CC News

বলিউডের নায়ক এখন দিল্লির রাজপথে

 
 

image_73615_0ঢাকা: বলিউডের এক সময়কার সাড়া জাগানো চলচ্চিত্র- নায়ক। চলচ্চিত্রটির মূল আকর্ষণ ছিলেন অভিনেতা অনিল কাপুর, যিনি এক সপ্তাহের জন্য মূখ্যমন্ত্রী হন রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য। মূখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরপরই তিনি আদাজল খেয়ে উঠে পড়ে লাগেন সকল প্রকার দুর্নীতির বিপক্ষে। ছবিতে দেখা যায়, অনিল কাপুর ব্যস্ততার কারণে রাজপথের মোড়েই অফিসের ফাইল পত্রাদি নিয়ে বসে গেছেন। সেখান থেকেই চালিয়ে যেতে শুরু করেছেন রাষ্ট্র পরিচালনার কাজ।

বর্তমানে ভারতের রাজনীতিতে সেই অনিল কাপুরের জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন আম আদমি পার্টি প্রধান- অরবিন্দ কেজরিওয়াল। মাস খানেক আগে বিধানসভা নির্বাচনে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক আসন পেয়ে এবং পরবর্তীতে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধে দিল্লির মসনদে বসেন তিনি। আর মসনদে বসেই তিনি আদকা খেপে উঠলেন রাষ্ট্রের শাসনকাঠামোর অংশীদার- খোদ পুলিশের বিরুদ্ধে। দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনে কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত না করায়, গত সোমবার থেকে তিনি শুরু করেছেন এক অবস্থান কর্মসূচী, যাকে বলা হচ্ছে- ধর্না। ধর্না থেকে ইতোমধ্যেই টানা দশ দিনের কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়েছে।

ধর্না কর্মসূচির ইতোমধ্যে এক রাত অতিবাহিত হয়ে গেছে। এরই মধ্যে নিজের অবস্থান থেকে নড়েননি কেজরিওয়াল। শীতের মধ্যে সারারাত রাস্তায় ঘুমিয়ে, ভোরে শিশিরে ভিজে, তিনি চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিবাদ কর্মসূচি। মজার বিষয় হচ্ছে, এই ধর্না কর্মসূচির মধ্যে ঠিক অনিল কাপুরের কায়দায় তিনি চালিয়ে যাচ্ছেন রাষ্ট্র পরিচালনার সকল কাজ। একের পর এক ফাইল দেখছেন, দিচ্ছেন প্রয়োজনীয় নির্দেশ।

মঙ্গলবার সকালে দাপ্তরিক কাজের পাট গোছানোর পরই, কেজরিওয়াল তার মন্ত্রীসভার ছয় সদস্য ও আম আদমিকে নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুশীল ‍কুমার সিন্ধের কার্যালয়ের দিকে রওনা দেন। কারণ কেজরিওয়ালের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় সরকার কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। সচিবালয়ের পথে ইন্ডিয়া গেটের কাছে, পুলিশি বাধার মুখে পড়েন আম আদমি প্রধান ও অন্যেরা। এসময় পুলিশ ও আম আদমি সমর্থকদের মধ্যে বাঁধে সংঘর্ষ। পুলিশ লাঠিচার্জ করে সমাবেশ ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সিন্ধের কার্যালয়ের সামনে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।

ইন্ডিয়া গেটের ধারে এ সময় প্রতিবাদকারীদের ছোড়া পাথরের আঘাতে একজন পুলিশ সদস্য আহত হন। যদিও আম আদমি নেতাদের দাবি, তাদের সমাবেশে অন্য পার্টির সদস্যরা এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে। অন্য পার্টির সদস্যরা কেন তাদের এই সমাবেশে এসে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করবে, এমন প্রশ্ন করা হলে তার কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি।

তবে এ সময় কর্মসূচির সময়কাল সম্পর্কে কেজরিওয়াল বলেন, ‘আমি বলেছি দশ দিন, কিন্তু প্রতিবাদ একটি চলমান প্রক্রিয়া। যদি কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের দাবি ২৬ জানুয়ারির মধ্যে মেনে না নেয়, তাহলে পুরো রাজপথ আমরা লাখো মানুষের কলরবে ভরে দেবো।’

Print Friendly, PDF & Email