CC News

‘সুপার’ হিরো ও ‘বেচারি’ নায়িকা

 
 

।। লীনা পারভীন ।। যে কোনো সম্পর্কের মধ্যে আস্থা, বিশ্বাস আর প্রতিজ্ঞা থাকাটা খুব জরুরি। যখনই এই বিষয়গুলো অনুপস্থিত হয়ে যায়, তখনি সে সম্পর্কটা হয়ে দাঁড়ায় স্থুলতার সম্পর্ক, যেখানে থাকে কেবল উদারতার আড়ালে মজা নেয়া।

নারী-পুরুষ ঘটিত যে কোনো ঘটনা বিশ্লেষণে একটা জায়গায় আমরা বারবার ভুল করি। আর তা হচ্ছে প্রেম বা ভালোবাসার বিষয়টা দাঁড়িয়ে থাকে দুজন মানুষের একের প্রতি অন্যের শ্রদ্ধাবোধের ওপর। সেই শ্রদ্ধাবোধের থেকেই ভরসা জন্মায়, বিনিময়ের বিষয়গুলো ঘটে। নিজেকে সমর্পণ করে একে অপরের কাছে। তাই জীবনের কোনো একটা স্তরে গিয়ে সে সম্পর্ক থাকবে কি থাকবে না সেটা বিবেচ্য নয়।

দুটি মানুষের কাছে আসার যেমন কারণ থাকে, তেমনি সম্পর্ক না থাকার পেছনেও থাকতে হয় যুক্তি। সিম্পল ভালো না লাগাটাও একটা যুক্তি; কিন্তু সেটাও হতে হয় দুজনের ঐকমত্য থেকেই। সম্পর্ক ভেঙ্গে গেলেও সেখানে পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও সম্মানটা থেকে যায়। এক্ষেত্রে আবেগে জড়ানোটা ভুল না সঠিক, সেটা নির্ধারণ করা যায় না। প্রেম হিসাব করে হয় না। স্টপওয়াচ নিয়ে আবেগের বিনিময় করে না কেউ। এখানে ব্যক্তির মূল্যবোধ হয় নীতি নির্ধারক।

অপু বিশ্বাস কিন্তু শাকিবকে ভরসা করেই নিজেকে সমর্পণ করেছিলো। শাকিব খান বারবার তার সেই বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে তাকে অস্বীকার করেছে। এমনকি সন্তানের জন্মের পরও সে আড়ালেই রেখেছে। এখানে আলোচনার ক্ষেত্রে দুটি বিষয় বিবেচ্য-

১. শাকিবের সন্তানের দায়িত্ব নেয়া, যেটা সে ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে। কারণ সে জানে এটাই তার বেঁচে যাওয়ার অন্যতম রাস্তা।

২. অপু বিশ্বাসের প্রতি তার অবিশ্বাসী আচরণ।

অপুর ভেতরের কষ্ট বাইরে থেকে কেউ বুঝতে পারবে না। একজন মানুষ যাকে সে ভালোবেসেছিলো, যার ভালোবাসার জন্য সে নিজের ক্যারিয়ার নষ্ট করেছে। তার কাছ থেকে এই আচরণ কতটা হৃদয়বিদারক এই বিষয়টা বিবেচনায় না আনাটা খুব অন্যায়। আমরা এখানেও হয়তো এই নারীর হৃদয়ের কান্নাকে অবহেলাই করে যাবো। শাকিব ঠিকই তার সন্তানকে হয়তো নিয়ে যাবে, তার ক্ষমতার জোরে। এই সমাজ শাকিবকে বাহবা দেবে সে সন্তানের দায়িত্ব নিয়েছে বলে। অপু সেখানে একজন গণিকার খ্যাতি পাবে।

অপুরা পড়ে থাকে সবার আড়ালে, তাদের হৃদয়ের কথা কেউ জানতে চায় না। কেউ খোঁজ নেবে না সে কতটা কষ্ট পেয়েছে ভালোবাসার এমন নিষ্ঠুর প্রতিদানে। হয়তো দেখা যাবে সে তার সন্তানকে দেখার জন্য আবার শাকিবের পেছনেই ঘুরছে। কী ছিলো না তার? জশ, খ্যাতি, প্রতিষ্ঠা, অর্থ সবই ছিলো। শাকিবের চেয়ে কম কিছু নয়। সব ছেড়েছিলো এক ভালোবাসার টানে।

এ সমাজ বড় নিষ্ঠুর। নারীর অস্তিত্বকে এভাবেই পায়ে ঠেলে দেয়। নারীর আত্মত্যাগ কেউ দেখে না, স্বীকৃতি দেয় না। আমরাই গালি দেব বোকা বলে। কেন সে বুঝতে পারলো না বা কেন সে একজন পুরুষের জন্য নিজেকে সর্বনাশী করলো।

মনে রাখতে হবে, আমাদের সমাজ নারীবাদী সমাজ নয়। নারীরা এখনো প্রচলিত ধ্যানেই চলে। সে এখনো একজন পুরুষের জন্যই নিজেকে প্রস্তুত করে, নিজেকে সাজায়। তাই অতসব জ্ঞানের কথা তার মাথায় কাজ করে না। নায়িকা হলেও তার কাছে নারীর জীবন মানে একজন ভালো বর পাওয়া, সন্তানের মা হওয়া।

ভেবে দেখুন, আমরা যারা নিজেকে সচেতন ভাবি, তারাও কি এই আবেগের ফাঁদে পড়ি না? একই ভুল কি আমরাও করি না? আমাদের সমাজে এমন হাজার নারী আছে যারা এখনো পুরুষের কাছে বন্দী, আবেগের ছলে ভুল করে চলেছি। পুরুষের বিভিন্নরকম ছলনায় নিজেকে শান্ত রাখি। কয়জন সাহস করে মুখ খোলার? ভেবে দেখুন তো আমাদের স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বা কর্মক্ষেত্রে ঘটছে কি না?

ধোকা না খেলে কেমন করে বুঝবেন যে আপনি যে পুরুষটিকে বন্ধু ভাবছেন, সে আপনার আবেগকে ব্যবহার করছে? কয়টা মেয়ের বোঝার ক্ষমতা আছে বা অনেকসময় বুঝতে পারলেও এড়াতে পারে?

এ বড় জটিল হিসাব। একপেশে ভাবলে অন্যায় হয়। অবিচার হয়। আমি চাই, অপুর প্রতি অন্যায়ের শাস্তি হোক। একজন নারীর আবেগ নিয়ে খেলার সাহস যেন কোনো পুরুষ দেখাতে না পারে সে উদাহরণ তৈরী হোক।

অপুরা থেকে যায় সমাজের চোখে পুরুষের ইচ্ছার পুতুল হয়ে, এ বিশ্বাস থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

লেখক : সামাজিক গণমাধ্যমকর্মী

Print Friendly, PDF & Email