CC News

মার্চে বিএনপির কাউন্সিল

 
 

BNP Flagসিসি ডেস্ক: মার্চে দলের ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। চলমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে সাংগঠনিকভাবে নতুন উদ্যমে ঘুরে দাঁড়াতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। শিগগিরই কমিটি গঠন করে কাউন্সিলের আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি শুরু করবেন তারা। বিএনপির নীতি-নির্ধারক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিন বছর পরপর জাতীয় কাউন্সিল আয়োজনের বিধি রয়েছে বিএনপির গঠনতন্ত্রে। সে অনুযায়ী ২০১২ সালের ডিসেম্বরে ৬ষ্ঠ কাউন্সিল হওয়ার কথা। তবে বিরোধী দল হিসেবে আন্দোলনে ব্যস্ততা ও দেশের সার্বিক পরিস্থিতির কারণে সেটা পারেনি বিএনপি। ২০১৩ সালে একবার কাউন্সিল আয়োজনের প্রাথমিক প্রস্তুতি নিলেও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পুলিশি অভিযানসহ দেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি সরে আসে দলটি। তবে নির্বাচন কমিশনের বিধি মেনে ২০১৩ সালের ২৪শে সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশনে আনুষ্ঠানিক চিঠি দিয়ে ২০১৪ সালের ৩১শে মে পর্যন্ত কাউন্সিল আয়োজনের সময় চায় দলটি। সূত্র জানায়, ৫ই জানুয়ারি একতরফা জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় টানা হরতাল ও অবরোধ কর্মসূচির কারণে মামলা জালে জড়িয়ে পড়েছে বিএনপির কেন্দ্রীয় থেকে তৃণমূল নেতারা। দলের স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্যসহ সারা দেশে অন্তত শতাধিক কাউন্সিলর বর্তমানে কারাবন্দি। সরকারি দলের হামলা, পুলিশি অভিযানে নিহত ও মৃত্যুবরণ করেছেন অনেকেই। এমন পরিস্থিতিতে কাউন্সিলের মাধ্যমে ফের সাংগঠনিকভাবে ঘুরে দাঁড়াতে চায় বিএনপি। আসন্ন ৬ষ্ঠ কাউন্সিল অনুষ্ঠানের স্বার্থে নেতাকর্মীদের সংগঠিত হতে নির্বাচন পরবর্তী কঠিন আন্দোলন থেকে অনেকটাই সরে এসেছে দলটি। আসন্ন জাতীয় কাউন্সিলে দলের নীতিনির্ধারক স্থায়ী কমিটি থেকে শুরু করে জাতীয় নির্বাহী কমিটি ও ঢাকা মহানগর কমিটি ভেঙে দিয়ে সাংগঠনিক ভিত্তি সুসংহত এবং একটি সুশৃঙ্খল বিএনপি গড়তে সার্বিক দিক বিবেচনা করে নতুন কমিটি গঠন করা হবে। এছাড়া কাউন্সিলের পর বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোও পুনর্গঠন করা হবে। সূত্র জানায়, আসন্ন কাউন্সিলে দলের মহাসচিব পদে পদায়নসহ বেশ কিছু বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। উল্লেখ্য, ২০০৯ সালের ৮ই ডিসেম্বর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিএনপির সর্বশেষ ৫ম জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ‘নানান মানুষ নানান পথ, দেশ বাঁচাতে ঐকমত্য’ স্লোগানকে সামনে রেখে কাউন্সিলে ১৯ দফা তুলে ধরেছিলেন চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। প্রযুক্তির ব্যবহার, কাউন্সিলে সুদূর লন্ডন থেকে টেলিকনফারেন্সে দলের ভবিষ্যৎ নেতা তারেক রহমানের ভাষণ, বিদেশীদের ব্যাপক অংশগ্রহণ, সরকারি দল আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণ, বর্ণাঢ্য মঞ্চসজ্জা, রঙিন পোশাকে কাউন্সিলরদের উপস্থিতি ও প্রত্যাশার চেয়ে বেশি নেতাকর্মীদের উপস্থিতি মিলিয়ে সে আয়োজন ছিল জাঁকজমকপূর্ণ। নেতাকর্মীদের বিপুল অংশগ্রহনে শেরেবাংলানগর পরিণত হয়েছিল জনসমুদ্রে। কাউন্সিলের থিম সং ছিল- ‘বন্ধু-সাথিরা এক মোহনায় মিলেছি সবাই এসে, লাখো শহীদের রক্তে রাঙানো পবিত্র এ দেশে’। ১৬ বছর পর ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত বিএনপির ৫ম জাতীয় কাউন্সিলে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছিল দলের গঠনতন্ত্রে। বাড়ানো হয়েছিল স্থায়ী কমিটিসহ প্রতিটি কমিটির পরিধি। গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের প্রস্তাব ও কাউন্সিলরদের অনুমোদনে খালেদা জিয়া আজীবন চেয়ারপারসন ও ভবিষ্যৎ নেতা তারেক রহমান পদাধিকার বলে স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। কাউন্সিলররা সর্বসম্মতভাবে নতুন কমিটি গঠনের দায়িত্ব দেন চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে। তিনি ওয়ান-ইলেভেনের দুঃসময়ের মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনকে পূর্ণাঙ্গ ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব দেন। দলের নীতি-নির্ধারক স্থায়ী কমিটি পুনর্গঠন করা হলে জায়গা পান ১২ জন নতুন মুখ। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ৩ বছরের জন্য ২০১০ সালের জানুয়ারি মাসে ৩৮৬ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়। ৫ম জাতীয় কাউন্সিলের পর ২০১০ সালের ৩১শে জুলাই ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে, ২০১১ সালের ২৩শে এপ্রিল মহানগর নাট্যমঞ্চ ও ২০১২ সালের ৮ই এপ্রিল ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে দলটির জাতীয় নির্বাহী কমিটির তিনটি সভা হয়।

উৎসঃ   manabzamin
Print Friendly, PDF & Email