CC News

চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্তে গতি নেই

 
 
Mamla-2
সিসি ডেস্ক: আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে নিয়োজিত পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নে। বিরোধীদলবিহীন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। দেশের শহর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে শুরু হয় সরকারবিরোধী আন্দোলন। এই আন্দোলনকে কেন্দ্র করে শুরু হয় সরকারের অসহনীয় রাজনৈতিক দমন পীড়ন।

১৮ দলীয় নেতাকর্মীরা এই রাজনৈতিক দমন পীড়নের শিকার হচ্ছেন। নির্বাচনী সহিংসতা ও হরতাল অবরোধের সময় বিভিন্ন স্থানে মামলা দায়ের করা হয়। নামে বেনামে আসামীদের বিরুদ্ধে এসব মামলায় করা হয়েছে। আসামীদের ধরতে হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত প্রশ্নবিদ্ধ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক সহিংসতা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। ফলে রাজনৈতিক হাঙ্গামা বেড়ে যাওয়ায় পুলিশকে বাড়তি দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে রাজনৈতিক সফরসূচী বাস্তবায়নে সরকারকে নিরাপত্তার জন্য বিপুল পরিমাণ পুলিশ সদস্য মোতায়েন করতে হচ্ছে। ফলে পুলিশের রুটিন কাজে ভাটা পড়েছে। পুলিশ বাহিনী  রুটিনের বাইরে সরকারের নির্দেশমতো ব্যস্ত থাকায় থেমে আছে দেশের চাঞ্চল্যকর মামলাগুলোর তদন্তের গতি।

গত এক বছরে আলোচিত সহস্রাধিক মামলার কূলকিনারা খুজে পাচ্ছে না পুলিশের তদন্ত বিভাগ। অনেকটা ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে মামলার ভবিষ্যৎ। ফলে তৎপর হয়ে উঠেছে অপরাধী ও পেশাদার সন্ত্রাসীরা। বাড়ছে নানা ধরনের অপরাধ ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড। সম্প্রতি ঢাকায় সিক্স মার্ডার, মিরপুরে দুই জন আবাসন ব্যবসায়ী ও রেলওয়ে কর্মচারী হত্যাসহ একাধিক চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্তে গতি নেই বললেই চলে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তুলে বিচারের কাঠগড়ায় দাড় করানো হয়েছে দাবি করে জামায়াত-শিবির রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে সর্বাত্মক আন্দোলন চালায়। সরকার বিরোধী ভূমিকায় অবতীর্ণ এই আন্দোলনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

তাছাড়া নিদর্লীয় সরকারের অধীনে ১৮ দলীয় জোটের অবরোধ ও হরতালের সময় যানবাহন ও পুলিশের গাড়িতে হামলা ঘটনা ঘটে। এছাড়া গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে ঘিরে সারাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

দুই শতাধিক বাড়ি ও দোকানে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ এবং লুটপাট চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এসব ঘটনায় জড়িতদের ধরতে গলদঘর্ম পুলিশ।

এসব ঘটনায় এখন সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরের নিরাপত্তা ও ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পাহাড়ায় পুলিশ টহল দিয়ে যাচ্ছে। অনেক পুলিশ সদস্যের ছুটি পর্যন্ত বাতিল করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে হত্যাকাণ্ড থেকে শুরু করে মামলা ও সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা জোরদার ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে চাঞ্চল্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ কোনো মামলার তদন্ত কাজ এগিয়ে নিতে পারছে না আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।

গত এক বছরে সারা দেশে সহস্রাধিক আলোচিত মামলা হয়েছে। তার মধ্যে সিক্স মার্ডার, অপহরণ, পুলিশের ওপর হামলা, থানায় অগ্নিসংযোগ মামলা রয়েছে।

সূত্র জানায়, থানায় একটি মামলা দায়েরের পর সংশ্লিষ্ট থানার ওসি-সাব ইন্সপেক্টর পর্যায়ের একজন কর্মকর্তাকে তদন্তকারী অফিসার হিসেবে নিয়োগ দেন। এরপর ওই কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে গিয়ে একটি খসড়া মানচিত্র-সূচি তৈরি করেন এবং বাদী ও সাক্ষীদের প্রাথমিক সাক্ষ্য ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬১ ধারায় গ্রহণ করেন। তাছাড়া ইতিপূর্বে বিভিন্ন মামলায় তাদের আসামীদের নিয়মিত হাজিরাও দিতে হয়।

