CC News

বিএনপি কেন নির্বাচনে যাবে এবং যাওয়া উচিত

 
 
।। আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী ।। ঢাকার একটি কাগজে খবর দেখলাম, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া জাতীয় ঐক্যের ডাক দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শুধু তা-ই নয়, এক-এগারোর আমলে যেসব সংস্কারপন্থী নেতাকে দল থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল, বেগম জিয়া তাঁদের আবার কাছে টেনে নেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। বিএনপির ভয়, এখনই কাছে টেনে নেওয়া না হলে আওয়ামী লীগ সরকার তাঁদের ভাগিয়ে নিয়ে পাল্টা বিএনপি খাড়া করে নির্বাচনে নামিয়ে আসল বিএনপিকে মাঠছাড়া করার ব্যবস্থা করতে পারে।
বেগম জিয়া তাই নড়েচড়ে বসেছেন। নিজের দলকে আবার খাড়া করা ও আওয়ামী মহাজোটের বাইরের অন্য দলগুলোকে, যেমন—ড. কামাল হোসেনের  গণফোরাম, কাদের সিদ্দিকীর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, ডা. বদরুদ্দোজার বিকল্প ধারা, প্রয়াত কাজী জাফরের জাতীয় পার্টি ইত্যাদি দলকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য গড়ার নামে আওয়ামী লীগবিরোধী একটি ছাতার নিচে সবাইকে আনার চেষ্টা শুরু করবেন।
এ ধরনের একটি উদ্যোগ বিএনপি আগেও গ্রহণ করেছিল। দলের মহাসচিব এই উদ্দেশ্যে ড. কামাল হোসেন, কাদের সিদ্দিকী প্রমুখ নেতার সঙ্গে আলাপ-আলোচনাও চালিয়েছিলেন; কিন্তু তা ফলপ্রসূ হয়নি। বিএনপির ঝরে পড়া শুকনো ধানের শীষে কেউ প্রাণ সঞ্চারে এগিয়ে আসেননি। কেন আসেননি, তখন তা জানা যায়নি। খবরের কাগজ থেকে যেটুকু জানা গিয়েছিল, তা হলো জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কের কারণে অন্য অনেক দল এই ঐক্য গড়ার ব্যাপারে উৎসাহ দেখায়নি। জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার নামে কৌশলগত সম্পর্ক রক্ষার যে উটপাখির নীতি বিএনপি গ্রহণ করেছিল, তা কারো চোখে ধুলা নিক্ষেপে সক্ষম হয়নি।
এবারও বিএনপির নেতৃত্বে সাইনবোর্ডসর্বস্ব দল নিয়ে নয়, কিছু প্রকৃত দল নিয়ে ঐক্য গড়তে চাইলে জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির যে আঁচলের গেরোটি রয়েছে, সে সম্পর্কে প্রশ্ন উঠবে। বেগম জিয়া তাঁর পুত্র ও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে রাজি করিয়ে কিভাবে এই সমস্যার সমাধান করেন তা দেখার রইল।
তারেক রহমান যে শুধু ১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধী জামায়াতের সঙ্গে ‘পারিবারিক আত্মীয়তা’ গড়ে তোলার রাজনীতির কারিগর তা-ই নন, তিনি মুক্তিযুদ্ধের সমর্থক দলের প্রবীণ ও সিনিয়র নেতাদেরও অনেককে দলছাড়া করার মূল হোতা। এই নেতারা বেগম জিয়া ডাক দিলেই তারেক রহমানের নেতৃত্ব মেনে দলে আগের অবস্থান নিতে কতটা আগ্রহী হবেন, তা এখনই বোঝা যাবে না। বোঝা যাবে আর কিছুদিন পর, যখন আগামী সাধারণ নির্বাচনের দিনটি ক্রমেই দ্রুত এগিয়ে আসবে।
দল পুনর্গঠন অথবা জাতীয় ঐক্য গঠন, যে নামেই হোক, দীর্ঘদিন ঝিমিয়ে থাকার পর বিএনপির এই নড়াচড়া আমাকে আশান্বিত করেছে। আমার ধারণা, বিএনপি এখন মুখে যা-ই বলুক, যতই বিভিন্ন দাবি তোলার আগড়ম-বাগড়ম করুক, তারা আখেরে নির্বাচনে যাবে। এবং যাবে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনেই। তারা জানে, আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে তারা আবার ট্রেন মিস করবে। আর এবার ট্রেন মিস করলে তাদের, বিশেষ করে দলের বর্তমান নেতৃত্বের আর ক্ষমতার ট্রেনে ওঠা সম্ভব হবে না। খালেদা জিয়ার বয়স হয়েছে। তিনি নানা রোগে আক্রান্ত। দীর্ঘ ‘বনবাসে’ তারেক রহমানও শক্তি ও আয়ু ক্ষয় করছেন। তাঁরও আর ‘অযোধ্যায় ফেরা’ হবে কি না সন্দেহ। হাওয়া ভবনের ‘সীতা’ হয়তো আর রাবণপুরী থেকে মুক্ত হবে না।
