CC News

বাসর রাতের ফুলশয্যা একটি ঘরে, পাশের ঘরে গুলিবিদ্ধ দু’টি লাশ

 
 

বিশেষ প্রতিনিধি: এক ঘরে বাসর রাতের ফুলশয্যা। পাশের দু’টি ঘরে পীর ও তার গৃহকর্মী’র গুলিবিদ্ধ লাশ। চাদরে মোড়ানো। ভক্ত-মুরিদরা ভেবেছিলেন, পীর বাবা ঘুমাচ্ছেন। দরবারের সময় হয়েছে, তাই শরীরে হাত বুলিয়ে ডাকতেই চাদর সরে যায়। দেখে পীর বাবা’র রক্ত মাখা লাশ! চিৎকার দিলে অন্যান্যরাও দৌঁড়ে এলেন। দেখলেন, পাশের ঘরে তার গৃহকর্মীরও গুলিবিদ্ধ রক্ত মাখা লাশ !
এই দৃশ্য দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার ৬ নং আটগাঁ ইউপি’র রামপুর দৌলা গ্রামে কথিত পীর ফরহাদ হোসেন চৌধূরী’র আস্থানার। সোমবার রাত অনুমানিক সাড়ে ৯টায় কে বা কারা এই পীরসহ তার গৃহকর্মীকে গুলি করে হত্যা দুবৃর্ত্তরা। বুকে তাদের বেশ কয়েকটি গুলির চিহ্ন রয়েছে। হত্যার পর আবার তাদের চাদর মুড়িয়ে ঢেকে রেখে গেছে হত্যাকারীরা।
নিহত কথিত পীর ফরহাদ হোসেন চৌধূরী (৫৫) দিনাজপুর পৌর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এবং দিনাজপুর মোটর পরিবহন মলিক গ্রুপে’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক। তিনি দিনাজপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পথে বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও করেছেন। তিনি দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গা এলাকায় বসবাস করতেন। ৬/৭ বছর আগে তিনি হঠাৎ দাঁড়ি রেখে জুব্বা আলখেল্লা পড়ে পীর আউলিয়া বনে যান। আস্থানা গাড়েন তার গ্রামের বাড়ি দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার ৬ নং আটগাঁ ইউপি’র দৌলা গ্রামে। সেখানে একটি খানকা (দরবার শরীফ আস্থানা) গড়ে তুলেন। আশপাশ এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানের বিশ কিছু মুরিদ ও ভক্ত তৈরী হয় তার। সেখানে নিয়মিত কথিত পীর ফরহাদ হোসেন চৌধূরী’র দরবার শরীফে বসতেন। সোমবার রাত সাড়ে ৯টায়  হঠাৎ একদল দূবৃর্ত্ত তার আস্থানায় হামলা চালায়। শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে কথিত পীর ফরহাদ হোসেন চৌধূরী ও তার গৃহকর্মী রুপালী (১৮)কে গুলি করে পালিয়ে যায় দূবৃর্ত্তরা। তাদের দু’জনের বুকে বেশ কয়েকটি গুলি করা হয়েছে।
এলাকাবাসী এঘটনা পুলিশকে জানালে পুলিশ র‌্যাব ঘটনাস্থলে যায়। এলাকাবাসী ও পীরের ভক্ত মুরিদরা জানায়, নিহত গৃহকর্মী রূপালী’র বিয়ে হয়েছে ৩ দিন আগে। পাশের ঘরে তার বাসর রাতের ফুল শয্যাও রয়েছে। কিন্তু ঘটনার পর থেকে তার নব বিবাহিত স্বামী শফিকুল নিখোঁজ রয়েছে। শফিকুলের বাড়ি চাপাইনবারগঞ্জে। সে কাপড় ব্যবসার সাথে জড়িত বলে জানান এলাকাবাসী। ছোট থেকেই ফরহাদ হোসেন চৌধূরী’র গ্রামের বাড়িতে রূপালী কাজ করে। তার বাড়ি পাশ্ববর্তী দৌলা পাবনা পাড়ায়।
ফরহাদ হোসেন চৌধূরী পীর সাজার পর নামাজ আদায় করা ঠিক না বলে প্রচার করতেন তার ভক্ত ও মুরিদদের কাছে। এছাড়াও ইসলাম বিরোধী কিছু কর্মকান্ড করায় এলাকার কতিপয় ব্যক্তি’র সাথেও তার বিরোধ বাধে। হঠাৎ পীর সাজা এবং ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ডে পরিবারের সাথেও মতবিরোধ সৃষ্টি হয় ফরহাদ হোসেন চৌধূরী। এমনকি তার বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজনের সাথেও তার মতবিরোধ দেখা দেয় তার হঠাৎ পীর সাজা এবং ধর্ম বিরোধী কর্মকান্ডে।
এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন বোচাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মোহাম্মদ শাহজাহান শাহ। তিনি জানান, ঘটনার ক্লু খোজাঁ হচ্ছে। ঘাতকরা অচিরেই ধরা পড়বে। পুলিশের ধারনা, ইসলামী চরমপন্থি কোন গ্রুপ ঘটাতে পারে এ ঘটনা।
পীর ও তার গৃহকর্মী’র লাশ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। আতংকে রয়েছে অনেকেই।
