CC News

নবম সংসদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আজ

 
 
Parlamentসিসি ডেস্ক: নবম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে শুক্রবার। ২০০৯ সালের ২৫ মার্চ প্রথম অধিবেশনের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল এই সংসদ। আজ ২৪ জানুয়ারি নির্ধারিত পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ হচ্ছে।
নবম সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার ১১দিন আগেই গত ১২ জানুয়ারি দশম সংসদের ভিত্তিতে নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হয়। পরদিন থেকে নতুন সরকার কার্যক্রম শুরু করে। এর আগে নবনির্বাচিত এমপিদের শপথ অনুষ্ঠিত হয় ৯ জানুয়ারি।
বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী দলের বর্জনের মাধ্য দিয়ে গত ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের আগেই ১৫৩টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হয়ে যায়। বাকি আসনগুলোতে নির্বাচন হলেও ভোটার উপস্থিতির হার ছিল খুবই কম।
দশম সংসদের এমপিদের শপথের মধ্য দিয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের কোনো কোনো নেতা ও মন্ত্রীদের পক্ষ থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নবম সংসদ বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার দাবি করলেও সংবিধান বিশেষজ্ঞসহ সংশ্লিষ্টরা ভিন্নমত প্রকাশ করেন। কেউ কেউ সরকারের বিরুদ্ধে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগও করেন।
নবম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর। সংসদের যাত্রা শুরু হয় ২৫ জানুযারি প্রথম অধিবেশনের মধ্য দিয়ে। নবম সংসদের নেতা ছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। বিরোধীদলীয় নেতা ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। এর মধ্যে এককভাবে আওয়ামী লীগের মহিলা আসনসহ ৩৫০ আসনের মধ্যে ২৭৪, জাতীয় পার্টি ২৮, জাসদের তিন ও ওয়ার্কার্স পার্টির দুটি আসন। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট লাভ করে নারী আসনসহ ৪০টি আসন। এর মধ্যে বিএনপির ৩৭, জামায়াতের দুটি ও বিজেপির একটি। এই সংসদে এর বাইরে এলডিপির একটি ও স্বতন্ত্র দুটি আসন ছিল। এই সংসদের স্পিকার হিসেবে প্রথমে দায়িত্ব পালন করেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর গত ৩০ এপ্রিল স্পিকার নির্বাচিত হন মহিলা আসন থেকে নির্বাচিত মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।
নবম জাতীয় সংসদে মোট কার্যদিবস ছিল ৪১৮। পাস হওয়া বিলের সংখ্যা ২৭১। বিরোধী দল অনুপস্থিত ছিল ৩৪২ কার্যদিবস, উপস্থিত ছিল ৭৬ কার্যদিবস।
উৎসঃ   নতুন বার্তা
Print Friendly, PDF & Email