সম্প্রতি রাজনৈতিক দমনপীড়ন ও সহিংসতার ঘটনায় মামলার পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় এখন আরও ১৫-২০টি মামলার তদন্ত করতে হচ্ছে ওই কর্মকর্তাদের।

এসব কর্মকর্তাদের দাবি, নতুন মামলা হলো আমাদের জন্য এখন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। প্রতিটি মামলার অগ্রগতি (সিডি) সপ্তাহে সপ্তাহে সংশ্লিষ্ট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনারকে (এসি) জানাতে হয়। ওই সিডিতে সন্তুষ্ট না হলে সহকারী কমিশনার (এসি) অফিস থেকে তা ফেরত পাঠানো হয়। অনেক সময় মামলার চার্জশিট দাখিলের পর পিপি অফিস থেকেও তদন্ত রিপোর্ট ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়। এভাবেই শুরু মামলার জট। এভাবেই মামলার তদন্তের কাজে দীর্ঘসূত্রতার সৃষ্টি হচ্ছে বলে দাবি তৃণমূল পুলিশ কর্মকর্তাদের।

এসব কারণে একসঙ্গে একাধিক মামলার তদন্ত করতে গিয়ে লেজেগোবরে অবস্থা হয়েছে পুলিশের। এর ফলে অনেক ক্ষেত্রে দুর্বল চার্জশিট দাখিল করতে বাধ্য হচ্ছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। দুর্বল প্রতিবেদনের কারণে সঠিক বিচার না পাওয়ার আশংকা করছেন ভুক্তভোগীরা।

তাছাড়া সরকারবিরোধী ১৮ দলীয় জোটের হরতাল অবরোধে অগ্নিসংযোগ, যানবাহন ভাংচুর, বোমা হামলা ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় থানায় মামলা হলেও কজের কাজ হচ্ছে না কিছুই।

একদিকে মামলার সংখ্যা বাড়ছে, অপরদিকে রাজনৈতিক অস্থিরতা বেড়েই চলেছে। তার পাশাপাশি সন্ত্রাসীদের আনাগোনা তো রয়েছেই। এই নিয়ে পুলিশই পড়েছে বেশি বেকায়দায়।

যেসব চাঞ্চল্যকর মামলা নিয়ে বিপাকে পুলিশ:

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ কয়েক মাসে রাজধানীতে একাধিক চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। কিন্তু এসব ঘটনার ঘাতকরা রয়ে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। কাউকেই পুলিশ গ্রেফতার করতে পারছে না। হত্যা রহস্যও থেকে যাচ্ছে অজানা।

আলোচিত গোপীবাগে একই ফ্ল্যাটে কথিত পীর লুৎফর রহমান ও তার ছেলেসহ ৬ জনকে জবাই করে হত্যা, রামপুরার নিজ বাসায় প্রবীণ ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমদকে খুন, উত্তর বাড্ডার রাজমিস্ত্রী ফারুক ও নির্মাণ শ্রমিক মিলন এবং রামপুরায় পুলিশ কর্মকর্তা ফজলুল করিম খান হত্যাকাণ্ড, মিরপুরে দুই আবাসন ব্যবসায়ী খুন এবং  রেলওয়ের কর্মকর্তা খুনের কোনো কূলকিনারা হয়নি।

ঢাকার বাইরেও একই অবস্থা রয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা  হত্যা ও তাদের উপর হামলার ঘটনায়ও দায়ের করা মামলার তদন্ত কাজের অগ্রগতি হয় নি।

এই ব্যাপারে পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার বলেন, আমি মনে করি রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে মামলার তদন্ত করতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তবে তদন্তের কাজে পুলিশ কর্মকর্তাদের আন্তরিকতার অভাব নেই। সারা দেশে যেসব আলোচিত মামলা রয়েছে সেগুলো দ্রুত তদন্ত করে অভিযোগপত্র দিতে বলা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ডিসি ডিবি মনিরুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড অনেক বেড়ে গেছে। ফৌজদারি অপরাধ সংঘটিত হওয়ার ফলে পুলিশের ব্যস্ততা বেড়ে গেছে। ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের ঘটনায় মামলা তদন্ত ও পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হচ্ছে। আবার জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তার ব্যবস্থাও করতে হচ্ছে পুলিশকে। এসব কারণে গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্তে গতি কম।

সূত্র: টাইম নিউজ বিডি
Print Friendly, PDF & Email