CC News

কাফরুল থানার ওসিসহ ৬ পুলিশ ক্লোজড

 
 

Policসিসি ডেস্কঃ পেশাগত দায়িত্ব পালনে অবহেলার অভিযোগে ঢাকা, সিলেট ও লক্ষ্মীপুরের ছয় পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত (ক্লোজড) করা হয়েছে।

এঁরা হলেন- রাজধানীর কাফরুল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আলী, সিলেট মহানগর পুলিশের ট্রাফিক সার্জেন্ট মো.শফিক, লক্ষ্মীপুরের রায়পুরা থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো. মোহসিন, কনস্টেবল মো. মোস্তাফিজুর রহমান, শফিকুল আলম ও পিযুস চন্দ্র পাল।

বৃহস্পতিবার তাঁদের প্রত্যাহার করা হয়।

পুলিশ সদর দপ্তর ও ঢাকা মহানগর পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, চাঁদাবাজি এবং টেন্ডার বাক্স ছিনতাইয়ের সময় নিষ্ক্রিয় থাকার অভিযোগে ছয়জনের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি-মিডিয়া) আবু ইউসুফ জানান, কাফরুল থানার ওসি ওয়াজেদ আলীকে ক্লোজড করে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পেশাগত দায়িত্ব পালনে গাফিলতির অভিযোগ রয়েছে। বর্তমানে একই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আতাউর রহমানকে ওসি (ক্রাইম) হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

পুলিশ সদরে দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সিলেট মহানগর এলাকার সোবহানীঘাটে চাঁদাবাজির অভিযোগে ট্রাফিক সার্জেন্ট শফিককে ক্লোজড করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পিকআপ ভ্যান চালকের কাছে পাঁচ শ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ রয়েছে। নগরীর আম্বরখানা থেকে মো. খলিল মিয়া একটি পিকআপ ভ্যান (ঢাকা মেট্রো-ঠ-১১-১১৭৩) নিয়ে সোবহানীঘাট যাওয়ার পথে সার্জেন্ট শফিক তার কাছে ৫০০ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চালক ২০০ টাকা দিলে তিনি চালককে সোবহানীঘাট পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে মারধর করেন। পরে পরিবহন শ্রমিকরা ঘটনার প্রতিবাদে সোবহানীঘাট এলাকায় আধঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে কোতয়ালি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ট্রাফিক সার্জেন্ট শফিককে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ক্লোজড করে পুলিশ লাইনে নিয়ে যান।

অন্যদিকে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর (এলইজিডি) কক্ষ থেকে টেন্ডার বাক্স ছিনতাইয়ের ঘটনায় দায়িত্ব অবহেলার কারণে এএসআইসহ চার পুলিশকে ক্লোজড করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, টেন্ডার বাক্স ছিনতাইয়ের সময় চারজন পুলিশ কর্তব্যরত থাকলেও তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করে নীরব ভুমিকা পালন করেন। ঘটনা প্রতিরোধ ও জড়িতদের আটক না করায় চার পুলিশকে রায়পুর থানা থেকে লক্ষ্মীপুর পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email