CC News

কার অঙ্গুলি হেলনে কী হচ্ছে সেটাই প্রশ্ন

 
 

মইনুল হোসেন:

Barister Moynulপশ্চিমা কূটনীতিকরা কিছুটা আশা জাগালেও তারা আমাদের দলীয় রাজনীতির জটিলতা বুঝতে না পারার কারণে সফল হতে পারেননি। তাদের উদ্যোগকে কার্যকর করার জন্য যা অপরিহার্য ছিল, সেটা উপলব্ধি করতে না পেরে তারা কেবল সংলাপ শুরু হচ্ছে না বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এবং সে সংলাপ আর অনুষ্ঠিত হয়নি। এই কূটনীতিকরা অবাধ নির্বাচনের শর্ত পূরণের জন্য পীড়াপীড়ি না করে সরকার ও বিরোধী পক্ষকে সমঝোতা করতে বলেছেন। যে দেশে সমঝোতার রাজনীতি অজানা। যেখানে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার প্রস্তুতি হিসেবে শাসনতন্ত্র পর্যন্ত পরিবর্তন করা হল। সেখানে কূটনীতিকরা আমাদের সবাইকে বিভ্রান্ত করছেন কি-না সে সম্পর্কেই প্রশ্ন উঠছে।

পশ্চিমা কূটনীতিকরা সবার অংশগ্রহণে অর্থবহ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পক্ষে যেসব যুক্তি দেখিয়েছেন, তা আওয়ামী লীগ আমলে নেয়নি। নির্বাচন শেষ হওয়ার পর পশ্চিমা কূটনীতিকরা যথার্থই দাবি করেছেন, এ নির্বাচন গণতান্ত্রিক বৈধতা পেতে পারে না। এখন গুরুত্বপূর্ণ সব দেশ, শুধু রাশিয়া ছাড়া, সরকারের ওপর চাপ দিচ্ছে দ্রুত সব দলকে নিয়ে আরেকটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের। কিছু দেশ বাংলাদেশের ওপর অবরোধ আরোপের কথাও তুলেছে। নিউইয়র্ক টাইমসের মতো আন্তর্জাতিক সংবাদপত্র বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপের সুপারিশ করেছে- যদি সরকার একতরফা নির্বাচন নিয়ে সামনে অগ্রসর হওয়ার কথা চিন্তা করে। তাই এটা বলা যাবে না যে, অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সংগ্রামে বাংলাদেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

পশ্চিমা কূটনীতিকরা অবাধ নির্বাচনের পক্ষে প্রকাশ্যে জোরালো বক্তব্য দিয়ে এ দেশের জনগণকে এক রকম আশ্বস্ত করলেন যে, অবাধ নির্বাচনের সংগ্রামে তারা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে না। সরকারবিরোধী জোট থেকে কোন দলকে বাদ দিতে হবে সে সম্পর্কে দেশের ভেতরে কিংবা বাইরে কারও পক্ষে কিছু বলা সঠিক বা সমীচীন হতে পারে না। যদি না আমরা সবাই ধরে নিই যে, দেশ একদলীয় শাসনের অধীনেই থাকবে। অন্যদের রাজনীতি করতে হবে ক্ষমতাসীন দলের ইচ্ছামতো, এটা তো গণতন্ত্রের কথা হতে পারে না। গণতন্ত্রে এ সিদ্ধান্ত ভোটের মাধ্যমে নেবে জনগণ। তাছাড়া বিগত নির্বাচনে আইনগত বাধা থাকায় জামায়াত তো এমনিতেই অংশ নিতে পারেনি। জামায়াতের সরকারে আসাটা মেনে নেয়া যায় না, এ যুক্তিতে সবার অংশগ্রহণমূলক গণতান্ত্রিক নির্বাচন থেকে গোটা জাতিকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তাই সবাইকে স্বীকার করতে হবে যে, অবাধ নির্বাচনের সুযোগ থেকে জনগণকেই বঞ্চিত করা হয়েছে- কোনো দল বা জোটবিশেষকে নয়। এতটুকু বোঝার জ্ঞান-গরিমা আমাদের নিশ্চয়ই আছে।

