CC News

বিয়েতে বয়স প্রমাণের সনদ বাধ্যতামূলক

 
 

balloসিসি ডেস্ক: এখন থেকে যে কোন বিয়েতে বর-কনের বয়স প্রমাণ করতে জন্ম নিবন্ধন, জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট বা এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার সনদ দাখিল করতে হবে। ওইসব দলিলের ভিত্তিতে বয়স নিশ্চিত হয়ে নিবন্ধনকারী বিয়ে সম্পন্ন করবেন।

কোন শিশু বা নাবালিকাকে বিয়ে করলে বিবাহকারীকে দুই বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। প্রয়োজনে উভয়দণ্ডে দণ্ডিত করা হতে পারে।

পাশাপাশি বাল্যবিয়ের ‘কাজী’ ও সংশ্লিষ্ট অভিভাবকেরও একই শাস্তির বিধান রেখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৪ এর খসড়া চূড়ান্ত করেছে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়। প্রসঙ্গত, আইনে শিশু বা নাবালিকা বলতে ১৮ বছরের কম বয়সি মেয়েদের বুঝানো হয়েছে।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তারিক-উল-ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে বিদ্যমান আইন সংশোধন করে শাস্তি বাড়ানোসহ নতুন আইন করা হচ্ছে। শিগগিরই আইনের খসড়াটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে।

‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন-১৯২৯’ এ শাস্তির মেয়াদ বৃদ্ধি এবং আইনটি যুগোপযোগী করার তাগিদ দিয়ে গত নভেম্বরে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

প্রসঙ্গত, বিদ্যমান আইন অনুযায়ী বাল্যবিবাহ আয়োজন ও পরিচালনার জন্য একমাস পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড, এক হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয়দণ্ডের বিধান রয়েছে।

খসড়া আইনে বলা হয়েছে- বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে জাতীয়, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠন করা হবে। কমিটিতে সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের রাখতে হবে। বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে শিক্ষার্থী ও সমাজকে সচেতন করতে সকল স্তরের পাঠ্যবইয়ে বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

শিশু বিবাহের শাস্তি প্রসঙ্গে নতুন আইনে বলা হয়েছে- ২১ বছরের অধিক বয়স্ক কোন পুরুষ বা ১৮ বছরের অধিক বয়স্ক কোন নারী কোন শিশু বা নাবালকের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপনের চুক্তি করলে সেই ব্যক্তির দুই বছর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

বিবাহ পরিচালনাকারীর শাস্তির বিষয়ে খসড়ায় বলা হয়- বিবাহ পরিচালনাকারী (কাজী বা ধর্মীয় নেতা)কে প্রমাণ করতে হবে যে বিবাহটি বাল্যবিবাহ ছিল না। প্রমাণে ব্যর্থ হলে দুই বছর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমান বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

অভিভাবকের শাস্তির বিষয়ে বলা হয়- যে ক্ষেত্রে কোন নাবালক কোন বাল্যবিবাহের চুক্তি করে এবং পিতামাতা অথবা আইনানুগ বা বেআইনী যে কোন এখতিয়ারে হোক না কেন, কোন ব্যক্তি উক্ত নাবালকের উপর কর্তৃত্ব সম্পন্ন হয়ে বিবাহকার্য  সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে কোন কাজ করলে বা সম্পন্ন করার অনুমতি দিলে বা স্বীয় অবহেলার জন্য বিবাহ বন্ধ করতে ব্যর্থ হলে তিনি দুই বছর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমান বা উভয়দণ্ড দণ্ডিত হবেন।

আইনের অধীনে আদায়কৃত অর্থের তিনভাগের দুইভাগ ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষ পাবে। আদালত অর্থদণ্ড প্রদানের ক্ষেত্রে বাল্যবিবাহের ফলে ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষের শারীরিক, মানসিক ও সামাজিক ক্ষতির পরিমান বিবেচনা করবেন।

আইন লঘন করে বাল্যবিবাহ দেওয়ার চেষ্টা করা হলে আদালত আইনের ৩, ৪, ৫ ও ৮ ধারায় ওই বিয়ের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারবে।

জানা গেছে, আইনি দুর্বলতার কারণেই ঠেকানো যাচ্ছে না বাল্যবিবাহ। এ কারণে এটি দিনদিন ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে সমাজে। জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে বাল্যবিবাহের হার সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশে। ১৮ বছর হওয়ার আগে বাংলাদেশে ৬৪ শতাংশ নারীর বিয়ে হয়। গ্রামে এই হার ৭১ এবং শহরে ৫৪ শতাংশ। আবার বাংলাদেশের অন্য এলাকার চেয়ে রাজশাহী বিভাগে সবচেয়ে বেশি বাল্যবিবাহ হয়ে থাকে। এ হারের পরিমাণ ৬০ শতাংশ।

সম্প্রতি ইউনিসেফ প্রকাশিত বিশ্ব শিশু পরিস্থিতি শীর্ষক এক প্রতিবেদনে বাল্যবিবাহের চারটি মূল কারণ উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলো হলো: অতিরিক্ত টাকার লোভে বয়স বিবেচনা না করেই কাজীদের বিয়ে রেজিস্ট্রি করা, ভুয়া বয়স সার্টিফিকেট তৈরি করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে বিয়ে রেজিস্ট্রি, এফিডেভিট করে বয়স বেশি দেখিয়ে বিয়ে রেজিস্ট্রি এবং বখাটেদের উৎপাতের কারণে পরিবারের সদস্যদের তাড়াতাড়ি বিয়ে দেয়ার উদ্যোগ।

Print Friendly, PDF & Email