CC News

খোলস পাল্টাচ্ছে জামায়াত

 
 
Jamatসিসি নিউজ: টানা প্রায় দু’বছরের সহিংস আন্দোলনে দলের গায়ে এটে বসা জঙ্গি তকমা মুছে এবার নতুন ব্যানারে ঘুরে দাঁড়াতে চায় জামায়াত। দেশের মানুষের আস্থা অর্জনের পাশাপাশি বহির্বিশ্বে নিজেদের দুর্নাম ঘুচিয়ে ফিরে আসতে চায় ভোটের রাজনীতিতে। তাই মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের নেতৃত্ব থেকে বাদ দেয়া ও দলের নাম পরিবর্তনসহ বেশকিছু কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সক্রিয় হয়েছে মধ্যপন্থী হিসেবে পরিচিত জামায়াতের একটি অংশ।
সূত্র মতে, যুদ্ধাপরাধ ও জঙ্গিবাদের কালিমা ঘোচাতে নেতৃত্বের পরিবর্তন আনা হচ্ছে কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারণী ফোরাম কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় কর্ম পরিষদ ও মজলিসে শুরায়। নতুন নেতৃত্বে আনা হচ্ছে ‘ক্লিন ইমেজের’ নেতাদের। আন্দোলন কর্মসূচিসহ সব ধরনের সাংগঠনিক তৎপরতায় ব্যাপক পরিবর্তনের চিন্তাভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া তৃণমূল পর্যায়ে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষা এবং হতাশ নেতাকর্মীদের ধরে রাখতে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে দলটি।
জানা গেছে, রাজনৈতিক নির্বাচন না হলেও সম্ভাব্য প্রতিটি উপজেলাতেই স্থানীয় নেতারা প্রার্থী হবেন। নির্ধারিত সময়ে দলীয়ভাবে অনানুষ্ঠানিক প্রচারণাও চালাবেন। তবে এর আগে টানা প্রায় একমাস নিজ নিজ এলাকার ভোটারদের আস্থা অর্জনে কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সর্বোচ্চ তৎপর থাকবেন স্থানীয় শীর্ষ নেতারা। এ সময় তারা বিগত কয়েক মাস ধরে চলমান নাশকতায় জনগণের মনে দাগ কেটে বসা গভীর ক্ষত মুছে ফেলার চেষ্টা করবেন।
জামায়াত-শিবির সূত্র মতে, তাদের কয়েক হাজার নেতাকর্মী এখন কারারুদ্ধ। মামলা হয়েছে কয়েক লাখের বিরুদ্ধে। জেলা উপজেলাসহ কেন্দ্রীয় নেতারাও এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বিজ্ঞপ্তি আর ইমেইল বার্তার মাধ্যমে কর্মসূচি ঘোষণা করছেন নেতারা। এ অবস্থায় অনেকটা গোপন দলে পরিণত হয়েছে দলটি।
এ ছাড়াও জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার জন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার উঠেপড়ে লেগেছে। গত টার্মে নানাভাবে কালক্ষেপণ করা গেলেও এবার সে সুযোগ না পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে দলকে নতুন মোড়কে ঢেলে সাজানো জরুরি বলে মনে করছেন দলীয় হাইকমান্ড।
তাদের আশঙ্কা, দীর্ঘমেয়াদি সহিংস আন্দোলনের যে নেতিবাচক প্রভাব দলের ওপর পড়েছে তা সহজে কাটিয়ে ওঠা কঠিন। যুদ্ধাপরাধী ও মৌলবাদী জঙ্গি গোষ্ঠীর তকমাধারী দলে তরুণ প্রজন্মকে আকৃষ্ট করাও প্রায় অসম্ভব। তাই দলকে টিকিয়ে রাখতে এখন সাংগঠনিক কাঠামো ও আন্দোলন কর্মসূচিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনতে হবে।
দলটির একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে, মধ্যপন্থী অংশটি একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতার কারণে ঐতিহাসিক লজ্জা থেকে মুক্ত হতে চায়। মধ্যপন্থা বা উদার নীতিকৌশল গ্রহণে আগ্রহী এ অংশটির বেশির ভাগ অপেক্ষাকৃত তরুণ এবং একাত্তরের পরের প্রজন্ম। তারা মুক্তিযুদ্ধের প্রতি মানুষের আবেগ, মানবতাবিরোধী অপরাধে নেতাদের সাজা ও ইসলামপন্থী রাজনীতির বিশ্ব প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিয়ে আধুনিক ধাঁচের দল গড়ার পক্ষে। প্রয়োজনে দলের নাম পরিবর্তনেও তাদের আপত্তি নেই।
