিং কার্যক্রম। একইসঙ্গে ‘জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ও প্রতিকার’ বিষয়ক জাতীয় কমিটির কর্মকাণ্ড ত্বরান্বিত করতে নতুন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালকে ১৭ সদস্যবিশিষ্ট সেলের প্রধান করা হচ্ছে।
সূত্র জানায়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বিদেশ থেকে অর্থ পাঠানোর বিষয়ে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তদারকিতে, তথ্য মন্ত্রণালয়কে জঙ্গিবাদবিরোধী ডকুমেন্টারি, নাটিকা, শর্ট ফিল্ম, বিজ্ঞাপনচিত্র, ভিডিও ক্লিপ প্রস্তুত করে তা প্রচারের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। একইভাবে অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও দফতর পৃথক পৃথক দায়িত্ব পেয়েছে।
প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে আওয়ামী লীগ সরকার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন ‘জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ ও প্রতিকার’ বিষয়ক জাতীয় কমিটি গঠন করে। ওই সময় থেকে জঙ্গি দমনে এসব কাজ হয়ে আসছে। সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর নতুন করে দিকনির্দেশনা দেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।
সার্বিক বিষয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বর্তমানকে বলেন, ‘জঙ্গিবাদ নিমূলে বদ্ধপরিকর সরকার। এ লক্ষ্যে জোরালভাবে কাজ শুরু করা হয়েছে।’

উৎসঃ   বর্তমান
Print Friendly, PDF & Email