CC News

নারী কেলেঙ্কারি, ইতালি থেকে ফিরতে হচ্ছে কূটনীতিককে

 
 

63028_1সিসি ডেস্ক: আবারও নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছেন বিদেশে বাংলাদেশের নিযুক্ত কূটনীতিক। বিতর্কিত নতুন এই কূটনীতিক হলেন ইতালির বাণিজ্যিক শহর মিলানে নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল মো. তাওহীদুল ইসলাম। তার বিরুদ্ধে মিশনেরই এক নারী সহকর্মী যৌন হয়রানির অভিযোগ এনেছেন। প্রাথমিক তদন্তে ‘অসদাচরণে’র প্রমাণও পেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কমিটি। এ কারণে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। সিদ্ধান্ত জানিয়ে বলা হয়েছে, মিশনের দায়িত্বে থাকার যোগ্যাতা হারানোয় দেশে ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে। পরবর্তী তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে ঢাকায় বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা থাকতে হবে। পুরো প্রক্রিয়া শেষে চাকরিও হারাতে পারেন এই কূটনীতিক। কূটনৈতিক সূত্র জানায়, গত বছরের মার্চ মাসের শেষে আগের কনসাল জেনারেল বিদায়ের পর সে বছরের ২ এপ্রিল মিলানে বাংলাদেশের কনস্যুলেটে যোগ দেন নতুন কনসাল জেনারেল মো. তাওহীদুল ইসলাম। নিউইয়র্কে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে দায়িত্ব পালন শেষে তিনি মিলানে যোগ দেন। কিন্তু সেখানে যোগদানের দুই মাসের মধ্যেই মিশনেরই এক নারী সহকর্মীর সঙ্গে অসদাচরণে জড়িয়ে পড়েন তিনি। ওই নারী সহকর্মী ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ অভিযোগ পেয়ে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে গঠিত হয় প্রাথমিক তদন্ত কমিটি। কমিটিতে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অতিরিক্ত সচিব পবন চৌধুরী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জিষ্ণু রায় চৌধুরী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিচালক কাজী আনারকলি। কমিটির সদস্যরা গত অক্টোবরে ইতালি সফর করেন। পাঁচ দিনের সফরে তারা মিলানে অভিযোগকারী ও সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে কথা বলেন। মিলান থেকে ফিরে নভেম্বরে প্রতিবেদন দাখিল করে কমিটি। প্রাথমিক এ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে কনসাল জেনারেল তাওহীদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ‘অসদাচরণের প্রমাণ পাওয়া গেছে’ বলে উল্লেখ করা হয়। প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়, মিশনে দায়িত্ব পালনের যোগ্যতা হারিয়ে ফেলায় তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হোক। জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশ সরকারের নিয়মানুসারে অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অধিকতর তদন্তের জন্য আরও একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। সেই কমিটির তদন্ত শেষে কেবল প্রমাণ হলেই অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে শাস্তি পেতে হবে। তবে এর আগে চারিত্রিক অসততা ও অসদাচরণের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া যাওয়ায় অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে দেশে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফিরিয়ে আনা হবে। সাধারণত পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে ওএসডি করে রাখা হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অত্যন্ত মেধাবী তাওহীদুল ইসলাম ১৭তম ব্যাচের পররাষ্ট্র সার্ভিসে যোগদান করেন। সে বছরের বিসিএস পরীক্ষায় সারা দেশে মেধাতালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করেন তাওহীদ। চিকিৎসাবিজ্ঞানে স্নাতক পরীক্ষায়ও প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন তিনি। এরপর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগ দিয়ে ইন্দোনেশিয়ায় প্রথম সচিব, যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে ভাইস কনসাল ও নিউইয়র্কে জাতিসংঘ স্থায়ী মিশনে দায়িত্ব পালন শেষে মিলানে গিয়েছিলেন তাওহীদুল ইসলাম। বাংলাদেশের কূটনীতিকদের এভাবে নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ার উদাহরণ আরও আছে। গত বছর অসদাচরণের জন্য সাবেক রাষ্ট্রদূত পর্যায়ের সিনিয়র কর্মকর্তাকে বাধ্যতামূলক অবসরেও পাঠানো হয়েছে। অবশ্য রাজনৈতিক বিবেচনায় নিয়োগপ্রাপ্ত এশিয়ার একটি দেশে বাংলাদেশের এক অধ্যাপক রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। কিন্তু দুই বছর আগে নিজ দূতাবাসের একজন মহিলা কর্মীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে টোকিও থেকে বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবুর রহমানকে ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হয়েছে। টোকিওর বাংলাদেশ মিশনের সাবেক সোশ্যাল সেক্রেটারি জাপানি তরুণী কিয়োকো তাকাহাসি তখন ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফ্যাঙ্ ও ই-মেইল বার্তায় রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন। ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হলেও মুজিবুর রহমানকে ওএসডি করা হয়নি। তিনি পররাষ্ট্র সচিবের দফতরে নিযুক্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পেলেও তার কোনো কাজ নেই। এমনকি বসার কোনো কক্ষও নেই। এ ছাড়া স্ত্রীর অভিযোগে গত বছর রাষ্ট্রদূত হাসিব আজিজ ও রাষ্ট্রদূত আশরাফ উদ্দীনকে দীর্ঘদিন ওএসডি রেখে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে।

উৎসঃ   bd-pratidin
Print Friendly, PDF & Email