CC News

জিয়াউর রহমানের আজ ৭৮তম জন্মবার্ষিকী

 
 

ziaur-rahmanসিসি ডেস্ক: বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা-চেয়ারম্যান, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৮তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৩৬ সালের এদিনে বগুড়ার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। প্রতিষ্ঠাতার জন্মবার্ষিকীকে ঘিরে বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলো ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এ উপলক্ষে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাণী দিয়েছেন।
স্বাধীনতার ঘোষক, মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার ও জেড ফোর্সের অধিনায়ক হিসেবে জিয়াউর রহমান এ দেশের মানুষের কাছে প্রথম পরিচিতি লাভ করেন। ১৯৭৫ সালের পটপরিক্রমায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন তিনি। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে রাজনৈতিক ঐকতানে নিয়ে আসা ও সুদৃঢ় অর্থনৈতিক ভিত্তির ওপর দাঁড় করানোর কারণে জিয়াউর রহমান সে সময় আধুনিক বাংলাদেশের স্থপতি হিসেবে অভিহিত হন। তিনি বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের নতুন দর্শন উপস্থাপন করেন এবং এই দর্শনের ভিত্তিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) গঠন করেন। ১৯ দফা কর্মসূচি দিয়ে দেশে উন্নয়ন ও উৎপাদনের রাজনীতিতে নতুন ধারার সূচনা করেন জিয়াউর রহমান। সময়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এ দল বৃহৎ রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে এবং দ্বিতীয় সংসদ, পঞ্চম, ষষ্ঠ ও অষ্টম সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে এ যাবৎ পাঁচবার সরকার গঠন করে। ১৯৮২ সালে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে সামরিক শাসক এরশাদের অধীনে অনুষ্ঠিত ’৮৬ সালে তৃতীয়, ’৮৮ সালে চতুর্থ এবং ২০১৪ সালে দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি।
১৯৭১ সালে জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণা দেশের মুক্তিকামী মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে সাহস ও প্রেরণা জুগিয়েছিল। ক্ষমতার পটপরিবর্তনে ’৭৫ সালের ৭ নবেম্বর সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থানের মধ্যদিয়ে তিনি ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে আসীন হন। তিনি একদলীয় বাকশালের পরিবর্তে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন। সেই সুবাদে বন্ধ হওয়া সংবাদপত্র পুনঃপ্রকাশের সুযোগ লাভ করে।
তার শাসনামলে পররাষ্ট্রনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়। চীন, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন রাষ্ট্রের সঙ্গে নতুন সম্পর্কের সূচনা ছাড়াও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাতটি দেশকে নিয়ে ‘সার্ক’ গঠনের উদ্যোগ নেন জিয়াউর রহমান। ওআইসিকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে মুসলিম উম্মাহর সংহতি জোরদার করার জন্য তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ১৯৮১ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে মর্মান্তিকভাবে শাহাদাত বরণ করেন।
কর্মসূচি : শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কেন্দ্রীয়ভাবে বিএনপি দুদিনের কর্মসূচি নিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে আজ ভোরে সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ১০টায় শেরেবাংলা নগরে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে ফাতেহা পাঠ ও পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং মিলাদ মাহফিল। চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দলের পক্ষ থেকে শহীদ জিয়ার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন।
ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের বাণী : বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ৭৮তম জন্মবার্ষিকীতে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান এবং তার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন।
গতকাল এক বাণীতে তিনি বলেন, ‘এ দেশের এক চরম নৈরাজ্যকর পরিস্থিতিতে জাতীয় রাজনীতির পাদপ্রদীপের আলোয় উদ্ভাসিত হন জিয়াউর রহমান। মাতৃভূমির মুক্তির জন্য নেতৃত্বহীন জাতির দিশারি হয়ে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেন।’
তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতা-উত্তর স্বৈরাচারী দুঃশাসনে মানুষ যখন চরম হতাশায় নিপতিত, তখনই জিয়াউর রহমান জনগণের নেতৃত্বভার গ্রহণ করেন। মিথ্যা প্রতিশ্রুতির অপরাজনীতি দ্বারা জনগণকে প্রতারিত করে স্বাধীন-উত্তর ক্ষমতাসীন মহল যখন মানুষের বাক-ব্যক্তি-স্বাধীনতাকে হরণ করে গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছিল, দেশকে ঠেলে দিয়েছিল দুর্ভিক্ষের করাল গ্রাসে; এমনি এক সংকটময় মুহূর্তে সৈনিক-জনতার ঐতিহাসিক বিপ্লবে শহীদ জিয়া ক্ষমতার হাল ধরেন। ক্ষমতায় এসেই মানুষের হারানো অধিকার ফিরিয়ে দিয়ে বহুদলীয় গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেন।’
ফখরুল বলেন, ‘উৎপাদনের রাজনীতি প্রবর্তন করে জিয়া দেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধশালী করে গড়ে তুলতে সক্ষম হন। তাঁর তীব্র গণতান্ত্রিক চেতনা এবং দেশকে স্বনির্ভর করে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিকভাবে মর্যাদার আসনে সুপ্রতিষ্ঠিত হয়।’
তিনি বলেন, ‘শহীদ জিয়া ছিলেন আধিপত্যবাদ ও সম্প্রসারণবাদের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে এক আপসহীন দেশপ্রেমিক। তাই দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রকারীরা নিজেদের নীলনক্শা বাস্তবায়নের কাঁটা ভেবে জিয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করে।
জিয়ার জন্মবার্ষিকীতে স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্র, মানুষের ভোটাধিকার, ন্যায়বিচার এবং মৌলিক ও মানবাধিকার সুরক্ষায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য দেশবাসীসহ সবার প্রতি আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল।

Print Friendly, PDF & Email