CC News

কানাডায় বৃদ্ধাশ্রমে অগ্নিকাণ্ডে ৩০ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা

 
 
kanada fireঢাকা: কানাডার কুইবেক শহরে বৃহস্পতিবার রাতে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে একটি বৃদ্ধাশ্রম ভষ্মীভূত হয়েছে।
দমকল বাহিনীর সদস্যরা বৃদ্ধাশ্রমের বাসিন্দাদের খোঁজে ছাইভস্মের ভেতর তল্লাশী চালাচ্ছে। অগ্নিকাণ্ডে ৩০ জনের বেশি প্রাণ হারিয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
কুইবেক পুলিশ অগ্নিকাণ্ডে পাঁচ জনের মৃত্যু নিশ্চিত করেছে। বাড়িটির আরো ৩৬ বাসিন্দা এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।
বাড়ির ধ্বংসস্তুপ ৩০ সেন্টিমিটার (১ ফুট) বরফে ঢেকে যাওয়ায় তল্লাশি ও তদন্ত কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আগুন নেভাতে ব্যবহৃত পানি বরফে পরিণত হয়েছে।
৫২ ইউনিটের এ বাড়িতে মাঝরাতের কিছু পরেই অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এখানে ৫০ থেকে ৬০ জন বয়স্ক লোক বাস করেন। বাসিন্দাদের অর্ধেকের বেশির বয়স ৮৫ বছরের উর্ধ্বে।
প্রতক্ষদর্শী ও প্রতিবেশী পাসক্যাল ফিলিয়োন ফরাসী ভাষায় প্রচারিত সরকারি বেতার রেডিও কানাডাকে বলেন, ‘আমরা বাড়িটির ভেতর থেকে আর্তনাদ শুনতে পাই।’
তিনি আরো বলেন, ‘রাত একটা নাগাদ আগুন বাড়িটিকে পুরোপুরি গ্রাস করে ফেলে। বাতাসে আগুনটি ছড়িয়ে পড়ে।’
মন্ট্রিয়ল থেকে ৪৫০ কিলোমিটার (২৮০মাইল) উত্তরপূর্বে অবস্থিত ছোট শহর লিসলি ভেরতিতে বাড়িটি অবস্থিত। শহরটির জনসংখ্যা প্রায় ১ হাজার ৪০০।
শহরের ভারপ্রাপ্ত মেয়র গিনেত্তে ক্যারন এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, বাড়ির অধিকাংশ বাসিন্দাই দেখভালকারীদের ওপর নির্ভরশীল।
তিনি বলেন, ‘এইসব বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের অধিকাংশই সম্পূর্ণভাবে দেখভালকারীদের ওপর নির্ভরশীল। তাদের প্রায় সকলেই হুইল চেয়ার ও ওয়াকারে করে চলাফেরা করেন। অনেকে আবার একেবারেই চলাফেরা করতে পারেননা। তারা বার্ধক্যজনিত অ্যালঝেইমারস রোগে ভুগছেন।’
কর্র্তৃপক্ষ জানায়, ভবনটি থেকে ২৩ জনকে অন্যত্র সরানো হয়েছে। এদের মধ্যে ১৩ জন আহত হয়েছে। আহতদের পার্শ্ববর্তী একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদের এক জনের অবস্থা গুরুতর। এ ঘটনায় দুই দমকল কর্মীও আহত হয়েছে।
রেড ক্রসের মুখপাত্র মাইরিয়াম ম্যারোট্টে জানান, আন্তর্জাতিক সংস্থাটি স্থানীয় একটি হাসপাতালে অস্থায়ী আশ্রয় শিবির স্থাপন করেছে। রাতে সেখানে ভবনটি থেকে উদ্ধারকৃত বেশ কয়েকজনকে রাখা হয়।
আন্তর্জাতিক সংস্থাটির এই মহিলা মুখপাত্র আরো জানান, অগ্নিকাণ্ডের সময় বাড়িটির বাসিন্দাদের অনেকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে বা অন্য কোথাও থাকতে পারেন। তাদেরকেও নিখোঁজদের মধ্যে ধরা হয়েছে।
প্রাদেশিক মন্ত্রী গায়েতান লেলিয়েভার রেডিও কানাডাকে বলেন, ‘এটা অত্যন্ত মর্মান্তিক একটি ঘটনা এবং আমরা আশঙ্কা করছি যে মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।
ভয়াবহ এ অগ্নিকাণ্ডে বাড়িটির পার্শ্ববর্তী ওষুধের দোকান ও একটি কমিউনিটি সেন্টারও ধ্বংস হয়ে গেছে।
প্রাথমিক তদন্তে দেখা গেছে যে ভবনটির সবচেয়ে পুরনো অংশে স্বয়ংক্রিয় অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা নেই। তবে অগ্নিকাণ্ডের কারণ অনুসন্ধানে একটি ব্যাপক তদন্ত চলছে।
সুইজারল্যাণ্ডের ডাভোসে সফররত কুইবেকের প্রধানমন্ত্রী পলিন মারোইস এক শোক বার্তায় এই মর্মান্তিক ঘটনায় আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করে বৃদ্ধাশ্রমের বাসিন্দা ও সরকারের পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার করেন।
কাউন্টির প্রধান কর্মকর্তা মিশেল লাগাসি বলেন, ‘এটা একটি মানবিক বিপর্যয়।’
তিনি জানান, মধ্যরাতের এই অগ্নিকাণ্ডের পর উদ্ধার তৎপরতা চালানোর মতো পর্যাপ্ত লোকবল নেই।
এক ব্যক্তি বৃদ্ধাশ্রমে অগ্নিকাণ্ডে তার মায়ের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা জানতে পুলিশের দেয়া সংরক্ষিত সীমানার বাইরে অপেক্ষা করছেন। বাসস
Print Friendly, PDF & Email