CC News

বিমানের রাডার ক্রয় সংক্রান্ত মামলায় এরশাদ খালাশ

 
 

ঢাকা: বিমানের রাডার ক্রয় সংক্রান্ত দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলা থেকে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে খালাস দেয়া হয়েছে। বুধবার দুপুরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা এ রায় ঘোষণা করেন।

এ মামলায় এরশাদ আইনজীবী অ্যাডভোকেট শেখ সিরাজুল ইসলামের মাধ্যমে হাজিরা দাখিল করেন। গত ১২ এপ্রিল যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য এদিন ধার্য করেন আদালত।

আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল বলেছেন, যুক্তিতর্ক পর্যালোচনা করে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদসহ সবাইকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাড়াও অন্য আসামিরা হলেন- বিমানবাহিনীর সাবেক প্রধান সুলতান মাহমুদ, সাবেক সহকারী প্রধান মমতাজ উদ্দিন আহমেদ ও ইউনাইটেড ট্রেডার্সের পরিচালক এ কে এম মুসা (মৃত)।

ইউনাইটেড ট্রেডার্সের অপর পরিচালক শাহজাদ আলীকে এ মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

১৯৯২ সালের ৪ মে তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরো মামলাটি দায়ের করে। ১৯৯৪ সালের ২৭ অক্টোবর আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়। ১৯৯৫ সালের ১২ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।

অভিযোগে বলা হয়, বিমানবাহিনীর তৎকালীন সহকারী প্রধান মমতাজ উদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কাছে বাহিনীর জন্য যুগোপযোগী রাডার ক্রয়ের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপতির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় ফ্রান্সের থমসন সিএসএফ কোম্পানি নির্মিত অত্যাধুনিক একটি হাইপাওয়ার রাডার ও দু’টি লো লেভেল রাডার ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদিত হয়।

তৎকালীন সেনাপ্রধান এরশাদসহ অপর আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে আর্থিক সুবিধাপ্রাপ্ত হয়ে থমসন সিএসএফ কোম্পানির রাডার না কিনে বেশি দামে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্টিং কোম্পানির রাডার কেনেন। এতে সরকারের ৬৪ কোটি ৪ লাখ ৪২ হাজার ৯১৮ টাকা ক্ষতি হয় বলে অভিযোগ করা হয়।

রায় ঘোষণার পর এরশাদের প্রধান আইনজীবী অ্যাডভোকেট শেখ সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমরা ন্যায় বিচার পেয়েছি। প্রমাণিত হলো উনি (এরশাদ) নির্দোষ। মামলাটি রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই বিগত বিএনপি সরকার দায়ের করেছিল। আমরা আদালতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আশা করি বাকি কয়েকটি মামলায়ও আমরা ন্যায় বিচার পাবো।

এদিকে, রায় উপলক্ষে জাপার মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পানি সম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিমুল ইসলাম মাহমুদ, কাজী ফিরোজ রশীদ রশিদ এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সুনীল শুভ রায়, এসএম ফয়সল চিশতি, মেজর অব. খালেদ আখতার, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান খান, নুরুল ইসলাম নুরু, যুগ্মমহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি আলমগীর সিকদার লোটন, ফখরুল আহসান শাহজাদাসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী আদালত চত্বরে উপস্থিত ছিলেন। ববি বার্তা

Print Friendly, PDF & Email