CC News

দুর্নীতিকে নিরুৎসাহিত করে কর্মপরিকল্পনায় মনোযোগী সরকার

 
 

Gov. Logoসিসি ডেস্ক: নির্বাচনী ইশতেহারের আলোকে দুর্নীতিকে নিরুৎসাহিত করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগভিত্তিক উন্নয়ন-কর্মপরিকল্পনা তৈরি করছে সরকার। নতুন সরকারের মন্ত্রিসভাও এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদে কর্মপরিকল্পনার কাজ শুরু করেছেন মন্ত্রীরা। মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রীরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করে এ বিষয়ে কার্যপ্রণালী তৈরি করছেন। বিশেষত মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়া নতুন সদস্যদেরই এ বিষয়ে তৎপরতা বেশি। আর বিগত সময়ের অসমাপ্ত কাজ শেষ করা ছাড়াও স্বল্প, মধ্য এবং দীর্ঘ মেয়াদের এসব পরিকল্পনায় সর্বাগ্রে দুর্নীতিকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। পাশাপাশি সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পসমূহকে দ্রুত বাস্তবায়নে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতিকে প্রশ্রয় না দিতে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি মনিটরিং টিমও কাজ করছে। স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের পথচলায়।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ১২ জানুয়ারি ৪৯ সদস্যের মন্ত্রিসভা শপথ গ্রহণ করে। সূত্রমতে, ১৬ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি থেকে দূরে থাকতে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। এছাড়াও সুশাসন নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ২০ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার দ্বিতীয় বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভাগগুলোতে উন্নয়ন কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের নির্দেশ দেন। ওইদিন বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা সাংবাদিকদের বলেন, নির্বাচনী ইশতেহারের আলোকে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও অগ্রাধিকারভিত্তিতে কাজের তালিকা তৈরির জন্য মন্ত্রণালয়গুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বিগত প্রায় পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতা ও সরকারের ইশতেহারের আলোকে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে কর্মকাণ্ডের তালিকা প্রস্তুত করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী দুইধাপে এসব পরিকল্পনা প্রণয়নের তাগাদা দিয়েছেন জানিয়ে কর্মকর্তারা বলেন, প্রথম ধাপে ইশতেহারের আলোকে কর্মসূচি, প্রকল্প, নতুন আইন বা আইন সংশোধন, কর্মকৌশলের তালিকা তৈরির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় কাজ হবে একটি অগ্রাধিকারমূলক তালিকা তৈরি করা। এসব কাজ করার জন্য সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা তৈরির নির্দেশনা রয়েছে।

মন্ত্রিসভার নির্দেশনার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরে বলেন, আগামী পাঁচ বছরে আমরা এমন একটা অবস্থায় পৌঁছাতে চাই, যেখানে এদেশের উন্নয়ন কোনোমতেই রুদ্ধ করা যাবে না এবং এটা মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবেই হবে। এ আশায় আত্মবিশ্বাসী মুহিত বলেন, এ ব্যাপারে আমার ব্যক্তিগত কোনো রকমের সন্দেহ নেই। অর্থমন্ত্রী একই সঙ্গে সবগুলো প্রতিষ্ঠানকে আগামী পাঁচ বছরের জন্য নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা করতে বলেন।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মন্ত্রণালয়সহ সব বিভাগ এবং দপ্তরগুলোকে একশ’ দিনের কর্মপরিকল্পনা প্রস্তুত করতে বলেছেন। এর মধ্যে রয়েছে ৩/৪ মাসের মধ্যে অনলাইন নীতিমালা তৈরি, বেসরকারি টেলিভিশনের সম্প্রচার নীতিমালা, বাসস ও পিআইবি’র ভিডিও উইং স্থাপন, একটি স্বতন্ত্র ফিল্ম সিটি ও এফডিসিতে একটি ফিল্ম কমপ্লেক্স স্থাপন।
ইতিমধ্যে চারটি সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করে একশ’ দিনের কর্মপরিকল্পনা ঠিক করেছেন তথ্যমন্ত্রী। বাকিদের নিয়ে আসছে সপ্তাহেই বৈঠক করে তা নির্ধারণ করবেন। পরে এই তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে বলে জানা গেছে।

