CC News

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে ৫টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

 
 

ঢাকা : বাংলাদেশ ও ভুটান ৫টি দলিল স্বাক্ষর করেছে। এরমধ্যে ৩টি সমঝোতা স্মারক এবং দুটি চুক্তি রয়েছে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদারের অংশ হিসেবে কৃষি, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং সংস্কৃতি বিষয়ক এসব চুক্তি ও স্মারক স্বাক্ষর হয়।
রয়াল ব্যাংকুয়েট হলে মঙ্গলবার ভুটানের প্রধানমন্ত্রী তেসারিং তোবগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পরে তাঁদের উপস্থিতিতে এই দ্বিপাক্ষিক চুক্তি ও স্মারকগুলো স্বাক্ষরিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে অটিজম এবং নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিসর্ডার সম্পর্কিত একটি সম্মেলনে যোগ দিতে তিনদিনের সরকারি সফরে ভুটানে অবস্থান করছেন।
বাংলাদেশের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব সুরাইয়া বেগম, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক ডিজি মনোয়ার হোসেন। অন্যদিকে ভুটান সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তাগণ চুক্তি ও স্মারকে স্বাক্ষর করেন।
উল্লেখ্য, অটিজম বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশে তিনদিনের সরকারি সফরে মঙ্গলবার ভুটানে পৌঁছান শেখ হাসিনা। এ সময় দেশটির প্রধানমন্ত্রী তেসেরিং তোবগের এবং থিম্পুতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জিষ্ণু রায় চৌধুরী বিমানবন্দরে শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানান।
এরপর প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে ভুটানের সেনা সদস্যরা গার্ড অব অনার প্রদান করেন। পরে রয়্যাল ব্যাংকুয়েট হলে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী তেসারিং তোবগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পরে দুই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।
প্রধানমন্ত্রীর এ সফরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, অটিজম এবং নিউরো ডেভেলপমেন্ট ডিসঅর্ডার বিষয়ক সরকারের জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন সায়মা ওয়াজেদ হোসেনসহ সরকারি কর্মকর্তারা রয়েছেন।
অটিজম এবং নিউরোমেন্টাল ডিসর্ডার সম্পর্কিত সম্মেলনে যোগ দিতে তিনদিনের সরকারি সফরে ভুটানে রয়েছেন শেখ হাসিনা। তিনদিনের সম্মেলনে অংশগ্রহণ শেষে আগামী বৃহস্পতিবার দেশে ফিরবেন তিনি।

Print Friendly