CC News

স্ত্রী হত্যার সাক্ষী নিজ পুত্রকে হত্যা!

 
 

image_73847_0ঢাকা: স্ত্রীকে হত্যার একমাত্র সাক্ষী ছেলে। তাই স্ত্রী হত্যার দায় থেকে বাঁচতে ছেলেকেও হত্যা করেছেন পাষণ্ড এক বাবা! অবশ্য বাবা রিপন মিয়ার দাবি হত্যা নয় বায়না পূরণ না করায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে ছেলে শিহাব।

রাজধানীর জুরাইনের মুরাদপুরের নিজ বাসা থেকে সোমবার শিহাব সরকার (১১) নামে ষষ্ঠ শ্রেণীর ওই স্কুলছাত্রের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ মৃত্যুকে বাবা রিপন আত্মহত্যা দাবি করলেও শিহাবের নানা বাড়ির আত্মীয়স্বজন, সহপাঠী ও স্থানীয়দের অভিযোগ, তাকে হত্যা করা হয়েছে।

জানা গেছে, তিন বছর আগে শিহাবের মা শাহিনূর বেগমও একই রকম রহস্যজনকভাবে নিহত হন। এরপর তাকে হত্যার অভিযোগ ওঠে পরিবারের পক্ষ থেকে। এ ঘটনায় রিপন সরকারের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মামলা হয়েছে।

স্বজনদের দাবি, স্ত্রী হত্যার সাক্ষী ছিল সন্তান শিহাব। এ কারণে ছেলেকেও হত্যা করেছেন রিপন সরকার।

এদিকে শিহাবের মৃত্যুকে হত্যাকাণ্ড দাবি করে বিচার চেয়ে বুধবার ও মঙ্গলবার জুররাইনের মুরাদপুরে বিক্ষোভ করেছে তার সহপাঠী ও এলাকাবাসী। তবে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পেলে এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিহাব মুরাদুপর উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়তো। গত সোমবার রাতে মুরাদপুরের পোকারবাজার এলাকার বাসা থেকে পুলিশ তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। স্থানীয়দের অভিযোগ, বাবা রিপন সরকারই তার সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যার ‘নাটক’ সাজিয়েছেন।

এ বিষয়ে শিহাবের বাবা রিপন সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘সোমবার শিহাবের জন্মদিন ছিল। সে আগে থেকেই জন্মদিনের অনুষ্ঠান করার জন্য বায়না ধরেছিল। কিন্তু তার কথা না রাখায় অভিমানে আত্মহত্যা করেছে সে।’

তবে শিহাবের নানা, কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ধরিকান্দি গ্রামের বাসিন্দা নূরুল আলম বাংলামেইলকে জানান, ২০১০ সালের ২৬ ডিসেম্বর তার মেয়ে শাহিনূর বেগমেরও একই পরিণতি হয়। সৌদি আরব থেকে প্রবাস জীবন শেষে দেশে ফিরে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন রিপন। এরপর একদিন স্বজনরা শুনতে পান রিপনের স্ত্রী শাহিনূর ফ্যানের সঙ্গে ওড়না জড়িয়ে ফাঁস দিয়েছেন। ঘটনাটিতে সন্দেহ হয় স্বজনদের। এরপর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মর্গের ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে প্রকাশ পায়- আত্মহত্যা নয়, শাহিনূরকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে।

শাহিনূরের মৃত্যুর পরই কদমতলী থানায় ৩০৬ ধারায় একটি মামলা করেছিলেন বাবা নূরুল আলম। এ মামলায় রিপনের মা, বোন ও বাবাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তবে আত্মগোপনে থেকে রিপন পরে আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। ছয় মাস কারাভোগের পর সব আসামিই এখন জামিনে মুক্ত।

নূরুল আলম বলেন, ‘ওই ঘটনার সাক্ষী ছিল আমার নাতি (শিহাব)। এ কারণে তাকেও মারা হয়েছে। আমি আগামীকাল বৃহস্পতিবার রিপনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করবো।’

শিহাবের সহপাঠী আবির হোসেন, আজমির ও রাসেল বাংলামেইলকে জানায়, গত সোমবারও স্কুলে গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলেছে শিহাব। তার মধ্যে জন্মদিনের অনুষ্ঠান না হওয়ার কোনো ক্ষোভ বন্ধুরা দেখেনি; যে কারণে সে আত্মহত্যা করতে পারে।

সহপাঠীরা আরো জানায়, শিহাব সহপাঠীদের তার মায়ের মৃত্যুর ঘটনার ব্যাপারেও বলেছে। সে বলেছে, ‘আমি একাই ওই ঘটনা দেখেছি। আব্বু আম্মুকে মেরে ফেলেছে।’

ঘটনার ব্যাপারে রাজধানীর কদমতলী থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম বাংলামেইলকে বলেন, ‘ওইদিন দরজা ভেঙে শিহাবের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বাবা বলছে, জন্মদিনের অনুষ্ঠান না করায় সে ফাঁস দিয়েছে। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। তবে হত্যার অভিযোগেরও সূত্র আছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদনে অন্য কিছু থাকলে তা জানা যাবে।’

ওসি আরো বলেন, ‘বিষ প্রয়োগে বা গলাটিপে হত্যার আলামত মিললেই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। অন্য অভিযোগে মামলা হলেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

বাংলামেইল

Print Friendly, PDF & Email