CC News

তৃণমূল গোছাতে ব্যস্ত আওয়ামী লীগ

 
 
Aha. lig Flag

সিসি নিউজ: ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের পরও দেশ-বিদেশে সরকারের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে নানা ধরনের আলোচনা-সমালোচনায় আওয়ামী লীগ। তবে সেসব নিয়ে ভাবছে না দলটি, এখ তারা তৃণমূল গোছাতেই ব্যস্ত। তৃণমূলকে শক্তিশালী করে ঘুরে দাঁড়াতে চায় আওয়ামী লীগ।

পর্যবেক্ষক মহল সরকারের সমালোচনা করে বলছেন, আদৌ এই সরকার টিকবে তো? আন্তর্জাতিকভাবে এই নির্বাচন গ্রহণযোগ্যতা পাবে তো? এসব প্রশ্ন-গুঞ্জনকে উড়িয়ে দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বলছেন, নির্বাচন নিয়ে দেশ-বিদেশে কোনো চাপ নেই। ইতিমধ্যেই নবনির্বাচিত সরকারকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ অভিন্দন ও সার্বিকভাবে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে।

সুত্রমতে, দেশ-বিদেশের নানা চাপ ও বিতর্ক সামলাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে সরকার। বিএনপি-জামায়াতসহ সরকার বিরোধীদের আন্দোলন ঠেকাতেও তৎপর রয়েছে আওয়ামী লীগ।

দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা মনে করছেন, আওয়ামী লীগের তৃণমূল সক্রিয়ভাবে মাঠে থাকলে বিএনপিসহ সরকারবিরোধীরা আন্দোলন জমাতে পারবে না। এজন্য তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে থাকা হতাশা দূর করে তাদের মনোবল চাঙ্গা করার জন্য বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র।

জানা গেছে, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘুদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ কার্যালয়, নেতাকর্মীদের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করেছে সরকারবিরোধীরা। এমনকি জামায়াত শিবিরের হামলায় আতঙ্কিত হয়ে অনেকেই এলাকা ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছেন ঢাকায়। নির্বাচনের পর দশম সংসদের শপথ হলেও আতঙ্ক কাটছে না বিরোধীদের হাতে হামলা-নির্যাতনের শিকার হওয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সারির নেতাকর্মীদের। তাদের আতঙ্ক দূর করতে এবং মনোবল চাঙ্গা করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলটি।

দলটির সূত্র জানিয়েছে, তৃণমূলকে চাঁঙ্গা করতে গত ১৬দিনে কার্যনির্বাহী কমিটির বেশ কয়েকটি বৈঠক করেছে দলটি। এছাড়া দলের সাংগঠনিক দূর্বলতা কাটাতে আগামী সাপ্তাহে আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট নেতারা মাঠে নামতে যাচ্ছেন।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, চলতি বছরের মে মাসের মধ্যেই দেশের ৫৯টি জেলা এবং এর অধীভুক্ত উপজেলার কাউন্সিল শেষ করবে আওয়ামী লীগ। এজন্য আগামী সপ্তাহের শুরুতেই দেশের প্রত্যেকটি জেলাতে কেন্দ্রের নির্দেশনা পাঠানো হবে। তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে কাজের গতি ফেরাতে বেশ ঘটা করে কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। কাউন্সিল অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে সাতটি বিশেষ কমিটি করা হচ্ছে। ওই কমিটি সাত বিভাগে খোঁজখবর রাখবেন। দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায়ই সবকিছু হচ্ছে।

এ ছাড়াও দলটির তৃণমূল পর্যায়ের রাজনীতিকে চাঙ্গা রাখতে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা আরেক দফা জেলা সফর এবং জেলায় জেলায় সমাবেশ করবেন। এই সব সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতারা বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতা ও সরকার বিরোধীদের আন্দোলন ঠেকাতে নেতাকর্মীদের মাঠে থাকার আহ্বান জানাবেন।

দলটির নেতারা জানিয়েছেন, চলতি মাসেই বিএনপি-জামায়াতের সরকার বিরোধী অপপ্রচারের কাউন্টার এবং সরকারের সফলতা তুলে ধরা হবে। পাশাপাশি সভায় দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, সাংগঠনিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে। তবে সাংগঠনিক বিষয়টিই সর্বাধিক গুরুত্ব পাবে। দলের তৃণমুল নেতা-কর্মীদের নিয়ে সংগঠনকে গতিশীল, দলীয় এমপিদের সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীদের দূরত্ব কমিয়ে আনা এবং সদস্য সংগ্রহ অভিযানে গতি আনতে এই সফর কর্মসূচি নিচ্ছে দলের শীর্ষনেতারা।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, “নির্বাচন পরবর্তী যে কয়েকটি কাজে প্রাধান্য দেয়া হবে, তার মধ্যে অন্যতম হলো, দলের তৃণমূলকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করা।”

তিনি বলেন, “দুর্বল সাংগঠনিক অবস্থা থাকলে বিরোধী দলকে মোকাবিলা করা এবং আগামী নির্বাচনে মতায় আসা যাবে না।”

উৎসঃ   পরিবর্তন
Print Friendly, PDF & Email