আসলে প্রকৃত ইস্যু যে জামায়াত নয়, এ বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া দরকার। নির্বাচনে নিশ্চিত ভরাডুবির হাত থেকে বাঁচার জন্য সরকারকে জামায়াত জুজুর কথা বলতে হয়েছে। দল হিসেবে জামায়াতকে সরকার নিষিদ্ধ করেনি। জামায়াত ততটা অবাঞ্ছিত হলে সরকার অবশ্যই সেটা করত। অতীতে জামায়াতের সঙ্গে সরকারি দলের রাজনীতি করতে অসুবিধা হয়নি।
আসলে কার অঙ্গুলি হেলনে বাংলাদেশে কী হচ্ছে সেটাই প্রশ্ন। আমাদের নিজেদের বুদ্ধিবৃত্তিক সততা ও দেশপ্রেমের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।
আইন ও শাসনতন্ত্রের যে ব্যাখ্যাই দেয়া হোক না কেন, বিগত নির্বাচনে আমাদের জনগণের ইচ্ছাভিত্তিক রাজনীতির প্রতিফলন ঘটেনি। বিদেশী কূটনীতিকদের সাফল্য বা ব্যর্থতার ওপর আমাদের রাজনীতির সাফল্যের নির্ভরশীলতাই প্রকাশ পেয়েছে। পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা গেছে আমাদের নির্বাচন নিয়ে কীভাবে ভারত ও আমেরিকার মধ্যে মতপার্থক্য দেখা দেয়। এটাও সত্য যে, আমাদের রাজনৈতিক নেতৃত্বের দুর্বলতার কারণে তারা বড় বেশি বিদেশ মুখাপেক্ষী।

আসলে নির্বাচনী প্রহসন করে জনগণের পছন্দমতো সরকার গঠনের গণতান্ত্রিক অধিকার অস্বীকার করা হয়েছে। আমরা চাই, ভারত ও রাশিয়াও বিষয়টি অনুধাবন করুক এবং বাংলাদেশের জনগণের দীর্ঘমেয়াদী স্বার্থের সঙ্গে তারাও সম্পৃক্ত থাকুক। জনবিচ্ছিন্ন সরকার দেশে শান্তি-শৃংখলা আনতে পারে না।
প্রকৃতপক্ষে ক্ষতি যা হওয়ার তা হয়েছে জনগণের, বিরোধী দলগুলোর তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। বিপন্ন হয়েছে জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ও আকাক্সক্ষা এবং নিজেদের ইচ্ছামতো সরকার পাওয়ার স্বাধীনতা। যে দেশের জনগণ নিজেদের ভোটে নিজেদের সরকার গঠনে সক্ষম নয়, সে দেশ কতটা স্বাধীন তা নিয়ে প্রশ্ন তো উঠতেই পারে।

আমাদের ভয় ও উদ্বেগ হচ্ছে, জনগণের হতাশার সুযোগে অনৈক্য ও তিক্ততা আরও উগ্র রূপ নিয়ে আবির্ভূত হতে পারে। সঠিক রাজনীতি ও সঠিক রাজনৈতিক নেতৃত্ব ছাড়া তা সামাল দেয়ার কাজে পুলিশি শক্তি যথেষ্ট বিবেচিত হতে পারে না। তবে আমি খুশি হব হিংসা-প্রতিহিংসা প্রশমিত হতে দেখলে।
যা সত্য তা হল, কী আওয়ামী লীগ, কী বিএনপি- কোনো দলই গণতন্ত্রের অনুশীলন করে না। উভয় দলই একইভাবে গণতন্ত্র ব্যর্থ করার রাজনীতি চালিয়ে যাচ্ছে। তবুও আশু শান্তির প্রয়োজনে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন একটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করার মধ্যেই মিলবে সমস্যার সর্বোত্তম সমাধান। রাজনীতির গণতান্ত্রিক সংস্কারের তাগিদ উপেক্ষা করার কারণে জাতি আজ একদলীয় শাসনের সংকটে।

