CC News

এরশাদ-রওশন দ্বন্দ্ব চরমে

 
 

ershad-rowshanনিউজ ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে জাতীয় পার্টির সাংসদ নিয়োগ নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও তাঁর স্ত্রী রওশন এরশাদ। ফলে এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি তারা।

বিষয়টি নিয়ে এরশাদ ও রওশনপন্থী জাতীয় পার্টির সংসদীয় দলের সদস্যরাও দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন।

এরশাদের ভাগাভাগির প্রস্তাবে পুরোপুরি সায় দেননি রওশন। ভাগাভাগিতে জোরালো আপত্তি না থাকলেও এরশাদের দেওয়া কিছু নামের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছেন তিনি। বিশেষ করে এরশাদের পালক কন্যার দাবিদার মৌসুমী আক্তার ও ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকারের নাম দেওয়ায় রওশন ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তিনি ত্যাগীদের মনোনয়ন দেওয়ার পক্ষে।

নারী সাংসদ নিয়োগ নিয়ে এরশাদ-রওশন দ্বন্দ্বের মধ্যেই এককভাবে বিরোধীদলীয় উপনেতা ও চিফ হুইপ নিয়োগ দিতে যাচ্ছেন রওশন। এ নিয়ে তাদের বিরোধ আরো তীব্র হওয়ার আশঙ্কা করছেন জাপা নেতারা।

সমঝোতার জন্য সোমবার নেতাদের নিয়ে গোপন বৈঠক করেছেন এরশাদ। বৈঠকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, রওশনের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিতি পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা ও নীলফামারী-৪ আসনের এমপি শওকত চৌধুরী অংশ নেন।

বৈঠকে এরশাদ ৩টি নাম দেন এবং রওশনকে ৩টি নাম দিতে বলেন। তবে এরশাদের দেওয়া নামের ব্যপারে আপত্তি তোলেন রওশন।

নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ প্রশ্নে এরশাদ ও রওশন দ্বন্দ্বের সূত্রপাত। শেষ পর্যন্ত রওশনের নেতৃত্বে নির্বাচনে অংশ নেয় জাতীয় পার্টি। নির্বাচন পরবর্তী সরকারে অংশ নেওয়া প্রশ্নেও দ্বিমত দেখা দেয় উভয়ের মধ্যে। ফলে বিরোধীদলীয় নেতা প্রশ্নে দু’মেরুতে অবস্থান নেন দু’জন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, প্রথমে এরশাদ রওশনকে বিরোধীদলীয় নেতা করার কথা বললেও পরে নিজেই  হতে চেয়েছিলেন। কিন্তু রওশন বেঁকে বসায় তা আর হয়ে ওঠেনি। এরপর দশম সংসদের মন্ত্রিসভায় যোগ দেওয়া নিয়েও দ্বিমত দেখা দেয় তাদের মধ্যে। এরশাদ মন্ত্রিসভায় যোগদানের বিপক্ষে থাকলেও শেষ পর্যন্ত হার মানতে হয় রওশনের কাছে। শেষ পর্যন্ত নতুন সরকারের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন জাতীয় পার্টির তিন নেতা।

Print Friendly, PDF & Email