CC News

১৪২৩ সনের চৈত্রের শেষ দিন আজ

 
 

সিসি নিউজ: আজ চৈত্র সংক্রান্তি। ১৪২৩ সনের চৈত্রের শেষ দিন। বসন্তেরও শেষ দিন। বাংলা লোকসংস্কৃতির নানা আচার-অনুষ্ঠানে হাজার বছর ধরে বহমান চৈত্র সংক্রান্তির মূলকেন্দ্র গ্রামবাংলা হলেও নগর সংস্কৃতিতেও এখন এর উজ্জ্বল প্রভাব। নানা আয়োজনে আজ যখন চৈত্র সংক্রান্তির পার্বন, তখন একইসঙ্গে দুয়ারে কড়া নাড়ছে সর্বজনীন উৎসবের নববর্ষ পহেলা বৈশাখ। গ্রামবাংলায় রকমারি সামাজিক আচারের মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করা হয়। দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ যেমন মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া এবং কম্বোডিয়াতে সংক্রান্তির অপর নাম ‘সোংক্রান’। এটি তাদের প্রতিবছর প্রতিপালিত জাতীয় পানি উৎসবের অন্যতম অনুষঙ্গ।

বাংলার হাজার বছরের ইতিহাসে বাংলা সনের প্রথম দিন, পহেলা বৈশাখের সমান গুরুত্ব নিয়েই পালিত হয়ে এসেছে চৈত্র সংক্রান্তি। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারে দিনটি পড়ে এপ্রিলের ১৩ তারিখে। চৈত্র সংক্রান্তির মেলা ও নানা পার্বন মনে করিয়ে দেয় নতুন বছর দোরগোড়ায়। এ উপলক্ষে লোকমেলা গ্রামগঞ্জেই বেশি হয়। গানবাজনা, মেলা, নাগরদোলা, প্রদর্শনীসহ নানা আয়োজনে লোকজ সংস্কৃতির নানা সম্ভার উঠে আসে এই দিনে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা মেতে উঠে নানা পূজা পার্বনে।

তবে সূর্যের কৃপা প্রার্থনায় কৃষককূল চৈত্রমাস জুড়েই এ প্রার্থনা উৎসব করে। বাঙালির ঐতিহ্য অনুযায়ী চৈত্র সংক্রান্তির তাৎপর্য ও গুরুত্ব অন্যান্য দিনের চেয়ে আলাদা। দেশের বিভিন্ন জায়গায় চড়কপূজার আয়োজন করা হয়। কালের বিবর্তনে চৈত্র সংক্রান্তির গুরুত্ব ও উদযাপন এখন অনেকটা হ্মান। নাগরিক সভ্যতার ডামাডোলে নগরীতে এর আবেদন নেই বললেই চলে।

তারপরও কোন কোন গ্রামে ও শহরে কিছু কিছু সংগঠন এ ঐতিহ্যকে লালন করে বলে আয়োজন করে নানা অনুষ্ঠানের। নানা আয়োজনে আজ যখন চৈত্র সংক্রান্তির পার্বণ, তখন একইসঙ্গে দুয়ারে কড়া নাড়ছে সর্বজনীন উৎসবের নববর্ষ পহেলা বৈশাখ। প্রতিবছরের মতো এবছরও নগরজুড়ে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে একটি বছরকে বিদায় জানাবে আমজনতা।

Print Friendly