CC News

খালেদাকে পাকিস্তানে যেতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

 
 

hasinaগাইবান্ধা: দেশে আর জঙ্গিবাদ দেখতে চায় না সরকার। পাশাপাশি কোনো ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বরদাস্ত করা হবে না বলেও কড়া হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।।তিনি বলেন,  বিএনপি নেত্রী দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে চায়। তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে একের পর এক মানুষ হত্যা করে চলেছেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না। তিনি শান্তি চান না। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডই তার কাছে বেশি প্রিয়। তিনি বাংলাদেশে না থেকে পাকিস্তানে চলে যেতে পারেন।

গাইবান্ধার শাহ আব্দুল হামিদ স্টেডিয়ামে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক জনসভায়  প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, উনি (খালেদা জিয়া) ভোট বন্ধ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পারেন নি। দেশের মানুষ উনার নির্দেশকে উপেক্ষা করে ভোট দিয়েছে।

খালেদা জিয়ার জন্মদিন নিয়ে কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্কুলে ভর্তির সময় উনার জন্ম তারিখ একটা, বিয়ের সময় একটা, পাসপোর্টে একটা এবং জাতির পিতার শাহাদাতবার্ষিকী ১৫ আগস্টেও উনার জন্ম দিন। শুধু নিজের নয়, তার স্বামীর জন্ম তারিখও উনি বদলে ফেলেছেন। জিয়াউর রহমানের জন্ম তারিখ ১৯ জানুয়ারি কিন্তু উনি বললেন ১৮ জানুয়ারি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন- আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে বিদ্যুত্, খাদ্য, তথ্যপ্রযুক্তি, যোগাযোগ, অর্থনীতিসহ সব ক্ষেত্রে দেশে উন্নয়ন হয়। এ দেশের মানুষকে কিছু দিতেই ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ মানে জনগণের সেবক।
শেখ হাসিনা বলেন, কোনো মা-বাবাকে পয়সা খরচ করে এখন বই কিনতে হয় না। সরকার তাদের হাতে বই তুলে দেয়। বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের হরতাল, অবরোধ ও রাস্তা কাটা সত্ত্বেও এ বছর আমরা সময়মতো বই শিক্ষার্থীদের পৌঁছে দিয়েছে।
খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার খুনিকে বাঁচাতে চেয়েছিলেন, পারেন নাই। যুদ্ধাপরাধের বিচার বন্ধ করতে চেষ্টা করেছেন, পারেন নাই। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার মাটিতে হবেই। বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।
৫ জানুয়ারি নির্বাচন ঠেকাতে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের প্রতি ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু গাইবান্ধায় চার পুলিশ সদস্যসহ ১০ জনকে হত্যা করা হয়েছে। তারা স্কুল-কলেজ ধ্বংস করেছে। এ সময় তিনি জানতে চান, মানুষ হত্যা, প্রিসাইডিং অফিসারের গায়ে আগুন দিয়ে, গরুকে হত্যা করে এবং ২০ হাজার গাছ কেটে ফেলে খালেদা জিয়া কী পেলেন।

এর আগে গাইবান্ধা সার্কিট হাইজে এক মতবিনিময় সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন,  নির্বাচনের পর সহিংসতার নামে বিএনপি ও জামায়াত সারাদেশে যা করেছে তা জঙ্গিবাদি তৎপরতা ছাড়া আর কিছুই না। তারা আন্দোলনের নামে সারাদেশে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। নাশকতার সঙ্গে জড়িত কাউকেই ছাড়া হবে না।

প্রধানমন্ত্রী আজ বিএনপি ও জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের হামলায় নিহত ও আহত পরিবারগুলোর সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এছাড়া তার ১৫টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার কথা রয়েছে।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনাকে স্বাগত  তোরণ-ব্যানার-ফেস্টুনে জেলা শহরটি নতুন রুপে সাজানো হয়েছে।

বিকেলে শেখ হাসিনা শাহ আবদুল হামিদ স্টেডিয়ামে ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে গোবিন্দগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, গাইবান্ধা টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট, প্রতিটি ১ হাজার টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৬টি খাদ্যগুদাম, সাঘাটা, পলাশবাড়ি ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৩১ শয্যার হাসপাতাল ৫০ শয্যায় উন্নীত ও জেলায় ইপিআই স্টোরের উদ্বোধন করবেন।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী পলাশবাড়ি ও ফুলছড়ি থানা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমপ্লেক্স, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র, গাইবান্ধা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং গাইবান্ধা শাহ আবদুল হামিদ স্টেডিয়ামের গ্যালারি সম্প্রসারণ, সুন্দরগঞ্জ-চিলমারী সড়কে তিস্তা নদীর উপর ১৪৯০ মিটার পিসি গার্ডার সেতু এবং সাঘাটা উপজেলায় বোনারপাড়া ইউপি অফিস-রামনগর বাজার সড়কে কাটাখালি নদীর উপর ৩৬০ মিটার পিসি গার্ডার সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উন্মোচন করবেন।

Print Friendly, PDF & Email