বিএনপি দলছুটদের দল। দীর্ঘকাল ক্ষমতার বাইরে থাকলে এ ধরনের দলের অস্তিত্ব থাকে না। তবু বিএনপি যে টিকে আছে তার প্রধান কারণ, বাংলাদেশে এখনো ধর্মীয় জাতীয়তায় বিশ্বাসী ও কমবেশি পাকিস্তানপন্থী একটি শক্তিশালী গোষ্ঠী যেমন প্রশাসনের ভেতরে আছে, তেমনি বাইরেও আছে। তাদের বিদেশি পৃষ্ঠপোষকও আছে। তার ওপর বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয় এমন কট্টর মৌলবাদীরাও এসে বিএনপির ছাতার তলে আশ্রয় নিয়েছে। এ ছাড়া দেশের মানুষ চেয়েছে দ্বিদলীয় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা। সে ক্ষেত্রে স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগের প্রায় সমকক্ষ দল হয়ে উঠতে পেরেছে বিএনপি। মানুষ চেয়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে ক্ষমতার নিয়মিত হাত বদলে দেশে বহুদলীয়, বিশেষ করে সুস্থ দ্বিদলীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে উঠুক।
বিএনপি এই গণতান্ত্রিক রাজনীতির পথে সব সময় অটল না থেকে চক্রান্তের ও সন্ত্রাসের রাজনীতির পথ ধরায় এতকাল বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা গড়ে উঠতে গিয়েও বারবার হোঁচট খেয়েছে। ২০১৪ সালে বিএনপির নির্বাচন বয়কট ও নির্বাচন বানচাল করার সন্ত্রাসী রাজনীতির (জামায়াতের সহায়তা) মোকাবেলায় হাসিনা সরকার যদি কঠোর নীতি গ্রহণ না করত ও নির্বাচন অনুষ্ঠানে সক্ষম না হতো, তাহলে ১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও দণ্ডদান যেমন সম্ভব হতো না, তেমনি অর্ধতালেবানি দুঃশাসনের প্রতিষ্ঠা ঠেকিয়ে রাখা যেত না।
আন্দোলনের নামে মানুষ পোড়ানোর সন্ত্রাস দ্বারা গণতান্ত্রিক সরকারের পতন ঘটাতে ব্যর্থ হওয়া ও একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের দণ্ডদান বানচাল করতে না পারার কারণেই জামায়াতের কোমর ভেঙে গেছে এবং বিএনপির আজ এই দুরবস্থা। এখন জামায়াত ও বিএনপি হরতালের ডাক দিলে তা প্রহসনে পরিণত হয়। বিএনপি জানে, আন্দোলনের নামে কোনো সন্ত্রাস ও পর্দার আড়ালে কোনো চক্রান্ত চালিয়ে আর তারা সরকারের পতন ঘটাতে পারবে না এবং নির্বাচনও ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না। তাই আমার নিশ্চিত ধারণা, বিএনপি আগামী সাধারণ নির্বাচনে কোনো ধরনের শর্ত ছাড়াই যোগ দেবে। জামায়াতের সঙ্গে গোপন অথবা প্রকাশ্য আঁতাত বজায় রেখেও এই নির্বাচনে হয়তো জয়লাভ করা যাবে না—এটা জেনেই তারা তাদের তথাকথিত কুড়ি জোটের বাইরের অন্য দলগুলোর সঙ্গে জাতীয় ঐক্যের নামে জোট গঠন করতে চাইছে। এটি হবে আসলে আওয়ামী লীগবিরোধী জোট। বিএনপির এই সম্ভাব্য উদ্যোগই প্রমাণ করে তারা এবার নির্বাচন বর্জনের আত্মঘাতী নীতি গ্রহণ করতে যাবে না।
এখানে প্রশ্ন, বিএনপি-জামায়াত সম্পর্কের ক্ষেত্রে তাহলে কী ঘটবে? আমার ধারণা, বিএনপি তাদের কৌশলের অংশ হিসেবে জামায়াতের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেবে। কিন্তু একটি গোপন সন্ধি করবে। এক বিরাটসংখ্যক জামায়াতিকে তারা নিজেদের দলের প্রার্থী পরিচয়ে নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেবে। জামায়াতও নির্বাচনে অনিবন্ধিত বা অচ্ছুৎ দল হিসেবে এ ব্যবস্থা মেনে নিতে বাধ্য হবে। তাতেও ‘জাতীয় ঐক্য’ গড়ার ডাক কতটা সফল হবে তা বলা মুশকিল। কারণ পড়ন্ত সূর্যের নিচে আশ্রয় নিতে সহজে কেউ চায় না।