তবে দলের প্রথম সারির একজন নেতা এসব পরিকল্পনার কথা অস্বীকার করে বলেন, জামায়াতের নেতৃত্ব ও পুনর্গঠন সবসময়ই গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক পন্থায় হয়ে থাকে। সময়ানুযায়ী নিয়মতান্ত্রিকভাবেই সব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তাই দলের বিশেষ কোনো গ্রুপের পরিকল্পনায় সাংগঠনিক কার্যক্রমে পরিবর্তন আনার প্রশ্নই আসে না। এ ছাড়া জামায়াত নাম পরিবর্তন করছে বলে রাজনৈতিক অঙ্গনে যে গুঞ্জন উঠেছে তা স্বার্থান্বেষী বিশেষ মহলের অপপ্রচার বলে দাবি করেন দায়িত্বশীল ওই নেতা।
জামায়াতের অন্য একটি সূত্রের দাবি, গত কয়েক মাসে রাজনৈতিক আন্দোলনে যোগ দিতে গিয়ে তাদের বিপুলসংখ্যক নেতা হতাহত ও গ্রেপ্তার হয়েছেন। আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারী বেশকিছু নেতাকে সরকার ধাওয়ার ওপর রেখেছে। তাই আগামীর আন্দোলন জোরদার করতে মাঠ পর্যায়ের বিভিন্ন কমিটিতে নেতৃত্বের শূন্যতা পূরণ করা হচ্ছে। যা পুরোপুরি দলের গঠনতন্ত্র মেনেই করা হবে।
যদিও জামায়াত-শিবিরের খোলস পাল্টানোর নানামুখী কৌশল এরই মধ্যে ফাঁস হয়ে গেছে। বিশেষ করে তাদের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এলাকাগুলোয় দলের নেতাকর্মীদের জঙ্গি তকমা মুছে ফেলার নানামুখী তৎপরতা অনেকেই জেনে গেছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে সরকারকে সতর্ক করেছে। গোয়েন্দারা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘জামায়াত খোলস পাল্টে জনগণের সঙ্গে মিশে ভয়ঙ্কর কোনো মিশন সফল করার তালে রয়েছে।’
এদিকে গত প্রায় এক বছর ধরে আন্দোলনের নামে একের পর এক নাশকতার ঘটনা ঘটিয়ে বহির্বিশ্বে নিজেদের ‘সন্ত্রাসী দল’ হিসেবে পরিচিত করে তুললেও সম্প্রতি তাদের ‘গুডলিস্টে’ তালিকাভুক্তির নানামুখী তৎপরতায় কূটনীতিক মহলে উদ্বেগ ছড়িয়েছে। তাদের অনেকেই দলের এ আকস্মিক পরিবর্তনকে সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখছেন। কূটনীতিকদের আশঙ্কা, জামায়াত খোলস পাল্টে ভিন্ন ব্যানারে জঙ্গি তৎপরতা চালালে তাদের নতুন করে চিহ্নিত করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেকটা সময় লাগবে। আর এ ফাঁকে তারা আন্তর্জাতিক জঙ্গি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলবে। যা বাংলাদেশের পাশাপাশি বহির্বিশ্বের জন্য উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।
জানা গেছে, জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক সমপ্রতি মালয়েশিয়াসহ কয়েকটি দেশ সফর করেছেন। এ ছাড়া জামায়াত ও শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত সাবেক ও বর্তমান অনেক নেতা এখন আমেরিকা, লন্ডন, কানাডা, মালয়েশিয়া, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে অবস্থান করে বোঝানোর চেষ্টা করছেন, জামায়াত জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। দলকে কোণঠাসা করে রেখে বিশেষ ফয়দা লোটার ধান্ধায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার এ অপপ্রচার চালাচ্ছে। নাশকতার অধিকাংশ ঘটনা আওয়ামী লীগই ঘটিয়েছে বলেও তারা দাবি তুলেছে।
রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, দলের নাম পরিবর্তন নিয়ে জামায়াতের মধ্যপন্থী ও কট্টরপন্থী নেতারা ভিন্নমুখী বক্তব্য দিলেও তারা সাংগঠনিকভাবে সংঘবদ্ধ রয়েছেন। মূলত জনগণকে দ্বিধা-বিভক্ত রাখতেই তারা এ কৌশল নিয়েছেন।
পর্যবেক্ষকদের ভাষ্য, জামায়াতকে এতদিন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করলেও এখন তাদের সে চাহিদা ফুরিয়ে গেছে। সরকার বিরোধী আন্দোলনে জামায়াতকে নাশকতার কাজে লাগিয়ে বিএনপি দেশে-বিদেশে সমালোচনার মুখে পড়ায় এরই মধ্যে নিজেদের অনেকটা গুটিয়ে নিয়েছে। অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশাল সমর্থন ধরে রাখতে আওয়ামী লীগও এখন যুদ্ধাপরাধের তকমাধারী দল জামায়াতের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধার ঘোর বিরোধী। বরং ধর্মভিত্তিক এ দলকে মৌলবাদী জঙ্গি সংগঠন ও সন্ত্রাসী দল হিসেবে আখ্যা দিয়ে তা নিষিদ্ধ করার তালে রয়েছে। তাই সঙ্কটময় এ পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে জামায়াত নাম পাল্টে আগেভাগেই ‘সেভ সাইডে’ চলে যাওয়ার চেষ্টা করছে। যাতে ভোটের রাজনীতিতে তারা সক্রিয় অংশ নিতে পারে।
আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে জানা গেছে, আদালতের রায় পক্ষে নিয়েই জামায়াত-শিবিরকে নিষিদ্ধ করতে চায় সরকার। এজন্য আটঘাট বেঁধে নামা হচ্ছে যেন, ভবিষ্যতে আইনি বা অন্য কোনো জটিলতায় মাথা তুলে না দাঁড়াতে পারে মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র বিরোধিতাকারী এবং পঁচাত্তর পরবর্তী যাবতীয় মৌলবাদী-সামপ্রদায়িক ও রাজনৈতিক সন্ত্রাস সৃষ্টির মূল অপশক্তি দলটি।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, সরকার জামায়াতকে এখন আর রাজনৈতিক দল বলে গণ্য করছে না। একে এখন সন্ত্রাসী সংগঠন বা জঙ্গিবাদী সংগঠন বলেই ধরা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এবং হাইকোর্টের রায়েও জামায়াতকে সন্ত্রাসী সংগঠন বলা হয়েছে। তাই জামায়াত নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তটিও সরকার আদালতের রায়ের মাধ্যমে আসার অপেক্ষা করছে। আদালত নিষিদ্ধ করতে বললে সরকারও দেরি করবে না।
তবে দেশের বিশিষ্ট আইনজীবীরা আগে থেকেই বলে আসছেন, বর্তমান সংবিধান ও প্রচলিত আইন অনুযায়ীই একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াত ও তাদের ছাত্র সংগঠন ছাত্রশিবিরকে নিষিদ্ধ করা যায়। এজন্য সংবিধান সংশোধন বা নতুন আইন করার প্রয়োজন নেই। তাদের মতে, জামায়াত নিষিদ্ধের ব্যাপারে উচ্চ আদালতে একটি রিট আবেদন শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। এ অবস্থায়ও সরকারের নির্বাহী আদেশে জামায়াতকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা সম্ভব।
এ প্রসঙ্গে সরকারের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সরকার কোনো ঝুঁকি নেবে না। নির্বাহী আদেশে নিষিদ্ধ করা হলে পরবর্তীতে জামায়াতবান্ধব কোনো সরকার ক্ষমতায় এলে অন্য একটি নির্বাহী আদেশে তাদের রাজনীতি করার অধিকার ফিরিয়ে দিতে পারে। যেমনটি হয়েছিল, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর সরকার যুদ্ধাপরাধী জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করলেও জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে সংবিধান সংশোধন করে তাদের রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসন করেছিলেন। সেক্ষেত্রে আদালতের রায় ও আদেশ থাকলে তার আলোকে জামায়াত নিষিদ্ধ হলে ভবিষ্যতে সেটি কেউ রদ করতে পারবে না। তাই সরকার সে সময়ের অপেক্ষাতেই রয়েছে।
এ ব্যাপারে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, সরকারের নির্বাহী আদেশে জামায়াতকে নিষিদ্ধ করায় আইনগত বাধা নেই। তবে আদালতের রায়ের আলোকে বিষয়টির সমাধান করা হলে তা স্থায়ী রূপ পাবে।
এদিকে প্রশাসনের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, দু’দিন আগে-পরে যখনই জামায়াতকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হোক না কেন দলের নেতাকর্মী ও সশস্ত্র ক্যাডাররা যাতে অন্য ব্যানারে ভিড়ে সহিংসতার ভয়ঙ্কর স্বরূপে ফিরে আসতে না পারে সে ব্যাপারে সরকার আগাম সতর্ক রয়েছে। এ জন্য দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে সহিংস আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী কর্মীদের ‘প্রোফাইল’ সংগ্রহে রাখা হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনকে তাদের গতিবিধি নজরে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সন্দেহজনক কিছু দৃষ্টিগোচর হওয়ামাত্র ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলা হয়েছে।
উৎসঃ   যায়যায়দিন
Print Friendly, PDF & Email