CC News

কুড়িগ্রামে রায়হান হত্যার বিচারের দাবীতে সড়ক অবরোধ

 
 

Kurigram student murder pic-(01), 26-01-2014
শাহ আলম, কুড়িগ্রাম: অপহরণকারীদের হাতে নিহত কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র রায়হানকে (১৩) হত্যার প্রতিবাদে শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে।  রোববার সকালে স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রথমে কুড়িগ্রাম কলেজ মোড়ে সমবেত হয়। পরে শহরের শহীদ মিনার গোল চত্বরে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, কুড়িগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কালেক্টরেট কলেজিয়েট স্কুলের দু’সহস্রাধিক শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, বিক্ষোভ ও রাস্তা অবরোধের কারণে কার্যত কুড়িগ্রাম শহর দু’ঘন্টা অচল হয়ে পড়ে। এই শিশুদের সাথে রাস্তায় নেমে আসে শিক্ষক, অভিভাবকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। পরে তারা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও করে। এসময় বক্তব্য রাখেন শিক্ষার্থী হ্নদয়, কামরুল, স্বাধীন, রাকিব, রেজওয়ান খান, রাব্বি, হিমা, রাইসা, মীম, কাব্য প্রমুখ। এরপর শিক্ষার্থীদের পক্ষে একটি প্রতিনিধিদল জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে সাক্ষাৎ করে ৪ দফা দাবীতে একটি স্মারকলিপি প্রদান করে। তাদের দাবীগুলো হল-রায়হানের খুণীদের অবিলম্বে গ্রেফতার, খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী, কুড়িগ্রামকে অপহরণকারী চক্রের কবল থেকে মুক্ত করা এবং সকল শিশুদের নিরাপদ চলাফেরার পরিবেশ নিশ্চিত করা।
জানা যায়, অপহরণের ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ওই বাসার ভাড়াটিয়া নজরুলের স্ত্রী ঝর্ণা ও ছেলে সাগরকে আটক করা হয়। পুলিশ সাগর ও তার মা ঝর্নার রুম থেকে একটি আইপট, দুটি মোবাইল সেট, ২৫টি বিভিন্ন অপারেটরের সীমকার্ড এবং বিভিন্ন টাকা মূল্যের বিপুল সংখ্যক মোবাইল কার্ড উদ্ধার করে। এরই মধ্যে খুনের মিশনে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণকারী ফিরোজ, নাঈম ও রশীদ ইতিমধ্যে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখকে ফাকি দিয়ে ভারতে পালিয়েছে।
পুলিশের কাছে সাগর স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিতে জানায়, এই হত্যাকান্ডে কিলার গ্রুপে আরো ৪ জন জড়িত ছিল। খেলা ও পুরষ্কারের লোভ দেখিয়ে রায়হানকে ওই দুর্গম চরে নিয়ে যাওয়া হয়। হত্যা করা হবে বুঝতে পেরে রায়হান সাগরের পা ধরে অনেক কান্নাকাটি করে। চুরি করে বাড়ী থেকে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় রায়হান। তারপরও হ্নদয় গলেনি খুনীদের। ঠান্ডা মাথায় পরিকল্পিতভাবে সাগরসহ তার অপর ৪ সঙ্গী শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে রায়হানকে দুর্বল করে। শেষে রায়হানের গলায় ছুরি চালিয়ে জবাই করা হয়। সাগরের পিতা নজরুল ইসলাম বিশেষ মিশন নিয়ে প্রায় ৮ মাস আগে মটর সাইকেল ব্যবসায়ী এরশাদুল হকের বাড়ীতে ব্যাংকার পরিচয়ে বাসা ভাড়া নেন। কিন্তু তিনি থাকতেন টাঙ্গাইলে। ভাড়া বাসায় থাকত স্ত্রী ঝর্না ও পূত্র সাগর। তিনি মাঝেমাঝে বেড়াতে আসতেন। সর্বশেষ অপহরণের চারদিন পূর্বে তিনি চলে যান। এরপর থেকে তিনি আত্মগোপনে রয়েছেন। সাগরের দেয়া তথ্যমতে কুড়িগ্রাম শহরের বিত্তবান ৭ পরিবারের সন্তানকে টার্গেট করে তারা। এরা হলো-রায়হান, গালিব, মাহিন, হ্নদয়, সৌরভ, সাদিকুল ও বাঁধন। তবে এরা সবাই খেলা পাগল। তবে মূল উদ্যেশ্য ছিল অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়। কিন্ত রায়হানকে অপহরণের পর তারা ফেঁসে যায়। কারণ রায়হান এই চক্রের সবাইকে চিনে ফেলে। ফলে প্রাণ দিতে হয় রায়হানকে।
রায়হানের মা বিউটি বেগম সন্তানের শোকে শয্যাশায়ী। স্বজনরা চারপাশে ঘিরে ধরে শুশ্রুষা করছেন। এরপরও রায়হানের একটি ছবি বুকে চাপিয়ে বিলাপ করছেন মা বিউটি বেগম। বলছেন, আমার ছেলের স্বপ্নপূরণ হল না। ছোট বেলা থেকে ছিল সে ক্রিকেট পাগল। যেখানেই ক্রিকেট সেখানেই রায়হান। বাবা-মাকে সব সময় দোয়া করতে বলতো সে যেন বিকেএসপিতে ভর্তি হতে পারে। কারণ তার স্বপ্ন বড় ক্রিকেটার হওয়ার। কিন্ত তার সে স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেল। খুনীরা তার এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে ক্রিকেট খেলার কথা বলে লালমনিরহাটে নিয়ে গিয়ে দাবী করে মুক্তিপণ। মুক্তিপণের টাকা কম হওয়ায় পরে লাশ হয়ে ফিরল এই প্রতিশ্রুতিশীল ক্রিকেটার।
উল্লেখ্য যে, কুড়িগ্রাম শহরের হাসপাতাল পাড়ার মটরসাইকেল ব্যবসায়ী ইমরান মটরস’র মালিক এরশাদুল হকের ৪ সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে রায়হানকে (১৩)  কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে।  গত শনিবার খেলার কথা বলে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায় নিজ বাসার ভাড়াটিয়া নজরুলের ছেলে কুড়িগ্রাম কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের এসএসসি পরীক্ষার্থী সাগর। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে অজ্ঞাত মোবাইল থেকে ৫০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে অপহরণকারীরা। দাবী অনুযায়ী সাড়ে চার লাখ টাকা দেয়ার পরেও আরো টাকা দাবী করে অপহরণকারীরা। দাবীকৃত টাকা না দেয়ায় রায়হানকে হত্যা করা হয় বলে মনে করা হচ্ছে।  অপহরণের ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ওই বাসার ভাড়াটিয়া নজরুলের স্ত্রী ঝর্ণা ও ছেলে সাগরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক পুলিশ। তাদের দেয়া তথ্য মতে বুধবার বিকালে লালমনিরহাট জেলার মোগলহাট এলাকার ধরলাচরে বালু চাপা অবস্থায় রায়হানের মৃত:দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যাকান্ডের এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও মূল হোতারা এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। গোয়েন্দা বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে, এ চক্রের একাধিক সদস্য ইতিমধ্যে ভারতে পালিয়ে গেছেন।
এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন মিয়া জানান, অপহরণ ও হত্যার সাথে সংশ্লিষ্ট ২জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এটি একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এর মূল হোতাকে খুঁজছে পুলিশ। সাগর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বেশ কয়েকজনের নাম বলেছে। তদন্তের স্বার্থে তা প্রকাশ করা সম্ভব হচ্ছেনা। আসামীদের ধরার ব্যাপারে জোর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email