CC News

ব্যর্থতার দায় নির্বাচন কমিশনের: ডা. ইমরান

 
 

Gonoঢাকা: ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঘিরে দেশব্যাপী যেসব সাম্প্রদায়িক হামলা হয়েছে সেসবের জন্য ব্যর্থতার বড় দায় নির্বাচন কমিশনের।

বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন বিভিন্ন এলাকা ও ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। অথচ নির্বাচন কমিশনের কাছে তা কোনো গুরুত্ব পায়নি। এর বড় প্রমাণ দিনাজপুর কর্নাইয়ের ভোটকেন্দ্র। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র হওয়া সত্ত্বেও ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় মাত্র চারজন পুলিশ ও কয়েকজন আনসার সদস্য ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি তিন দিনব্যাপী গণজাগরণ মঞ্চের ঠাকুরগাঁও অভিমুখী দ্বিতীয় রোডমার্চের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদন পড়ে শোনান ডা. ইমরান এইচ সরকার।

প্রতিবেদনে ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরি, আক্রান্তদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ ও সহযোগিতা করার জন্য তিন দিনব্যাপী ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁও অভিমুখী দ্বিতীয় রোডমার্চের ডাক দিয়েছিল গণজাগরণ মঞ্চ। রোডমার্চ চলার সময় বিভিন্ন স্থানে স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা আমাদের ওপর ককটেল ও হাতবোমার আক্রমণ করেছিল। বোমাবাজি করা হয় জনসভাস্থলেও। কিন্তু আমরা এসব বাধা অতিক্রম করে আক্রান্তদের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম।’

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এই হামলার জন্য দায়ী নির্বাচন প্রতিহত করার ডাক দেওয়া রাজনৈতিক শক্তিগুলোর স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। বিশেষ করে, চূড়ান্ত হামলাগুলো অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে এবং পেশাদারির সঙ্গে করা হয়েছে। হামলায় স্থানীয় সন্ত্রাসীদের পাশাপাশি বহিরাগত সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করা হয়েছে। যা পরিষ্কার হয়েছে আক্রান্তদের বক্তব্যে।

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে প্রশাসনের নজিরবিহীন ব্যর্থতা ছিল। আক্রান্তরা অনেকবার অবহিত করলেও প্রশাসন সেখানে উপস্থিত হয়নি। এমনকি নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দল ও প্রার্থীদের পক্ষ থেকেও এখানে আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানোর কোনো প্রস্তুতি ছিল না। হিন্দুদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাও আক্রমণের শিকার হয়েছেন। জামায়াত-শিবির অনেক মুসলিম বাড়িতে ঢুকে তাদের পবিত্র কোরআন শরিফসহ অনেক হাদিসের বই পুড়িয়ে দেওয়ার দুঃসাহস দেখিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email