দ্বিতীয়বার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়া নুরুল ইসলাম নাহিদ কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা এবং দুর্নীতিমুক্ত শিক্ষা প্রশাসন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে একটি বিশ্বমানে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার প্রাথমিকে ঝরেপড়া এবং নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা নিয়ে এগোবেন বলে জানিয়েছেন।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাভেদ গত সপ্তাহে নিজ মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। তিনি জমি সংক্রান্ত মামলা নিয়ে সাধারণ মানুষের হয়রানি বন্ধে ভূমি ব্যাংক (ল্যান্ড ব্যাংক) খোলার পরিকল্পনা জানান। এই ব্যাংকের আওতায় খাস জমিগুলো থাকবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানান তিনি। আইন মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা ভূমি নিবন্ধনের বিষয়টি নিজের মন্ত্রণালয়ে আনতেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়ে সাইফুজ্জামান এ নিয়ে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করার কথা জানান। অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরাও অ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করছেন।

এদিকে সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে পদ্মা সেতু, গভীর সমুদ্রবন্দর, রামপাল কয়লাভিত্তিক ও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মত বড় প্রকল্পগুলো সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি দৃশ্যমান করার জন্য সময়ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প নিয়ে গত বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় তিনি এই নির্দেশনা দেন।

অন্য তিনটি প্রকল্প হচ্ছে মহেশখালীতে এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) টার্মিনাল স্থাপন, ঢাকায় মেট্রোরেল ও সোনাদিয়ায় একটি সমুদ্রবন্দর নির্মাণ। এই প্রকল্পগুলো গত মহাজোট সরকারের সময় গৃহীত হয়। এগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি পরিবীক্ষণের জন্য গত বছরই প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ‘ফাস্ট ট্রাক প্রজেক্ট মনিটরিং কমিটি’ নামে ১১ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়। গত বছরের ১৬ জুন এই কমিটির প্রথম সভার পর বুধবার দ্বিতীয় সভা অনুষ্ঠিত হলো।

সূত্র জানায়, সভায় পদ্মা সেতুর মাওয়ায় নদী শাসনের এলাকা সম্প্রসারণ ও মাওয়া ঘাট স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নতুন সংসদের প্রথম অধিবেশনেই গভীর সমুদ্রবন্দর আইন পাসের পাশাপাশি এই প্রকল্পে অর্থায়নের উৎস খোঁজার কথা সভায় বলা হয়েছে। এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ‘এক্সিলারেট এনার্জি এক্সট্রা কনসোর্টিয়াম’-এর সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়। সভায় জানানো হয়, টার্মিনাল থেকে চট্টগ্রামে গ্যাস আনার জন্য মহেশখালী থেকে আনোয়ারা পর্যন্ত ৯৫ কিলোমিটার পাইপলাইন স্থাপনের কাজ চলছে। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের অগ্রগতি সম্পর্কে সভায় সন্তোষ প্রকাশ করা হয়।

এছাড়াও সরকার আরো কিছু উন্নয়নমূলক কাজের মাস্টারপ্ল্যানও করা হচ্ছে। নজরকাড়া উন্নয়নগুলো বাস্তবায়ন করা হবে অতিদ্রুত। তা ছাড়া পুলিশ, সিভিল প্রশাসনসহ সর্বস্তরের নিয়োগ দেওয়া হবে দ্রুততম সময়ে। অর্থনীতিকে গতিশীল করা, ব্যবসায়ী ও মিডিয়ার সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন, নিজেদের সাফল্য জনগণের সামনে তুলে ধরা, বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নত করার পাশাপাশি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান যেমন নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, তথ্য কমিশন, পাবলিক সার্ভিস কমিশনকে কার্যকর ও শক্তিশালী করা হবে। রদবদল হবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বিদেশি মিশনসহ বিভিন্ন সেক্টরে। গত পাঁচ বছরের অদক্ষ ও বিতর্কিতদের এবার আর সুযোগ দেওয়া হবে না।

উৎস: আইপোর্ট বিডি

Print Friendly, PDF & Email