CC News

স্বপ্নপুরীতে বেড়ানোর কথা বলে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা

 
 

Dorsonবদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জে এক নরপশু তার কলেজ পড়ুয়া ভাতিজিকে অপহরন করে ধর্ষনের চেষ্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই নরপশু চাচার নাম বোরহান আলী (২৮)। ওই নরপশু মোবাইল ফোনে ভাতিজিকে স্বপ্নপুরী বিনোদন স্পটে বেড়ানোর কথা বলে তাকে অপহরন করে নিয়ে ধর্ষনের চেষ্টা করে। গত ২২ জানুয়ারী কালুপাড়া ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার কালুপাড়া ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামের আকবার আলীর বড় ছেলে আকমল হোসেনের সঙ্গে ১৫ বছর আগে একই গ্রামের একরামুল হক বাবুর মেয়ে রোজিনার বিয়ে হয়। আত্বীয়তার সুবাদে আকমলের ছোট ভাই বোরহান আলী কারনে অকারনে বড় ভাইয়ের শ্বশুর বাবু মিয়ার বাড়ীতে প্রায় সময় যাতায়াত করত। এক পর্যায়ে ভাইয়ের শ্যালক দুলালের কলেজ পড়ুয়া মেয়ের (ভাতিজি) ওপর কুদৃষ্টি পড়ে বোরহানের।
এরপর থেকে লম্পট বোরহান ওই কলেজ পড়ুয়া মেয়েটিকে বিভিন্ন ধরনের প্রলোভন দেখিয়ে আসছিল।  এদিকে ওই কলেজ পড়ুয়া মেয়েটি কয়েকদিন আগে একই উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের ওসমানপুর গ্রামে ফুফা আনারুলের বাড়ীতে বেড়াতে যায়। ঘটনার দিন গত ২২ জানুয়ারী সকাল ১০টায় লম্পট বোরহান আলী তার মোবাইল ফোনে ওই কলেজ পড়ুয়া মেয়েটিকে (ভাতিজি) স্বপ্নপুরী নামে একটি বিনোদন স্পটে বেড়ানোর জন্য তাকে ফুফার বাড়ী থেকে পাবর্তীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া বাজারে আসতে বলে। এর আগে বোরহান আলী আগে থেকে তার কয়েকজন সাঙ্গ-পাঙ্গ ঠিক করে রাখে। এসময় মেয়েটি চাচার মোবাইল ফোনে প্রলোভনের ফাঁদে পড়ে, মধ্যপাড়া বাজারের সংলগ্ন একটি ব্রীজের কাছে আসা মাত্রই লম্পট বোরহানসহ তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা মেয়েটিকে (ভাতিজি) সুকৌশলে নিয়ে যায় ওই এলাকার এক বাড়ীতে। এসময় ওই বাড়ীতে কেউ না থাকায় বোরহান আলী তার ওই সাঙ্গ-পাঙ্গদের সহযোগীতায় মেয়েটিকে ওই বাড়ীর একটি ঘরে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এসময় মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে লম্পট চাচা বোরহানকে আটক করে এবং মেয়েটিকে উদ্ধার করেন। এসময় লম্পট বোরহানের সাঙ্গ-পাঙ্গরা অবস্থার বেগতিক দেখে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরে ওই লোকজন লম্পট বোরহানকে উত্তম মধ্যম দিয়ে ছেলে মেয়েটিকে তাদের অভিভাবকদের হাতে তুলে দেন। এ ঘটনায় এলাকার সাধারন মানুষের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
এদিকে এলাকার মাতব্বরা এ ঘটনাকে পুঁজি করে ছেলে-মেয়ের অভিভাবকদের কাছে সালিশ বৈঠক করে জরিমানা করার নাম করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার ফাঁদ পেতেছে।
লম্পট বোরহানের পিতা আকবার আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমার বড় ছেলের বউয়ের ভাতিজি হয় ওই মেয়েটি। সেই সম্পর্কে আমার ছেলে ও মেয়েটি (চাচা-ভাতিজি) আমি কি করে চাচার সাথে ভাতিজির বিয়ে দেই।
এদিকে মেয়েটি সিসি নিউজকে বলেন, বোরহান আলী আমাকে প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে তার অসৎ লোকজন দিয়ে আমাকে অপহরনসহ ধর্ষনের চেষ্টা করে। আমি এর সঠিক বিচার চাই। এর বিচার না পেলে আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোন উপায় নেই।
এ ব্যাপারে বদরগঞ্জ থানার ওসি জাহিদুর রহমান চৌধুরী বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email