কথিত পীর ও তারা নারী মুরিদের হত্যাকান্ডের পর ইতমধ্যে জোর তদন্ত শুরু হয়েছে। আলামত সংগ্রহ করছে সিআইডি’র একটি দল। তবে এখন অবধি মেলেনি কোন ‘ক্লু’। জানা গেছে,বেশ কয়েকটি বিষয় সামনে রেখে অনুসন্ধান চালাচ্ছে পুলিশ । প্রাথমিক তদন্তের বরাত দিয়ে এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে পুলিশের একটি তদন্ত সুত্র জানায়, ‘ধরন দেখে মনে হচ্ছে ঘটনার সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।’ তবে  নিহত কথিত পীরের রাজনৈতিক জীবন, ব্যাক্তিগত জীবনে ব্যবসায়িক কোন ঝামেলা অথবা বিরোধ ছিলো কী না ? সে বিষয়ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে  বলে জানায় ঐ তদন্ত সুত্রটি ।
প্রতিবেশী  শামসুল মিয়া জানান, ফরহাদ হোসেন চৌধুরী পরিবার নিয়ে দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গায় থাকতেন। তাঁর স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। সন্তানদের নাম আশিক, এমি ও অর্ণব।
তিনি আরও জানান, ৬/৭ বছর ধরে এই দরবার শরিফটি চলছে। এটি চালাতেন ফরহাদ হোসেন চৌধুরী। সেখানে প্রতিদিন রাতে মুরিদরা আসতেন এবং জিকির করতেন। বিকেলের দিকে ফরহাদ হোসেন শহর থেকে গাড়ি করে দরবার শরিফে চলে আসতেন।
প্রতিবেশীদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, প্রায় ৬/৭ বছর আগে নাগরিক জীবনের সবকিছু ছেড়ে আকস্মিক ধর্ম কর্মে মনোনিবেশ করেন ফরহাদ হোসেন চৌধুরী।  সেসময় সবার কাছে রাজনৈতিক পরিচয়ের চেয়ে নিজেকে পীর পরিচয়ই বেশি দিতেন তিনি। লোকজনও তাঁকে সে ভাবেই চিনত। রাজনৈতিক অঙ্গন ও মটর মালিক সমিতিতে নিজের  ভালো অবস্থান থেকেই অনেক শ্রেনী-পেশার মানুষের সাথে সু-সম্পর্কের সুবাদে অল্প সময়েই নিজের বেশ কিছু ভক্ত অনুরাগী তৈরি করে বনে যান কথিত পীর।
প্রতিবেশীরা জানায়, ধীরে ধীরে  ফরহাদ হোসেন বাড়িতে পীরের আখড়া গড়ে তুলেছিলেন। একসময়  বাড়িটি ‘দৌলা দরবার শরিফ’ নামে পরিচিত হয়ে পড়ে আশেপাশের মানুষদের কাছে । গত কয়েকবছর  ধরে এ কথিত পীরর এই আস্তানায়  সপ্তাহে এক দিন আনুষ্ঠানিকভাবে মুরিদরা ‘জিকির-আজকার’ করতেন।  এ ছাড়াও  প্রায় দিনই  এই আস্তানায় কমপক্ষে শতাধিক মুরিদ ভক্ত জমায়েত হতেন এবং রাতভর চলতো জিকির । প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, জিকির শুরুর আগে আগে, তখনো লোকজন জড়ো হয়নি এমন সময় ৬-৭ জন দুর্বৃত্ত দরবার শরিফে ঢুকে প্রথম ‘হুজুরকে’  চাকু দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে ও গলা কাটে। পরে গুলি করে হত্যা করে। এ সময় রূপালী বেগম চিৎকার করলে দুর্বৃত্তরা একই কায়দায় তাঁকেও পাশের আরেকটি ঘরে হত্যা করে।
দৌলা দরবার শরিফের খাদেম সায়েদুল বলেন, প্রতিদিন রাতে দরবারের জিকির ও মিলাদ হতো। জিকিরে অংশ নিতে সুমি (৫২) নামের এক মুরিদ রাতে দরবারে আসেন। দীর্ঘক্ষণ হুজুরকে (ফরহাদ) ঘুমিয়ে থাকতে দেখে তিনি আমাকে ডাক দেন। আমি এসে দেখি হুজুরের রক্ত মাখা লাশ। পরে পরিবারের অন্যদের খোঁজ নিতে গিয়ে পাশের একটি কক্ষে গৃহকর্মী রুপালিকেও মৃত অবস্থায় দেখতে পাই। ’
ঘটনাস্থলে থাকা জেলা পুলিশ সুপার হামিদুল হক জানান জানান, পুলিশ এরই মধ্যে তদন্তে নেমে গেছে। সিআইডির সদস্যরা আলামত সংগ্র করছে। পুলিশ সুপার হামিদুল আলম প্রাথমিক তদন্তের বরাতে  সাংবাদিকদের আরও বলেন, নিহত ফরহাদ হোসেন  চৌধুরী ‘দৌলা খানকার পীর’ হিসেবে পরিচিত। তিনি বিএনপির সাবেক পৌর সভাপতি ছিলেন। স্থানীয়রা জানায়, গেলো ৮ বছর ধরে ফরহাদ হোসেন আখড়াটি চালাচ্ছেন। সপ্তাহে একদিন বিশেষ জিকিরের আসর বসে। আজও এরকম জিকিরের আগে সুযোগ বুঝে দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।

Print Friendly