CC News

সন্ত্রাস নির্মূলে যত দিন প্রয়োজন হবে যৌথ বাহিনীর অভিযান চলবে-প্রধানমন্ত্রী

 
 

sak-hasinaসিসি ডেস্ক: যে কোনো মূল্যে সাতক্ষীরার সন্ত্রাস দমন করা হবে। সন্ত্রাস নির্মূলে যত দিন প্রয়োজন হবে যৌথ বাহিনীর অভিযান চলবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা সরকারি হাইস্কুল মাঠে জনসভায় তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নেত্রী যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার চেষ্টা করছেন অভিযোগ করে তিনি বলেন, উনি তাদের কোনভাবে রক্ষা করতে পারবেন না।

বাংলাদেশের মানুষ বিশ্বের কারো কাছে হাত পাতবে না বলে মন্তব্য করেছে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ কারো কাছে মাথা নত করে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনেক প্রতিকূল পরিবেশে আপনারা ভোট দিতে গিয়েছেন। নির্বাচনে সাহসী ভূমিকা রেখেছেন এ জন্য আপনাদের সংগ্রামী সালাম।

তিনি বলেন, এক সময় সাতক্ষীরা অবহেলিত ছিল, আওয়ামী লীগ সরকার এসে সাতক্ষীরায় মেডিক্যাল কলেজসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলককাজ করেছে। সার্বিকভাবে সাতক্ষীরার উন্নয়ন হয়েছে। এ সময় তিনি স্থানীয়দের সাহস দিয়ে বলেন আপনাদের পাশে সব সময় আমরা আছি।

বিএনপির শাসনামলের বিষয়ে বলেন, বিএনপির বিষয়ে একটা কথা প্রচলিত রয়েছে ‘বিএনপির দুই গুণ দুর্নীতি আর মানুষ খুন। তারা জামায়াতের সঙ্গে যুক্ত হয়ে সাতক্ষীরাকে রক্তাক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাতক্ষীরার প্রত্যেকটি এলাকা, প্রত্যেক উপজেলায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের খুন করা হয়েছে। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে মানুষের বাড়িঘরে আগুন দিয়েছে, লুটপাট করেছে, রাস্তাঘাট কেটে ফেলেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা এই ধরনের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তাদের একজনও রেহাই পাবে না।

এর আগে দুপুরে সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজে রাজনৈতিক সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে এক মত বিনিময় সভায় তিনি তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের কারণে দেশে যে সহিংসতা, মানুষ হত্যা, সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন চলছে তা কোন অবস্থায় মেনে নেয়া যায় না। এটা তো কোনভাবেই আন্দোলন নয়। যত দিন জনমনে শান্তি না আসবে তত দিন সাতক্ষীরায় যৌথ বাহিনী মোতায়েন থাকবে। যেকোনো মূল্যে সাতক্ষীরাকে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদমুক্ত করা হবে।

মতবিনিময়ের পর ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের কারণে দেশে যে সহিংসতা, মানুষ হত্যা, সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন চলছে তা কোনো অবস্থায় মেনে নেয়া যায় না। এটা তো কোনোভাবেই আন্দোলন নয়।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, নির্যাতনকারীরা যেখানেই থাকুক সরকার তাদের খুঁজে বের করে আইনের হাতে সোর্পদ করবে।

জামায়াতের ‘ঘাঁটি’ হিসেবে পরিচিত সাতক্ষীরায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এবং আসামি গ্রেপ্তারে গত ১৫ ডিসেম্বর রাত থেকে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির যৌথঅভিযান শুরু হয়।

Print Friendly, PDF & Email