CC News

২০ কারণে প্রার্থীতা বাতিল করবে ইসি

 
 

ECসিসি নিউজ: চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ২০টি কারণের একটি কারণ পাওয়া গেলে সম্ভাব্য প্রার্থীদের অযোগ্য ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আর এ জন্য  রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দিয়েছে  ইসি।  রোববার নির্বাচন কমিশনের সহকারী সচিব আশফাকুর রহমান স্বাতির জারি করা এক পরিপত্রে এ নির্দেশনা দিয়েছে ইসি।

এতে বলা হয়েছে, ১৯৯৮ সালের উপজেলা পরিষদ আইনের ৮ ধারা অনুসারে চেয়ারম্যান  ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার অযোগ্যতা ২০টি। এর মধ্যে রয়েছে যদি কোনো সম্ভাব্য প্রার্থী বাংলাদেশের নাগরিকত্ব হারান বা পরিত্যাগ করেন, বয়স ২৫ বছর পূর্ণ না হয়, উপযুক্ত আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ বলে ঘোষিত হন, দেউলিয়া ঘোষিত হন বা দেউলিয়া ঘোষিত হওয়ার পর অব্যাহতি লাভ না করেন।

কোনো নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে অন্যূন দুই বছর কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং মুক্তিলাভের পর যদি পাঁচ বছর অতিবাহিত না হয়, প্রজাতন্ত্রের বা পরিষদের অন্য কোনো স্থানীয় কর্তৃপরে কোনো লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত থাকেন, জাতীয় সংসদের সদস্য বা অন্য কোনো স্থানীয় কর্তৃপরে চেয়ারম্যান বা সদস্য হন।

সম্ভাব্য প্রার্থী নির্বাচনের যোগ্যতা হারাবেন যদি তিনি বিদেশি কোনো রাষ্ট্র হতে অনুদান বা তহবিল গ্রহণ করে এ রূপ বেসরকারি সংস্থার প্রধান নির্বাহী পদ থেকে পদত্যাগ বা অবসর গ্রহণ বা পদচ্যুতির পর এক বছর অতিবাহিত না হয়।

এ ছাড়া প্রার্থী যদি সমবায় সমিতি এবং সরকারের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তি ব্যতীত সংশ্লিষ্ট উপজেলা এলাকায় সরকারকে পণ্য সরবরাহের জন্য বা সরকার কর্তৃক গৃহীত কোনো চুক্তির বাস্তবায়ন বা সেবা কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য তার নিজ নামে বা তার ট্রাস্টি হিসেবে কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের নামে বা তার সুবিধার্থে বা তার উপলে বা কোন হিন্দু যৌথ পরিবারের সদস্য হিসেবে তার কোনো অংশ বা স্বার্থ বা আছে এ রূপ চুক্তিতে আবদ্ধ হন।

তবে সম্ভাব্য প্রার্থী অযোগ্য হবেন না, যদি চুক্তির অংশ বা স্বার্থ তার উত্তরাধিকারসূত্রে বা উইলসূত্রে প্রাপক, নির্বাহক বা ব্যবস্থাপক হিসেবে হস্তান্তরিত হয় এবং স্থানাস্তরিত হওয়ার পর ছয় মাস সময় অতিবাহিত হয়, কোম্পানি আইন ১৯৯৪ অনুসারে কোনো পাবলিক কোম্পানির দ্বারা বা পে চুক্তিটি সম্পাদিত হয়েছে, যাতে তিনি একজন শেয়ারহোল্ডার মাত্র, তবে এর অধীন কোনো লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত পরিচালকও নন বা ম্যানেজিং অ্যাজেন্টও নন অথবা তিনি কোনো যৌথ হিন্দু পরিবারের সদস্য হিসেবে চুক্তিটিতে তার অংশ বা স্বার্থ নেই এ রূপ কোনো স্বতন্ত্র ব্যবসা পরিচালনাকালে পরিবারের অন্য কোনো সদস্য কর্তৃক চুক্তি সম্পাদিত হয়ে থাকে।
সম্ভাব্য প্রার্থীর পরিবারের কোনো সদস্য সংশ্লিষ্ট উপজেলার কার্য সম্পাদনে বা মালামাল সরবরাহের জন্য ঠিকাদার নিযুক্ত হন বা এর জন্য নিযুক্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অংশীদার হন বা উপজেলার কোনো বিষয়ে কোনো প্রকার আর্থিক স্বার্থ থাকে, তবে ওই প্রার্থী নির্বাচনের অযোগ্য হবেন। এখানে পরিবার বলতে প্রার্থীর ওপর নির্ভরশীল তার পিতা, মাতা, ভাই, বোন, স্ত্রী, পুত্র ও কন্যাকে বোঝানো হয়েছে।

সম্ভাব্য প্রার্থী নিজস্ব বসবাসের জন্য গৃহনির্মাণের ঋণ বা ক্ষুদ্র কৃষি ঋণ ছাড়া মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার তারিখে কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে গৃহীত কোনো ঋণ মেয়াদোত্তীর্ণ অবস্থায় যদি অনাদায়ী রাখেন, তবে তিনি যোগ্যতা হারাবেন।

যদি প্রার্থী এমন কোনো কোম্পানির পরিচালক বা ফার্মের অংশীদার হন, যার কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান হতে গৃহীতে কোনো ঋণ বা কোনো কিস্তি, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার তারিখে পরিশোধে খেলাপী হন, তবে তিনি প্রাথী হতে পারবেন না।

অন্যদিকে পরিষদ হতে কোন ঋণগ্রহণ করে তা অনাদায় হলে, দায়কৃত অর্থ পরিষদকে পরিশোধ না করলে, উপজেলা পরিষদের তহবিল তসরূফের কারণে দণ্ডপ্রাপ্ত হন, যদি বিগত পাঁচ বছরের মধ্যে দণ্ডবিধির ১৮৯, ১৯২, ২১৩, ৩৩২, ৩৩৩ ও ৩৫৩ ধারার অধীনে দোষী সাব্যস্ত হয়ে সাজাপ্রাপ্ত হন, জাতীয় আ আন্তর্জাতিক আদালত বা ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে দোষী সাব্যস্ত হন এবং কোনো আদালত কর্তৃক ফেরারি আসামি হিসেবে ঘোষিত হলেও কোনো ব্যক্তি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা হারাবেন।

এদিকে কোনো সরকারি বা আধা-সরকারি দপ্তর, কোনো সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা, স্থানীয় কর্তৃপ, সমবায় সমিতি বা প্রতিরা কর্ম বিভাগের চাকরি থেকে নৈতিক স্খলন, দুর্নীতি, আসদাচরণ ইত্যাদি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে চাকরিচ্যুত বা অপসারিত বা বাধ্যতামূলকভাবে অবসরপ্রাপ্ত হন এবং তার চাকরিচ্যুতি, অপসারিত হওয়ার বা বাধ্যতামূলকভাবে অবসরপ্রাপ্ত হওয়ার পার পাঁচ বছর অতিবাহিত না হয়, তবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিও উপজেলা পরিষদের ওই দুই গুরুত্বপূর্ণ পদে নির্বাচন করতে পারবেন না।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থপনা শাখার এক কর্মকর্তা বলেন, ইতিমধ্যে কমিশন এ বিষয়গুলোর আলোকে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে সম্ভাব্য প্রাথীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের নির্দেশ দিয়েছে।
শনিবার চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল। রিটার্নিং কর্মকর্তা ২৭ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করবেন। প্রথম ধাপে মোট ৯৮টি উপজেলায় আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি ভোট গ্রহণ করবে ইসি।

Print Friendly, PDF & Email