CC News

আওয়ামী লীগ ও বিএনপি গণতন্ত্রের মৃত্যুসংবাদ রচনা করছে

 
 

মাহমুদুর রহমান মান্না :

 Manna৫ জানুয়ারি বাংলাদেশের সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে ভারতীয় পত্রিকা ‘দ্য স্টেটসম্যান’-এর উদ্ধৃতি দিয়ে আমার আজকের লেখা শুরু করছি- ‘পৃথিবীর আর কোনো দেশ গত রবিবার এতটা অসন্তোষজনক বিচ্ছিন্নতায় নিপতিত হতে পারত না, যতটা ছিল বাংলাদেশ। পৃথিবী এমন এক নির্বাচনের সাক্ষী হলো, যা বিরোধী দল বয়কট করেছে, অন্তত ১০০টি ভোটকেন্দ্রে আগুন জ্বলেছে, অজস্র ভোটকেন্দ্র ছিল ভোটারশূন্য। বাংলাদেশের রাজনৈতিক শ্রেণী, বিশেষ করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সত্যি সত্যি দারুণভাবে গণতন্ত্রের মৃত্যুসংবাদ রচনা করেছে।’

দ্য স্টেটসম্যান আরো লিখেছে, ‘নিজের ছকে পাওয়া বিজয় উল্লাসের মুহূর্তে হাসিনা নিজেকেই এমনভাবে আহত করেছেন, যাকে ব্যান্ডেজ করা সহজ হবে না। নিছক প্রশাসনিক কাঠামোয় ভেঙে পড়াই আন্তর্জাতিক উদ্বেগের কারণ হবে না; দেশটির স্বাধীনতা আনয়নকারী পরিবারের বংশধর হিসেবে, রাজনৈতিক নেতা হিসেবে শেখ হাসিনার এবং অবশ্যই আওয়ামী লীগের বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হয়েছে। এ এক নিষ্ঠুর পরিহাস।’

এই ভূমিকার দরকার ছিল। ৫ জানুয়ারির পর থেকে এ পর্যন্ত দেশ-বিদেশের পত্রপত্রিকায়, মিডিয়াগুলোতে এমনকি সরকারগুলোর পক্ষ থেকেও যেসব প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করা হয়েছে, তাতে বাংলাদেশের এই নির্বাচনকে কেউ গ্রহণযোগ্য বলেনি।

এমন একটি প্রহসন রচিত ও অনুষ্ঠিত হয়েছে, যার পক্ষে এমনকি এই বৈশ্বিক নিঃসঙ্গতায় একমাত্র সঙ্গী ভারতের পত্রপত্রিকাগুলোও পক্ষে লিখতে পারেনি। দুঃখজনক হলো বাংলাদেশের প্রাচীনতম দল, স্বাধীনতাযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এই সত্য অনুধাবন করতে ব্যর্থ হচ্ছে। মূল নেতৃত্ব কী বুঝেছেন, তাঁর ওপর কোনো মন্তব্য করছি না। কারণ আমি প্রায়ই দেখছি, পানি পান করার আগে আওয়ামী লীগ সেটা ঘোলা করছে। অনেকটা ঘোলা জলে মাছ শিকার করার মতো। পানির ভেতর কী আছে, কেউ দেখতে পারবে না। কেবল আওয়ামী লীগ দেখতে পারবে এবং সে অনুযায়ী শিকার করার ব্যবস্থা করবে। স্বীকার করি, এ কাজে তারা বেশ খানিকটা সফলও হয়েছে। তবে সে সাফল্যের কৃতিত্ব যতটা দলটির নিজের, তার চেয়ে বেশি ভূমিকা তার বিরোধিতাকারী দলটির ব্যর্থতার। বিরোধী দল বিএনপি লড়াইটিকে একেবারে নিজের করে রেখেছে, ক্ষমতার জন্য করেছে অথবা বিএনপি-জামায়াত জোটের অমানবিক হিংস্রতায় রূপান্তরিত করেছে। কখনো জনগণের জন্য করেনি অথচ জনগণ এই নূ্যনতম গণতান্ত্রিক দাবিকে, একটি দলনিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিকে সমর্থন করেছিল।

আওয়ামী লীগ বিএনপির এই ব্যর্থতাকে পুঁজি করেছে। তারা সব সময় দম্ভ করেছে, বিএনপি আন্দোলন করতে জানে না, তারা এই আন্দোলন করতে পারবেও না। আওয়ামী লীগ আন্দোলন করতেও জানে, আন্দোলন কিভাবে ঠেকাতে হয়, তা-ও জানে। এখন ৫ তারিখের ভোটারশূন্য এ ভোট অনুষ্ঠানের সাফল্যে তারা দিশাহারা। আওয়ামী লীগ করেন না এ রকম মহাজোটের একটি দলের নেতা সেদিন ভবিষ্যৎ-দ্রষ্টার মতো বললেন, ৫ জানুয়ারির পর হয়তো বাংলাদেশ একজন স্টেটসম্যানের দেখা পাবে। আর তিনি হবেন শেখ হাসিনা। ভারতের স্টেটসম্যান পত্রিকার মতো বলতে হয়, ইতিহাসের সঙ্গে কী এক নিষ্ঠুরতা! কী দম্ভ! কী অহংকার!