বিএনপি আগামী নির্বাচনে যোগ দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে, অথচ মুখে বলছে নির্বাচনকালীন একটি সহায়ক  সরকার গঠন করা না হলে তাদের নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিশ্চিত নয়। অনেকের ধারণা, এটা বর্তমান সরকারের সঙ্গে তাদের দর-কষাকষি ও চাপ সৃষ্টির কৌশল। যদি এই কৌশল সফল হয় ভালো। না হলে নির্বাচনে যোগ দেওয়ার দুয়ার তো খোলা  আছেই। অন্যদিকে সরকারও তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করে রেখেছে। যে দল নির্বাচনে যোগ দেবে না তারা নিবন্ধন হারাবে। বিএনপি এই নিবন্ধন হারালে এবং আগামী সংসদে তাদের উপস্থিতি না থাকলে তারা রাজনৈতিক অস্তিত্ব হারাবে। অনেক রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকের  ধারণা, এই ভয়ই বিএনপিকে তাড়া করে নির্বাচনে নিয়ে যাবে। তবে তার আগে পর্যন্ত তারা সাপ হয়ে দংশন করতে ও ওঝা হয়ে বিষ নামাতে চাইবে।
আগামী সাধারণ নির্বাচনে বিএনপি যোগ না দিলে শুধু রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন হারাবে তা নয়, ক্ষমতাহারা বিএনপিতে বেগম জিয়া নেতৃত্ব ধরে রাখতে পারবেন না। অসুস্থতাও তাঁকে কাবু করে ফেলবে। লন্ডনে পলাতক তারেক রহমানেরও দেশে ফেরা ও কারাবাস এড়ানো অসম্ভব হয়ে পড়বে। চাই কি অন্য নেতৃত্বে একটি পাল্টা বিএনপি খাড়া হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়ে আসল বিএনপিকে মাঠছাড়া করে দিতে পারে। কেন পাকিস্তান আমলে আইয়ুবের কনভেনশন মুসলিম লীগ  কি আদি কাউন্সিল মুসলিম লীগকে রাজনীতির মাঠে কোণঠাসা করে ফেলেনি? অবিভক্ত ভারতের প্রবীণ  মুসলিম লীগ নেতা আবুল হাশিমও তো আইয়ুবের কনভেনশন মুসলিম লীগে যোগ দিয়েছিলেন!
আর বিএনপি যদি নির্বাচনে যায়, তাহলে তার যে ভোট ব্যাংকটি এখনো অভগ্ন আছে, তার জোরে নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো অপ্রত্যাশিত বিজয় লাভ করবে না তা কে বলতে পারে? আমার ধারণা, আগামী সাধারণ নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় যেতে না পারলেও সংসদে শক্তিশালী বিরোধী দল গঠন করতে পারবে। তা বাংলাদেশের রাজনীতিতে একদলীয় শাসনের অবসান ঘটিয়ে প্রকৃত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার শাসনের পথ উন্মুক্ত করবে। ইচ্ছায় হোক, অনিচ্ছায় হোক, আওয়ামী লীগকেও দীর্ঘকাল একতরফা দেশ শাসন করতে হওয়ার ফলে তাদের অনেক মন্ত্রী, এমপি ও নেতার মধ্যেও ক্ষমতার দম্ভ ও তার অতি ব্যবহার বা অপব্যহারের প্রবণতা দেখা দিয়েছে। গণতন্ত্রের সুস্থ বিকাশের জন্য এটা ভালো নয়।
তাই দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের সঙ্গে আমারও কামনা, জামায়াতের বিষাক্ত আলিঙ্গন ছিন্ন করে বিএনপি অন্যান্য সমমনা বিরোধী দলের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাবে। নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যাক আর বিরোধী দল হিসেবে থাকুক, দেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করুক, তাকে শক্তিশালী করুক এবং তার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখুক। গণতান্ত্রিক দুনিয়ার সব দেশেই ক্ষমতাসীন সরকারের তত্ত্বাবধানেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশেও তা হওয়া উচিত। নির্বাচন যাতে অবাধ ও সুষ্ঠু হয় সে জন্য বিএনপিরও সহযোগিতা প্রয়োজন। শুধু অশুভ ও অপ্রয়োজনীয় বিরোধিতা নয়।  (কালের কণ্ঠ)
Print Friendly, PDF & Email