CC News

স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণ, ভয়ে অভিযোগ করছে না পরিবার

 
 

সাভার : সাভারে নিজ বাড়ির সামনে থেকে অস্ত্রের মুখে এক স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে রাতভর গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে চার বখাটের বিরুদ্ধে। তবে ধর্ষণকারীরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করতে সাহস পাচ্ছে না ভুক্তভোগী মেয়েটির পরিবার।

বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ) রাতে সাভার সদর ইউনিয়নের মিটন গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে রবিবার (১২ মার্চ) দুপুরে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

মেয়েটির বাবা অভিযোগ করেন, তার মেয়ে মিটন গ্রামের একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। বৃহস্পতিবার রাতে পার্শ্ববর্তী সুলতানের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে রাত ১২টার দিকে বাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। একপর্যায়ে বাড়ির সামনে এসে পৌঁছালে সেখানে আগে থেকেই ওৎ পেতে থাকা একই গ্রামের চার বখাটে সিরাজের ছেলে আনোয়ার, সুমনের ছেলে সুজন, আয়নালের ছেলে রনি ও দুখা মিয়ার ছেলে সাইদুল অস্ত্রের মুখে তার মেয়েকে তুলে নিয়ে যায়। পরে পাশের একটি জঙ্গলে নিয়ে তার উপর পালাক্রমে পাশবিক নির্যাতন চালায় এবং ভোর হয়ে আসলে বখাটেরা তাকে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজির পর শুক্রবার সকালে গুরুত্বর আহত অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

ধর্ষণের স্বীকার স্কুলছাত্রী জানায়, চার বখাটে তাকে অস্ত্র ঠেকিয়ে তুলে নেওয়ার পর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রী বখাটেদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছে।

এদিকে ধর্ষণকারীরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় এ বিষয়ে থানায় কোন অভিযোগ করলে ওই পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছে।

সাভার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল রানা গণধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা আমার কাছে বিচার দাবি করেছে। তবে আমি বলেছি যেহেতু এটি গণধর্ষণ তাই আপনি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়া এ বিষয়ে প্রয়োজনে যে কোন সহায়তা করার প্রতিশ্রুতি দেন।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, গণধর্ষণের কথা শুনে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসী ও স্কুলছাত্রীর বাবার সাথে কথা বলেছি। কিন্তু ওই ছাত্রীর বাবা বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং থানায় অভিযোগ করতে অস্বীকৃতি জানান। তবে এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Print Friendly