আওয়ামীপন্থী একচিলতে বুদ্ধিজীবী বেরিয়েছেন, নির্বাচন কমিশন যে ৪০ শতাংশ ভোটারের উপস্থিতির কথা বলেছেন, সেটাকে প্রমাণ করতে তাঁরা তত্ত্বতালাশ করতে শুরু করেছেন। জানিপপ, ব্রতীসহ দেশের যে দুই-চারটি নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংগঠন কাজ করছে, তাদের উদাহরণ দিয়ে সংখ্যাতত্ত্ব চালু করেছেন। তাঁরা বুঝিয়েই ছাড়বেন, আসলেই ৪০ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছিল।

আওয়ামী লীগের মূল নেতৃত্ব কি এ রকম মনে করেন, আমার মনে হয় না। আমি দেখতে পাচ্ছি, আওয়ামী লীগ এ বিতর্কের মধ্যে যেতে চাইছে না। কারণ তারা এই প্রহসনের আগে বলেছিল, এটা একটা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা। প্রধানমন্ত্রীসহ দু্-একজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী বলেছিলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে কথা শুরু হতে পারে। তার অর্থ কী দাঁড়ায়? এই তথাকথিত নির্বাচন নিয়ে দাবি করার মতো কিছু নেই। তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, ‘নির্বাচনী কেন্দ্রে ভোটার আসেনি। অবিলম্বে আরেকটি নির্বাচন করতে হবে।’ কেবল তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘পাঁচ বছরের জন্য এ সরকার থাকবে।’ আর যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এ সরকার কত দিন টিকবে, সেটা নির্ভর করবে রাজনৈতিক বাস্তবতার ওপর।’ ওবায়দুল কাদের বরাবরই একটি যুক্তির রেখায় দাঁড়িয়ে থাকতে চান।

কিন্তু যুক্তিহীনভাবে যদি রাজনীতি পরিচালিত হয়, তবে যুক্তির রেখা সরে যেতে যেতে একসময় মিলিয়ে যায়। আওয়ামী লীগকে কথাটা বুঝতে হবে। ক্ষমতার মদমত্ততায় যতই তারা গা ভাসিয়ে দিক না কেন, যদি ধরে নিই পাঁচ বছর, পুরো টার্মেই এ সরকার ক্ষমতায় থাকবে, তাহলে আওয়ামী লীগ আর আওয়ামী লীগ থাকবে না। আওয়ামী লীগ নিশ্চয়ই ক্ষমতায় থাকাটাকে তার মুখ্যলাভ বলে মনে করে না। নাকি করে? বলা মুশকিল। যেভাবে তারা এ নির্বাচন প্রহসন করল, তাতে প্রশ্নটা তোলা যায়।

আফটার অল, রাজনীতির শেষ প্রশ্ন হচ্ছে রাষ্ট্রক্ষমতার প্রশ্ন। কিন্তু তার মানে এই নয়, ক্ষমতাই রাজনীতির শেষ কথা। রাজনৈতিক দল রাজনীতির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়। তার ওপর দাঁড়িয়ে থাকে, পথ চলে। এ জন্য রাজনৈতিক দল আর ক্লাব এক কথা নয়।

গত ১২ জানুয়ারি যে নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হলো, সেটা নিয়েও দেশ-বিদেশে বিতর্ক আছে। এমপিদের শপথ গ্রহণ করা নিয়ে যে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছিল, তাকে সরকার যুক্তিসংগত কারণ না দেখিয়ে অস্বীকার করেছে। এর ওপর আদালতে রিট হয়েছে। শুনেছি, আরো রিট হবে। এই নবগঠিত সরকারের জন্য এটি একটি বিরাট দুর্বলতা, এক একটা ডুবোচর। কিন্তু তা সত্ত্বেও এটাই বাস্তবতা। বাস্তবতাকে অস্বীকার করা যাচ্ছে না যে, দেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি সরকার প্রতিষ্ঠিত আছে, যার বৈধতা নিয়েই প্রশ্ন আছে। এ সরকারকে অবৈধ বলেও দেশের প্রধান বিরোধী দলের নেতা খালেদা জিয়া তাঁকে সংলাপ অনুষ্ঠানের জন্য আহ্বান জানাচ্ছেন। পত্রপত্রিকা, সিভিল সোসাইটির নেতারা এই সরকারের কাছে ভবিষ্যৎ সমাধানের জন্য প্রস্তাব তুলে ধরেছেন। কিন্তু সরকার বা আওয়ামী লীগ কি সে জায়গায় আছে?

