CC News

তৃতীয় দফায় ভাঙনের পথে ওয়ার্কার্স পার্টি

 
 

Rasedসিসি ডেস্ক: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের একক সিদ্ধান্তের কারণে তৃতীয়বারের মতো দলটি ভাঙ্গনের পথে যাচ্ছে বলে কয়েকজন নেতা অভিযোগ করেছেন। দলের পদ থেকে পদত্যাগপত্র দেয়া নেতাদের অভিযোগ, ‘কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে’ মেনন এককভাবে সিদ্ধান্ত নেয়ার কারণেই এর আগে ২০০৪ ও ২০০৮ সালে দলটি ভেঙ্গে যায়। সর্বশেষ ২০১৩ সালের ১৫ ডিসেম্বর মতভেদের কারণে দলটি শেষবারের মতো ভাঙ্গনের মুখে পড়ে।

মেনন যদিও দলটির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মল্লিক এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

জানা যায়, বর্তমান সরকারে রাশেদ খান মেননের মন্ত্রীত্ব (ডাক ও টেলিযোগাযোগ) গ্রহণ, একতরফা নির্বাচনে অংশ নেয়া, আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটভুক্ত হওয়া, ২০১০ সালে রাজধানীর ভিকারুননিসা নুন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভর্তি বাণিজ্য, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে নির্ধারিত আসনের চেয়ে অতিরিক্ত এক হাজার ৮০০ শিক্ষার্থী ভর্তি করানোর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগের বিষয়টিও দল ভাঙনের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন পদত্যাগী নেতারা।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ২০১৩ সালে ১৫ ডিসেম্বর দল থেকে পদত্যাগ করা ‘রাকসুর’ সাবেক ভিপি ও ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাগিব হাসান মুন্না এটিএন টাইমসকে বলেন, আমরা যে সংশোধনের ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট করেছিলাম সেই জায়গা থেকে আওয়ামী লীগ যেমন সরে গেছে তেমনি পার্টিপ্রধান রাশেদ খান মেননও আওয়ামী লীগের চাপে দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে এককভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটভুক্ত হবার পেছনে কারণ ছিল, ’৭২ এর সংবিধান পূন:প্রতিষ্ঠা। যার মধ্যে রয়েছে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিল, পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের জাতিস্বত্তার স্বীকৃতি দেয়াসহ অন্যান্য বিষয়গুলো। কিন্তু বিগত সময়ে ওয়ার্কার্স পার্টি সরকারের ভিতরে থেকে এ বিষয়ে কোন সংগ্রামই করতে পারেনি।

জাতীয় ছাত্র আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক ও ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোজাম্মেল হক তারা বলেন, আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সিদ্ধান্ত হয়েছিল সবাই নির্বাচনে অংশ নিলে আমরা নির্বাচনে যাবো। একতরফা কিংবা প্রশ্নবিদ্ধ হয় এমন নির্বাচনে আমরা যাব না।

“শুধু তাই নয়, সবাই যাতে নির্বাচনে অংশ নেয় তা নিয়েও কাজ করবো আমরা। কিন্তু মেনন ভাই এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে কাছের পলিটব্যুরোর মেম্বারদের নিয়ে তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করলেন, কার্যত আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তে কাছে মাথা নত করলেন। আমরা যেখানে আওয়ামী লীগকে গণতান্ত্রিক ধারায় ধরে রাখতে পারতাম সেখানে আমরাই দলটির পেটের মধ্যে ঢুকে পড়লাম এবং এই সব কিছুই হয় রাশেদ খান মেননের একক সিদ্ধান্তে।”

ওয়াকার্সনতুন কোন দল গঠন কিংবা অন্য কোনো দলে যোগ দেবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে এই নেতা বলেন, আমরা আপাতত কোনো দলে যোগ দিচ্ছি না। ওয়ার্কার্স পার্টিতে আমাদের মতাদর্শের অনেকেই আছেন, আমরা চাই সবাই মিলেই সিদ্ধান্ত হোক। তখন সবাই মিলে একটা কিছু করা যাবে।

আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট করার প্রশ্নে ২০০৪ সালের ১৪ জুন ভাঙ্গে দলটি। দল থেকে বের হয়ে যায় বর্তমান বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত হবার পর দলের রাজনৈতিক ভাবে অধ:পতন ঘটে। এরপর আর পার্টিতে কাজ করার কোনো সুযোগ থাকে না। কেননা যে দলটির সঙ্গে তারা কোয়ালিশন করেছে তারা গণতান্ত্রিক ধারায় আর নেই।

দলটির আরো একটি বড় অংশ বেরিয়ে যায় ২০০৮ সালে। এদের মধ্যে অন্যতম বর্তমানে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হায়দার আকবর খান রনো ও গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার প্রধান সমন্বয়ক আবদুর সাত্তার।

হায়দার আকবর খান রনো এটিএন টাইমসকে বলেন, ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট গঠন করে নির্বাচনে যখন ওয়ার্কার্স পার্টি নির্বাচনে যায় তখন আমরা দল থেকে বেরিয়ে আসি। এই সিদ্ধান্ত রাশেদ খান মেনন একা নেন।

এই বিষয়গুলো জানতে চাইলে ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মল্লিক বলেন, কোন সিদ্ধান্ত একা নেয়া হয়নি। আমরা সবাই মিলে পলিটব্যুরো ও কেন্দ্রীয় কমিটির মিটিং থেকে নেয়েছি।

উৎসঃ   এটিএন টাইমস
Print Friendly, PDF & Email