দেখতে হবে বিদেশী কূটনীতিকদের ব্যর্থতার কারণে আমাদের ভঙ্গুর গণতন্ত্রের দেশ যেন আরও বড় ধরনের হিংসা ও ধ্বংসের দিকে ধাবিত না হয়। তারা এখনও নেতাদের সংলাপে বসতে বলছেন। তারা বুঝতে পারছেন না, সংলাপ বা সমঝোতার রাজনৈতিক সংস্কৃতি আমাদের নেই। বিদেশী কূটনীতিকদের সম্মিলিত মধ্যস্থতার মাধ্যমে এখন সমাধান খুঁজতে হবে। সংলাপ-সংলাপ করে দলীয় নেতাদের বাড়িতে বাড়িতে ছোটাছুটি করলে যে সুফল পাওয়া যাবে না, তা তো উপলব্ধিতে আসতে হবে।

বিদেশি কূটনীতিকরা না বুঝলেও আমরা জানি, অবাধ ও নিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক নির্বাচন হল জনমত প্রতিফলনের বাস্তব পরিস্থিতির বিষয়- এটা বিভিন্ন দলের মধ্যে আপসরফার বিষয় হতে পারে না।
গণতন্ত্র টিকিয়ে রাখতে হলে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংকটের দীর্ঘস্থায়ী সমাধান দরকার হবে। সব কিছুর ওপরে জাতি হিসেবে আমাদের দেশপ্রেমের অঙ্গীকারকে সুবিধাবাদের ওপরে স্থান দিতে হবে।
নির্বাচন যে ভোটাভোটির নির্বাচন হয়নি, অবাধ হয়নি- জনমতের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই সরকারের তা মেনে নেয়া ভালো। ক্ষমতায় চিরদিন থাকার স্বপ্ন দেখলেই যে সে স্বপ্ন সফল হবে, তা কিন্তু বাস্তবসম্মত নয়, যুক্তিসঙ্গতও নয়। ক্ষমতায় থেকে কীভাবে নির্বাচনে বিজয় লাভ করা সম্ভব, তা তো এখন আওয়ামী লীগ জোটের জানা হয়েছে। অন্যরা ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করলে তাদের অবস্থা কী হবে তাও একটু ভাবা দরকার। পুলিশি ক্ষমতার অপব্যবহার অন্যরাও করতে পারবে তাতে কোনো সন্দেহ থাকার কথা নয়।

জাতীয় রাজনীতিতে গণতন্ত্র ব্যর্থ করার সব ধরনের অশুভ দৃষ্টান্ত সৃষ্টি হয়েছে। বিরোধী রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দিয়ে হয়রানির শিকার করা হচ্ছে। অর্থাৎ রাজনীতিকদের পুলিশ দিয়ে শায়েস্তা করা হচ্ছে। এমনিতেই রাজনীতি এখন একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী ও দুর্নীতিপরায়ণদের কাছে বন্দি। প্রতিপক্ষের রাজনীতিকদের পুলিশ দ্বারা হেস্তনেস্ত করার যে ব্যবস্থা চলছে, তাতে তারা নিজেরাই নিজেদের জন্য সম্মানজনক রাজনীতি অসম্ভব করে তুলেছেন। রাজনীতি গণতান্ত্রিক না হলে সংকট শুধু জনগণেরই হয় না- তা রাজনীতিকদের জন্যও বিপদ ডেকে আনে। ঐতিহ্যবাহী আওয়ামী লীগ নেতাদের তো তা অজানা থাকার কথা নয়।
ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন : আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ
(যুগান্তর, ২৫/০১/২০১৪)

Print Friendly, PDF & Email