দুটি বিষয় তুলে ধরব। এক. নতুন ২৮ জনসহ ৪৯ সদস্যের এই মন্ত্রী সম্পর্কে কেউ কেউ বলেছেন, অপেক্ষাকৃত জ্যেষ্ঠ ও দুর্নীতিমুক্ত নেতাদের নিয়ে মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন শেখ হাসিনা। বিশেষ করে যেসব মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য গত পাঁচ বছরে অস্বাভাবিক সম্পদের মালিক হয়েছেন, বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে লিপ্ত ছিলেন, তাঁদের নেওয়া হয়নি।

কথাটি কি ঠিক? যে মন্ত্রীদের বাদ দেওয়া হয়েছে, তাঁদের কারো কারো চেয়ে অধিকতর দুর্নীতিবাজ মন্ত্রীরা বহাল আছেন। বিগত সময়ে ক্ষমতায় থাকাকালে পরিবেশ ও সাধ্যমতো দুর্নীতি করে অনেকে টাকা কামিয়েছেন, তাঁদের কেউ কেউ নতুন মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পেয়েছেন, এ অভিযোগ দলের মধ্যেই আছে। নাম ধরে ধরে বলা শোভন নয়। কিন্তু পত্রিকার শেখ হাসিনার যুক্তিহীন অনুগতদের এ দাবি যথার্থ নয়। তাঁরা কি আমার সঙ্গে তর্ক করবেন? বলবেন যে, সত্যি সত্যি দুর্নীতিবাজদের বাদ দেওয়া হয়েছে? তার মানে আবুল হোসেনদের পরও যে ৩৬ জন এবার বাদ পড়েছেন, তাঁরা সবাই দুর্নীতিবাজ? এই ৩৬ জন দুর্নীতিবাজ মন্ত্রীকে শেখ হাসিনা পাঁচ বছর ধরে লালন-পালন করেছেন? পাঠকদের নিশ্চয়ই মনে আছে, পাঁচ বছর আগে মন্ত্রিসভা গঠনের পর শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘আমার মন্ত্রিসভার দিকে কেউ আঙুল তুলতে পারবে না। একজনও দুর্নীতিবাজ নেই এখানে।’ এখন কী বলবেন তাঁরা? পাঁচ বছর মন্ত্রী থাকার কারণে তাঁরা দুর্নীতিবাজ হয়ে গেছেন? নাকি তাঁরা আগে থেকে দুর্নীতিবাজ ছিলেন, শেখ হাসিনা বুঝতে পারেননি। শেখ হাসিনা কি বুঝতে পেরেছেন যে তখন তিনি বোঝেননি? এখন কি তিনি বোঝেন? রাজনৈতিক দলের জন্য এই নৈতিকতার মান বজায় রাখা, অন্তত বজায় রাখতে সক্রিয় থাকতে দেখা জরুরি।

দুই . ৫ জানুয়ারির ‘নির্বাচন’ আওয়ামী লীগের নৈতিকতার নূ্যনতম ভিত্তিকে ধসিয়ে দিয়েছে। ভারতের ‘দ্য স্টেটসম্যান’ সেটাই লিখেছে। পরবর্তী ধস হলো বিরোধী দল নির্বাচনে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যে নাটক করলেন, আওয়ামী লীগ যে রকম করে সেই নাটকের মঞ্চ ও অভিনয় নির্দেশনা দিলেন, তা সংসদীয় গণতন্ত্রের আরেক কলঙ্ক। এই দুই কলঙ্কের টিকা আওয়ামী লীগের কপালে অনেক দিন থাকবে। বিস্তারিত লেখার অবকাশ আছে বলে মনে করি না। সংসদীয় গণতন্ত্রে সরকারি দল থাকবে, বিরোধী দলও থাকবে। সেই প্রচলিত স্বতঃসিদ্ধ ব্যবস্থাকে জবাই করে দিলেন শেখ হাসিনা। বিশ্বের সেরা নাটকবাজ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ হলেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত। আর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এরশাদের স্ত্রী রওশন হলেন সংসদের বিরোধী দলের নেতা। রওশনের পরিচালিত জাতীয় পার্টির চারজন হচ্ছেন এ সরকারের মন্ত্রী। সংসদীয় গণতন্ত্রের সঙ্গে এত বড় নিষ্ঠুরতা আর কেউ করেনি।

আমি শুনেছি, প্রধানমন্ত্রী এখন তাঁর নিজের বিজয়ে উল্লসিত। অনেকটা নিজের প্রতিভায় নিজেই মুগ্ধ। তাঁর চারদিকে স্তাবকরা প্রতিনিয়ত হয়তো এটাই বলছেন। কিন্তু এ নিষ্ঠুর রসিকতায় সত্য মারা যাচ্ছে। রাজনীতির সত্য সৌন্দর্য।

লেখক : নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক
(কালের কণ্ঠ)

Print Friendly, PDF & Email