CC News

চিরিরবন্দরে ঠান্ডাজনিত রোগ থেকে আলুক্ষেত রক্ষার চেষ্টা

 
 


চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: অব্যাহত ঘনকুয়াশা ও শীতের ঠান্ডায় আলুক্ষেত লেইট বাইট রোগে আক্রান্ত হতে পারে এমন আশংকায় চিরিরবন্দর আলু চাষিদের ঘুম নেই। এ কারণে কনকনে ঠান্ডা উপেক্ষা করে আলু চাষিরা ক্ষেত রক্ষায় আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে আলুর উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাওয়ার আশংকা করছে চাষিরা।
সুত্র জানায়, এবার ২ হাজার ১০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা হাতে নেয় উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর। কিন্তু লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে প্রায় ১০০ হেক্টর বেশি জমিতে আলু চাষ হয়েছে। এসব আলুর মধ্যে স্থানীয় জাতের শীল বিলেতি, সাদা গুটি, লাল কবরি, কার্ডিনাল, ডায়মন্ড, গ্র্যানুলা উল্লেখযোগ্য। উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী স্থানীয় জাতের আলু ১১০ থেকে ১২০ দিনের মধ্যে ঘরে উঠে। আর উফশী আলু ৭৫ থেকে ৮৫ দিনের মধ্যে চাষিরা ঘরে তুলতে পারেন। সাধারণত বছরের আশ্বিন মাসের শেষ থেকে মধ্য কার্ত্তিক পর্যন্ত স্থানীয় জাতের আলু রোপন করে থাকেন চাষিরা।
কৃষি অধিদপ্তর আরো জানায়, ঘনকুয়াশা ও শীতের ঠান্ডায় আলুক্ষেত ছত্রাক জনিত রোগে আক্রান্ত হয় না। বিশেষ করে সাধারণত তাপমাত্রার তারতম্যের কারণে ছত্রাক জনিত রোগের আক্রমণ ঘটে।  এ সময় ৭দিন পর পর ম্যানকোজেব ও মেটানিক্সিল গ্রুপের ওষুধ আলু ক্ষেতে স্প্রে করলে লেইট বাইটের আক্রমণ হয় না।

Print Friendly, PDF & Email