CC News

চিরিরবন্দরে ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকট

 
 

Fart.
চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: ১৮ দলীয জোটের টানা হরতাল-অবরোধকে পুঁজি করে দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকট দেখা দিয়েছে। কৃষি বিভাগ জানিয়েছে উপজেলায় পর্যাপ্ত সার মজুদ রয়েছে। ব্যবসায়ীরা হরতাল-অবরোধে পরিবহন সমস্যায় সারের সংকট জানিয়েছে। আলু, ভূট্রা, গম, সরিষা, রসুন, পিয়াঁজ, কলাসহ শীত কালীন ফসল চাষে ইউরিয়া সার না পাওয়ায় হাহাকার হয়ে হয়ে পড়েছে চাষীরা। বোরো ফসলের উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার হুমকির মুখে পড়েছে চিরিরবন্দরের কৃষি অর্থনীতি।
সারের কৃত্রিম সংকট থাকলেও বিক্রি বন্ধ নেই অনুমতি বিহীন অসংখ্য খুচরা দোকানগুলোতে। সরকারি তালিকায় নির্ধারণ মূল্য উপেক্ষা করে হরতাল-অবরোধকে পূঁজি করে এসব দোকানে প্রতিবস্তা ইউরিয়া ৮শ টাকা থেকে এক হাজার ১০০ টাকা দরে সার বিক্রি করছে। কিন্তু ক্রেতাদের হাতে কোন প্রকার সার বিক্রির রশিদ দেয়া হচ্ছে না। তবে নিয়মিত ভাবে সংশ্লিষ্ট দপ্তকে ফাঁকি দিতে নামে-বেনামে বিক্রি রশিদ লিখে রাখছেন সার ব্যবসায়ীরা।
উপজেলা কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, উপজেলার ১২ সার ডিলারকে প্রতিমাসে পর্যাপ্ত পরিমাণে সার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। চলতি মাসে ১ হাজার ৭৫০ মে.টন ইউরিয়া সার সরকার বরাদ্দ দিয়েছে। সেই সার তুলে উপজেলার খুচরা বিক্রেতা বা কৃষকদের কাছে বিক্রি করার কথা থাকলেও প্রায় সব ডিলার হরতাল-অবরোধের অজুহাতে সার না তুলে ফ্যাক্টরী বা ঘাটেই বেশি দামে বিক্রি করে দিয়ে এসেছেন। এতে বঞ্চিত হচ্ছে এ অঞ্চলের হাজার হাজার কৃষক। ফলে কৃষি সমৃদ্ধ চিরিরবন্দরের গ্রামীণ কৃষি অর্থনীতি পড়ছে হুমকির মূখে।  কিন্তু ডিলাররা জানান, যে পরিমাণে সার বরাদ্দ করা হচ্ছে তাতে চাহিদা মিটছে না সাধারণ চাষিদের। আর পরিবহণ খরচ দিতে হচ্ছে অধিক পরিমাণে।
উপজেলার একাধিক কৃষকের সাথে কথা হলে তারা জানান, অর্থ ব্যয় করে লাগানো জমির ফসল বাঁচাতে নিরুপায় হয়ে চড়া দামে সার কিনতে বাধ্য হচ্ছি। তারা ডিলার কিংবা খুচরা দোকানে বিক্রি রশিদ না দেখে মাঠ পর্যায়ের কৃষককে জিজ্ঞেস করে উচ্চ মূল্যের বিষয় তথ্য নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপসহ নজরদারি দাবি করেছেন।
এ বিষয়ে চিরিরবন্দর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার মোহন্ত বলেন, উপজেলার কেহই এখন পর্যন্ত ইউরিয়া সারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে অভিযোগ করেনি। ইউরিয়া সার সরকারের নির্ধারিত দামের বেশি কোন ব্যাবসায়ি নিতে পারবেনা। আমরা তদন্ত করে দেখব, কেউ যদি বেশি দামে বিক্রি করে, তা হলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email