CC News

মালয়েশিয়ায় ২৫৫ বাংলাদেশি আটক

 
 

thCAQHH9AMসিসি ডেস্ক: বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি আমদানিকারক দেশ মালয়েশিয়া আবারও অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে দেড় হাজারের বেশি বিদেশিকে আটক করছে। দেশটির অভিবাসন বিভাগ, পুলিশ ও পিপলস ভলান্টিয়ার কর্পসের (রেলা) যৌথ অভিযানে এসব আটককৃতদের মধ্যে ২৫৫ জন বাংলাদেশি রয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সরকার। এর আগে গত বছরের ১ থেকে ৩ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগ ৪৪৪ জন বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করে।

নিবন্ধিতদের বৈধ হতে বেঁধে দেয়া তিন মাস সময় শেষ হওয়ার পর গত সোমবার মধ্যরাত থেকে রাজধানী কুয়ালালামপুরসহ পুরো মালয়েশিয়াজুড়ে এই অভিযান শুরু করে অভিবাসন বিভাগ। সারাদেশে মোট ১০৭টি স্থানে অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৫৬৫ অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে ২৫৫ জন বাংলাদেশি ছাড়াও ৬৯৫ জন ইন্দোনেশিয়ার ও মায়ানমারের ১৫৭ জন রয়েছে। বাকিরা কম্বোডিয়া, ভার, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, চীন, নাইজেরিয়া ও থাইল্যান্ডের নাগরিক। দেশটির অভিবাসন বিভাগ, পুলিশ ও পিপলস ভলান্টিয়ার কর্পসের (রেলা) প্রায় ১০ হাজার সদস্য এই অভিযানে অংশ নিচ্ছেন। মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমাদ জাহিদ হামিদীকে উদ্ধৃত করে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত বার্তা সংস্থা বারনামা এক প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ করে।

মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমাদ জাহিদ হামিদী বলেন, যাদের আটক করা হয়েছে তাদের সাত দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান বা যার যার দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে ফেরত পাঠানো হবে। বারনামা জানিয়েছে, আটক বিদেশিদের তথ্য ইতোমধ্যে বায়োমেট্রিক তথ্যভা-ারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যাতে তারা আর কখনো মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে না পারে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২১ অক্টোবর থেকে ২১ জানুয়ারি এই তিন মাসের মধ্যে অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ দিয়েছিল মালয়েশিয়ার সরকার। এক্ষেত্রে বিভিন্নভাবে প্রতারিত হয়ে যারা ২০১১ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করেছে তারা এ সুযোগের আওতায় আসবে বলে জানিয়েছিল দেশটি। এর প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছিলেন, এ প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশের প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবে।

তবে ২০০৯ সালের শুরুতে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি আমদানি বন্ধ করে দেয় মালয়েশিয়া। এরপর ২০১২ সালের ২৬ নভেম্বর সরকারি ব্যবস্থাপনায় জনশক্তি রপ্তানির বিষয়ে উভয় দেশের সরকারি পর্যায়ে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর হয়। এতে সরকারিভাবে দেশটিতে যেতে একেক জন শ্রমিকের ৪০ হাজার টাকা খরচ পড়বে এবং শ্রমিকরা মাসিক ২৫-৩০ হাজার টাকা বেতন পাবে বলে জানায় সরকার।

Print Friendly, PDF & Email